মেগাপ্রকল্প পদ্মাসেতুতে বরাদ্দ ৫৩৭০ কোটি, মেট্রোরেলে ৭২১২ কোটি টাকা

233

।দেশরিভিউ-জাতীয়।

বাস্তবায়নাধীন দেশের বড় দুই মেগা প্রকল্প পদ্মাসেতু ও মেট্রোরেলে আসন্ন অর্থবছরে বড় অংকের বরাদ্দ রাখা হয়েছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরের এ বাজেটে সেতু বিভাগে মোট ৮ হাজার ৫৬৪ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে, এরমধ্যে পদ্মাসেতুর জন্যই বরাদ্দ থাকছে ৫ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা। অন্যদিকে সড়ক বিভাগে মোট বরাদ্দ রাখা হয়েছে ২৯ হাজার ২৭৪ কোটি টাকা, এরমধ্যে মেট্রোরেলের জন্য থাকছে ৭ হাজার ২১২ কোটি টাকা।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকেলে জাতীয় সংসদে বাজেট উত্থাপনকালে এ বরাদ্দের কথা জানান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। অর্থমন্ত্রী হিসেবে এটাই মুস্তফা কামালের প্রথম বাজেট উত্থাপন। তবে বাজেট উত্থাপনকালে তিনি অসুস্থবোধ করায় তার পরিবর্তে বাকি অংশ পড়েন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল বলেন, বাংলাদেশে সমন্বিত ও নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ নেটওয়ার্ক স্থাপনে আমরা পদ্মাসেতু, মেট্রোরেল, কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল এবং হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুতুবখালী পর্যন্ত ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণসহ অনেক বৃহৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছি। নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণাধীন পদ্মাসেতুর ২ কিলোমিটার আজ দৃশ্যমান। প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৬৭ শতাংশ।

‘ঢাকা মহানগরীর অভ্যন্তরীণ সড়ক নেটওয়ার্ক উন্নয়ন, প্রবেশ ও নির্গমন, মহাসড়কের যানজট নিরসন এবং ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকার জন্য পরিকল্পিত ও সমন্বিত আধুনিক গণপরিবহন ব্যবস্থা গড়ে তোলার লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি। আমরা সংশোধিত পরিবহন পরিকল্পনা বা আরএসটিপি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। এর আওতায় বাংলাদেশে প্রথম মেট্রোরেল, উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। পাশাপাশি হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে গাজীপুর পর্যন্ত গণপরিবহণ ব্যবস্থা বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট বা বিআরটি বাস্তবায়নের কাজ চলছে।

‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ: সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’ শীর্ষক এবারের বাজেটের আকার ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। এ বাজেটে পরিচালনসহ অন্যান্য খাতে মোট বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৩ লাখ ২০ হাজার ৪৬৯ কোটি টাকা। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকা।

SHARE