মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মুজিবুর রহমান বীরবল এর ৭৮ তম জন্মদিন

    154

    ।।এজি লাভলু, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি।।

    মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও প্রবীণ রাজনীতিবিদ, কুড়িগ্রাম জেলা কৃষক লীগের সভাপতি ও নাগেশ্বরী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি, প্রেসক্লাব নাগেশ্বরীর সাবেক প্রতিষ্ঠাতা ও নাগেশ্বরী কলেজের সাবেক শিক্ষক এবং কুড়িগ্রাম জেলা তথা নাগেশ্বরী উপজেলা আওয়ামী লীগের একমাত্র উন্নয়নের পৃষ্ঠপোষক, ত্যাগী, সৎ, যোগ্য, তৃণমূল পর্যায়ের গণ-মানুষের জনপ্রিয় জননেতা শিক্ষাগুরু আলহাজ্ব মজিবুর রহমান বীরবল রামখানা ইউনিয়নে এক সভ্রান্ত পরিবারে ৭ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন।

    নাগেশ্বরী বিএসসি মোড়ের বাসভবনে অসংখ্য ভক্ত-অনুসারী ও দলীয় কর্মী-সমর্থক, সংবাদকর্মীরা সহ তাকে শুভেচ্ছা জানান।

    আলহাজ্ব মজিবুর রহমান বীরবল স্যার ছাত্রজীবন থেকে আওয়ামী রাজনীতি করে ব্যাপক সুনাম অর্জন ও নাগেশ্বরী কলেজের সাবেক শিক্ষক হিসেবেও তার হাতেগড়া অসংখ্য ছাত্রছাত্রী রয়েছে।

    মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মজিবুর রহমান বীরবল স্যার:

    শিক্ষা জীবনে তৎকালীন বিএ পাশ, বিপিএড পাস করা এ ত্যাগী প্রবীণ নেতা ১৯৬৬ হতে সক্রিয় রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করেন। বর্তমানে কুড়িগ্রাম জেলা কৃষক লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন নিষ্ঠার সাথে।

    ইতিপূর্বে নাগেশ্বরী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রামখানা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দলের কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালনা করে সরকারের ব্যাপক সফলতা অর্জন করেছেন। ১৯৭০ সালে সাধারণ নির্বাচনে মরহুম এম, এন, এ মোজাহার হোসেন চৌধুরী (নাগেশ্বরী) ও এমপি শামসুল হক চৌধুরী (ভূরুঙ্গামারী)‘র নৌকা মার্কা প্রচার মিছিল, সমাবেশ, খুলি বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন জয়লাভ করতে সক্ষম হন।

    বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ মোতাবেক গণ আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ এবং ভারতের চৌধুরী হাট শিবির স্থাপন, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও যুদ্ধে অংশগ্রহন করেন তিনি। সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীনের পর স্মরণার্থী পুনর্বাসনে।

    ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের পর আওয়ামী লীগের অনেক নেতৃবৃন্দ গা ঢাকা দিলেও মরহুম মোজাহার হোসেন চৌধুরীর নেতৃত্বে নাগেশ্বরী, ভূরুঙ্গামারী থানায় আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করার কাজে ছুটে বেড়ান বুক ফুলিয়ে। নাগেশ্বরী থানায় গুটি কয়েক ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগকে সাথে নিয়ে কুড়িগ্রাম জেলায় প্রথম বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের দাবীতে রাজপথে মিছিল করে সাহসীকতার পরিচয় দেন। যে কারনে পরদিনই তাকে থানায় আটকে রেখে রাত ১০ টায় ছেড়ে দেওয়া হয়। এমনকি ১৫ আগষ্ট তিনি সর্বপ্রথম তার বাসায় বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া খায়ের ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেন।

    এছাড়াও এই ত্যাগী নেতা জোহরা তাজ উদ্দিন, সাজেদা চৌধুরী, আব্দুল মালেক উকিলের নেতৃত্বে কুড়িগ্রাম জেলার এ্যাডভোকেট আমান উল্যাহ ও এ্যাডভোকেট নজির হোসেনের নির্দেশে জাতীয় কমিটির সদস্য হিসেবে কুড়িগ্রাম জেলার প্রতিনিধিত্বে কেন্দ্রীয় কমিটির প্রতিটি মিটিং ও মিছিলে অংশগ্রহণ করেন।

    রাজনৈতিক জীবনে ১৯৮৬ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে কুড়িগ্রাম-১ আসনের ১৫ দলীয় ঐক্যজোটের নৌকা মার্কা প্রার্থী হিসেবে সংসদ নির্বাচন করেন। স্বৈরাচারী এরশাদের ভোট ডাকাতির কারনে পরাজিত হন তিনি।

    আওয়ামী লীগকে জোরদার করার জন্য মাঠে ময়দানে ছুটে বেড়ান মজিবর রহমান বীরবল। সে সময় নাগেশ্বরীর ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও রাসেল স্মৃতি সংসদ, বঙ্গবন্ধু পরিষদ গঠন করেন এবং আওয়ামী লীগকে সু-সংগঠিত করেন। শুধু তাই নয় ১৯৮৭ সালে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রিয় কমিটির নির্দেশে নাগেশ্বরী-ভূরুঙ্গামারী এলাকায় এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে উপজেলা ঘেরাও করতে গিয়ে গ্রেফতার হন এই ত্যাগী নেতা।

    এক বছর কারাবরণ করে ও ২২ দিন কনডেম সেলে অবস্থান করতে হয় তার। জেল থেকে ছাড়া পেয়ে কৃষকদের ঋণ মওকুফের দাবি নিয়ে আন্দোলন করেন বীরবল স্যার এবং জনসমর্থণ বৃদ্ধি করেন। ১৯৯১ সালে তিনি মনোনয়ন চাইলেও জনসমর্থন থাকার পরেও আব্দুস সবুর হীরু চৌধুরীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। তারপর মনোনয়ন চাইলেও তাকে প্রতিবারই বিভিন্ন করনে তার মনোনয়ন হাতছাড়া হয়।

    আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে নাগেশ্বরী-ভূরুঙ্গামারী দুই উপজেলার উন্নয়ন ও মানুষের মানুষের কল্যাণে নিঃস্বার্থভাবে কাজ করে যাচ্ছেন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আলহাজ্ব মজিবুর রহমান বীরবল।

    SHARE