মেয়র এসে দেখলেন, পরিষ্কারের মহড়া করলেন, তবু রয়ে গেলো ময়লার স্তূপ!

1437

।।মনির হোসাইন, চট্টগ্রাম।।

এবার শতভাগ কোরবানি বর্জ্য অপসারণ নিশ্চিতে বিভাগীয় সেল করেছিলো চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। যার মনিটরিংয়ের প্রধান দায়িত্বে আছেন খোদ সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। এই বিভাগীয় সেল থেকে ৪১ ওয়ার্ডকে চারটি আলাদা সেলে ভাগ করে চার জন কাউন্সিলরকে পরিচালনার দায়িত্বও দেয়া হয়েছিলো।

এ বিষয়ে সিটি কর্পোরেশন থেকে গত কয়েকদিন গণমাধ্যমের কাছে ঢাকঢোল পিটিয়ে দাবী করা হয়েছিলো বিকাল ৫টার মধ্যে সড়ক থেকে শতভাগ বর্জ্য অপসারণ করা হবে।

কিন্তু বাংলায় একটি প্রবাদ আছে ‘কাজীর গরু কিতাবে আছে, গোয়ালে নেই!’

সময়: আনুমানিক বিকাল ৪ টা
স্থান: কাজীর দেউরি।

নগরীর ২১নং জামালখাঁন ওয়ার্ডের কাজীর দেউরি এলাকার এস,এ পরিবহন সংলগ্ন মূল সড়কে ময়লার ডাস্টবিন। দুপুর থেকে কোরবানীর বর্জ্যে সয়লাভ ছিলো এই ডাষ্টবিন।

বিকাল আনুমানিক ৪ টার দিকে নগর পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিদর্শনে বের হয়ে কাজির দেউরিতে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন

বিকাল আনুমানিক ৪ টার দিকে নগর পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিদর্শনে বের হয়ে হঠাৎ উপস্থিত হলেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। সাথে ছিলেন কোরবানি বর্জ্য অপসারণে গঠিত চারটি সেলের কাউন্সিলাররা। দেশের শীর্ষ সংবাদমাধ্যমের সামনে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বললেন, বিকাল ৫টার মধ্যে প্রধান সড়ক থেকে বর্জ্য অপসারণ করা শেষ করবো আমরা। এরপর মিডিয়ার ক্যামেরার সামনে ময়লা পরিস্কারের মহড়ায় অংশ নেন পরিচ্ছন্নকর্মীরা। কিছুক্ষন পরেই ঐ স্থান ত্যাগ করলেন মেয়রের গঠিত পরিচ্ছন্নতা বাহিনীর বিভাগীয় সেলের সবাই।

সন্ধ্যা ৬টায় এই প্রতিবেদক কাজির দেউরির একই স্থানে গিয়ে পূর্বের ময়লার ডাস্টবিনে আবারো কোরবানীর বর্জ্য দেখতে পাই। এসময় ২০ মিনিট অপেক্ষা করেও
সিটি কর্পোরেশনের কোন পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে দেখা যায়নি।

রাত ৮টায় এই প্রতিবেদক পুনরায় একই স্থানে দাড়িয়ে ডাস্টবিনে ময়লার স্তুপ দেখতে পাই। এসময় ডাস্টবিন থেকে আশপাশে প্রচুর দূর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছিলো।

এ বিষয়ে বক্তব্য নেওয়ার জন্য রাত সাড়ে ৮টা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমনকে ৪ দফা ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

SHARE