মুসলমান মুসলমানের রক্ত নিচ্ছে

281

।।দেশরিভিউ, ঢাকা।।

ওআইসি ভূক্ত দেশ গুলোর মধ্যে যদি কোনো সমস্যা থাকে তাহলে কেন আমরা বসে সেগুলো সমাধান করতে পারছি না সেই বিষয়টি দেখতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

রোববার (৯ জুন) বিকলে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে ত্রিদেশীয় সফর বিষয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা। জাপান, সৌদি আরব ও ফিনল্যান্ডে ১১ দিনের সফর সম্পর্কে জানাতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে এক সাংবাদিক মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব আছে উল্লেখ করে এ ব্যাপারে ওআইসির ভূমিকা নিয়ে জানতে চান।

জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, ‘ওআইসির উচিত এই ব্যপারে উদ্যোগ নেওয়া। আমাদের সমস্যা গুলো যদি আমরা আলাপ-আলোচনা করে সমাধান করতে পারি তাহলে আত্মঘাতী সংঘাত, রক্তপাত হবে না। এখন মুসলমান মুসলমানকে হত্যা করছে। কে ভালো মুসলমান কে ভালো মুসলমান না, কে সঠিক কে সঠিক না বা কে ভালো কাজ করছে কে করছে না ; এইটা বিচার করার দায়িত্ব আল্লাহ আমাদের দেন নাই। যুদ্ধের  ময়দানে কি করতে হবে তারও একটা নির্দেশনা আছে কিন্তু সেটা যুদ্ধ ময়দানে প্রযোজ্য। কোরআন শরীফের প্রতিটি জায়গায় আল্লাহ বলেছেন শেষ বিচার তিনি করবেন। আল্লাহ যেখানে শেষ বিচার করবেন সেখানে নীরিহ মানুষ মেরে বেহেস্তে চলে যাওয়া যায় না। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন,’ যারা নীরিহ মানুষ মেরে বেহেস্তে যাবে ভাবছে আল্লাহ কি তাকে মানুষ মারার ক্ষমতা দিয়েছেন? সামান্য বিষয়ে ছুঁতো ধরে কেন মানুষ মানুষকে মারবে? আমাদের দেশেও অনেকে মানুষ খুন করে বলে এইতো আমরা বেহেস্তে পৌছালাম। যারা মানুষ খুন করে তারা কি বেহেস্তে পৌছাতে পারে?’

তিনি আরও বলেন,’ এখন তো সোশ্যাল মিডিয়া, মানুষ কত নিউজ দেয়, ম্যাসেজ দেয়। যারা মানুষ খুন করেছে তারা কেউ কি এখনো বহেস্ত থেকে এখনো কোনো ম্যাসেজ পাঠিয়েছে যে  মানুষ খুন করে আমি এখন বেহেস্তে আরামে আঙুর ফল খাচ্ছি!

এক সময় ধারনা করা হতো কওমী মাদ্রাসার ছেলেরাই সন্ত্রাস করে কিন্তু এখন দেখি ইংরেজি মিডিয়ামে পড়া উচ্চবিত্ত ছেলেরা, হঠাৎ তাদের মনে হলো বেহেস্তে যেতে হবে, সে মানুষ খুন করার পথ বেছে নিল।’

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন,’ এই যে আমরা আত্মঘাতী সংঘাত করে যাচ্ছি রণক্ষেত্র হচ্ছে সমস্ত মুসলিম দেশগুলো। মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে খুনোখুনি হচ্ছে আর লাভবান হচ্ছে যারা অস্ত্র তৈরী করে তারা, অস্ত্র যারা সরবরাহ করে তারা। এইটা ওআইসিকে বন্ধ করতে হবে। আমি জানি এগুলো বললে অনেক সমস্যা হতে পারে তবুও যা সত্য তা আমি বলে যাব।’

গত ২৮ মে জাপান দিয়ে ত্রিদেশীয় এই সফর শুরু করেন শেখ হাসিনা। পরে সেখান থেকে সৌদি আরব ও ফিনল্যান্ড যান তিনি। সফরে তৃতীয় ও শেষ দেশ ফিনল্যান্ড থেকে শনিবার (৮ জুন) সকালে দেশে পৌঁছান তিনি।

ত্রিদেশীয় এই সফরের শুরুতেই জাপানের টোকিওতে ‘দ্য ফিউচার অব এশিয়া’ সম্মেলনে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সফরে দেশটির প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন তিনি। বেশ কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্পে অর্থায়নের জন্য জাপানের সঙ্গে আড়াইশ কোটি ডলারের উন্নয়ন সহায়তা চুক্তি সই হয় তার সফরে।

জাপান সফর শেষে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কনফারেন্সের (ওআইসি) চতুর্দশ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে ৩০ মে শেখ হাসিনা সৌদি আরবে যান। সম্মেলনে অংশ নেওয়ার পর পবিত্র ওমরাহ পালন করেন তিনি, জিয়ারত করেন মহানবীর (স.)-এর রওজা।

 

সৌদি আরব থেকে গত ৩ জুন ফিনল্যান্ড যাত্রা করেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে ৪ জুন দেশটির প্রেসিডেন্ট সাউলি নিনিস্তোর সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। পরদিন ৫ জুন অল ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ ও ফিনল্যান্ড আওয়ামী লীগ তার সম্মানে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান আয়োজন করে। প্রধানমন্ত্রী সেই অনুষ্ঠানেও যোগ দেন।

SHARE