‘মৃত্যুর খুব কাছ থেকে ফেরত এসেছি’

100

দীর্ঘ ১১ দিন চিকিৎসা শেষে প্রিয় ক্যাম্পাস শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) ফিরলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও জনপ্রিয় লেখক অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল। বুধবার দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে পুলিশি নিরাত্তায় তিনি শাবিপ্রবি ক্যাম্পাসে পা রাখেন। ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে ১টা ৩৫ মিনিটে নিজ বাসায় উঠেন। সঙ্গে তার স্ত্রী ড. ইয়াসমিন হকসহ পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় ড. জাফর ইকবাল পাশে থাকার জন্য সহকর্মী ও সাংবাদিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এবং ধন্যবাদ জানান।

তিনি বলেন, ‘আমি মৃত্যুর খুব কাছ থেকে ফিরে এসেছি। তাই কারো প্রতি আমার কোনো ধরনের ক্ষোভ নেই।’

ড. জাফর ইকবাল বলেন, ‘আমি জানতাম না দেশের মানুষ আমাকে এতো ভালোবাসে। এ আঘাত না পেলে বিষয়টি আমার অজানা থাকতো।’

এর আগে বেলা ১২টা ৪৬ মিনিটে নভো-এয়ারের একটি ফ্লাইটে ঢাকা থেকে সিলেট এমএজি ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেন ড. জাফর ইকবাল।

এসময় তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বাসসহ তার সহকর্মী, শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন স্তরের মানুষ স্বাগত জানান।

এদিকে বিকেল ৪টায় আবারও তিনি হামলার স্থান মুক্তমঞ্চে দাঁড়িয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দেশ্যে কথা বলবেন।

এ ব্যাপারে ড. জাফর ইকবালের বরাত দিয়ে তাঁর ব্যক্তিগত সহকারী জয়নাল আবেদীন বলেন, ‘তিনি বলেছেন, আমি কখনো ভয় পাই না। এখনো পাচ্ছি না। মুক্তমঞ্চে দাঁড়িয়ে আমি আবারও কথা বলবো।’

তার আগমন উপলক্ষে ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে কঠোর নিরপত্তা বৃদ্ধি এবং বিভিন্ন স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জালালাবাদ থানার ওসি শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘নিরাপত্তা আগের চেয়ে জোরদার করা হয়েছে। তার অফিস, বাসা, এমনকি তিনি যেখানে যাবেন পুলিশ তার সাথে থাকবে। ড. ইকবালের ক্যাম্পাসে ফেরা উপলক্ষে ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, গত ৩ মার্চ সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যম্পাসে ইইই বিভাগের একটি ফেস্টিভ্যাল চলাকালে জাফর ইকবালকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালায় ফয়জুল হাসান নামের নামের এক দুষ্কৃতিকারী। হামলায় তিনি মারাত্মকভাবে আহত হলে তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজে নেওয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ওইদিনই ঢাকা সিএমইচে এয়ারএম্বুলেন্সে করে স্থানান্তর করা হয়।

দেশরিভিউ/শিমুল

SHARE