মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার ‘স্মৃতিচারণ মঞ্চ’ নিয়ে শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল যা বললেন

322

।।দেশরিভিউ চট্টগ্রাম।।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলায় স্মৃতিচারণ মঞ্চ থেকেই যুদ্ধাপরাধের বিচারের দাবি প্রকাশ্যে এসেছিল।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষশক্তি যখন একঘরে হয়ে পড়েছিল, বিপক্ষ শক্তি যখন জেঁকে বসেছিল, তখন এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্যই বিজয় মেলার যাত্রা। বিজয় মেলার মঞ্চে স্মৃতিচারণ হতো। সেই স্মৃতিচারণ থেকেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবি ওঠে।

শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল বলেন, ‘জ্যেষ্ঠ নেতা ও মুক্তিযোদ্ধারা রাজধানী থেকে এসে এখানে যুদ্ধাপরাধের বিচারের দাবি জানিয়ে যেতেন। ঢাকায় তখন নানা কারণে প্রকাশ্যে সেভাবে এই দাবি জানানো যেত না।’
‘সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, আমির হোসেন আমু, মেজর রফিকুল ইসলাম, কাদের সিদ্দিকীসহ আরো অনেকে এসে বিজয় মেলার মঞ্চে স্মৃতিচারণ করতেন। তারা দাবি জানাতেন। পরে গণমাধ্যমে এসব খবর এলে তখন জাতীয় পর্যায়ে আলোচিত হতো। ধীরে ধীরে বিজয় মেলা হয়ে উঠে বাংলাদেশে প্রগতিশীল শক্তির রাজনৈতিক-সাংস্কৃতিক সাংগঠনিক অবস্থানের স্বীকৃতি স্বরূপ।’-বলেন নওফেল।

গত মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম নগরীর এম এ আজিজ স্টেডিয়াম মিলনায়তনে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদ আয়োজিত এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর পূত্র এবং মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

তবিনিময় সভায় সামনের বিজয় দিবসে প্রতিবারের মতো এবারও বিজয় র‌্যালির আয়োজন নিয়ে করণীয় ঠিক করতে স্থানীয় প্রশাসন ও বিভিন্ন সরকারি দফতরের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বসেছিলেন তিনি।

প্রসংগত চট্টগ্রামের গণমানুষের প্রয়াত নেতা এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর উদ্যোগে ১৯৮৯ সালে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসের সম্মুখ চত্বরে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাংস্কৃতিক সংগঠকদের সাথে নিয়ে সাহসী এই বিজয় মেলার সূচনা হয়। এই বিজয় মেলায় স্মৃতিচারণ মঞ্চ থেকে মহিউদ্দিন চৌধুরীর উদ্যোগেই একাত্তর সালের স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠান শুরু হয়েছিলো। পরবর্তীতে যা সারাদেশ ছড়িয়ে পড়েছিলো।

মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নওফেল বলেন, ‘বিজয় মেলা বানচাল করতে বিএনপি-জামায়াতসহ প্রতিক্রিয়াশীল শক্তি বাধা দেওয়াসহ অনেক কিছু করেছিল। তখন আমাদের মূল শক্তি ছিলেন আজকের প্রধানমন্ত্রী। এখনও প্রধানমন্ত্রী সবসময় বিজয় মেলার বিষয়ে খোঁজ নেন। তিনি আমাদের উৎসাহিত করেন। বিজয় মেলার মহাসচিব গত ২৮ নভেম্বর দেখা করে উনাকে সার্বিক বিষয় অবহিত করেছেন।’

মতবিনিময় সভায় বিজয় মেলা পরিষদের মহাসচিব মো. ইউনুছ, নগর আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক ও বিজয় র‌্যালি উপ-কমিটির আহ্বায়ক ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মোশতাক আহমেদ, উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মেহেদী হাসান, সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব, জেলা প্রশাসন, সিভিল সার্জন কার্যালয়সহ বিভিন্ন সরকারি সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ১৬ ডিসেম্বর সকাল ৯টায় নগরীর এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের সামনের বিজয় শিখা চত্বর থেকে বিজয় র‌্যালি শুরু হবে। এতে নেতৃত্ব দেবেন মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

SHARE