মেয়র নাছিরের আমলনামা প্রধানমন্ত্রীর টেবিলে

563


।দেশরিভিউ সংবাদ।

আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাচ্ছেন না বর্তমান সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। শনিবার দলটির মনোনয়ন বোর্ডের সভা থাকলেও তার আগে দেশরিভিউর সাথে সিনিয়র কয়েকজন নেতার আলাপ হলে বিষয়টি নিশ্চিত বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, বেশ কিছু কারনে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের উপর বিরক্ত। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত এক আসামীর পরিবারের সদস্যদের সাথে মেয়র নাছিরের দীর্ঘদিন ব্যবসায়িক ও ব্যক্তিগত সম্পর্কের অভিযোগ রয়েছে। এসবের তথ্যপ্রমাণ দেখে আওয়ামী লীগের উচ্চমহল মেয়র নাছির থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে বলে জানা গেছে।

এছাড়াও চট্টগ্রামের স্থানীয় রাজনীতিতে আধিপত্য ধরে রাখতে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মদদ দেওয়ার অভিযোগ আছে নাছিরের বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের এক প্রেসিডিয়াম সদস্য দেশরিভিউকে বলেন, রাজনীতিতে একক আধিপত্য ধরে রাখতে চান নাছির। গ্রুপ রাজনীতি নিয়ে নাছিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে প্রচুর। ফলে চট্টগ্রামের নেতারাও নাছিরের ওপর বিরক্ত। তিনি বলেন, তাদের দাবি নাছির হঠাও।

জানা গেছে, চট্টগ্রামের রাজনীতিতে দ্বন্দ্ব-কোন্দল মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারে এই আশঙ্কায় দলটির মনোনয়ন বোর্ড নাছিরের ওপর থেকে শেষ পর্যন্ত মুখ ফিরিয়ে নিতে পারে। এছাড়া ২০১৫ সালের নির্বাচনে নাছির তার ইশতেহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতির বিশাল একটি অংশ পূর্ণ করতে পারেনি। এতে করে জনমনে তৈরি হয়েছে ক্ষোভ। এছাড়াও নাগরিক সমস্যা নিরসনে মেয়রের কার্যকর কোন ভূমিকা ছিল না। গৃহকর, সুইমিংপুল ইস্যুতে চট্টগ্রামে সাধারণ জনগনের মনেও ক্ষোভের আগুন ধরিয়েছেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন।

বাদ যাওয়ার ক্ষেত্রে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন পরিচালনায় ব্যর্থতার বিষয়টা আলোচনায় যেমন আছে তেমনি মেয়র নাছিরের বিভিন্ন সময় করা বেঁফাস মন্তব্যে সরকারকে বিব্রত হতে হয়েছে বলে জানিয়েছে দলটির সম্পাদক মন্ডলীর এক সদস্য। আলাপকালে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এ নেতা বলেন, অপেক্ষা করুন সব জানতে পারবেন। দলের নীতি আদর্শের বিরুদ্ধে গেলে প্রধানমন্ত্রী ছাড় দিবেন না।

দলের একটি সূত্র বলছে, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা ও প্রধানমন্ত্রীর নিজস্ব সোর্সে দফায় দফায় রিপোর্ট করা হয়েছে যা এখন প্রধানমন্ত্রীর টেবিলেই রয়েছে। মেয়র হওয়ার পরে বিগত ৫ বছরে নামে বেনাম বিপুল ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক হওয়ার অভিযোগ আছে মেয়র নাছিরের বিরুদ্ধে। এছাড়াও মানি লন্ডারিংয়ের বিস্তর অভিযোগ আছে যা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। চট্টগ্রামে বেশ কয়েকটি আলোচিত রাজনৈতিক খুনের ঘটনায় মেয়রের সরাসরি মদদ দেওয়ার বিষয়টি আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডকে ক্ষুব্ধ করেছে।

SHARE