যাকাত-ফিতরা সংগ্রহের নামে গোপন তহবিল গঠনে ‘জামায়াত-শিবির’

811


।।আব্দুল্লাহ আরেফিন, দেশরিভিউ।।

১৯৭১ এর আলবদর কমান্ডার ও কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা চৌধুরী মাইনুদ্দিন ও আশরাফুজ্জামানের বিতর্কিত এনজিও সংগঠন Muslim Aid Uk এর সহযোগী প্রতিষ্ঠান ‘সেন্টার ফর জাকাত ম্যানেজমেন্ট’ (সিএমজেড) প্রতিবছর বাংলাদেশের ধর্মপ্রান মুসলমানদের কাছ থেকে বিরাট অংকের যাকাতের টাকা হাতিয়ে নিয়ে গেলেও এ বিষয়ে সরকারের কোন পদক্ষেপ দেখতে পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, প্রতিবছর শুধু বাংলাদেশ থেকে যাকাতের নামে হাজার কোটি টাকা সংগ্রহ ও পাচার করছে সেন্টার ফর জাকাত ম্যানেজমেন্ট (সিএমজেড) সংগঠনটি। এজন্য সারাদেশের ধন্যাঢ্য ব্যবসায়ীদের টার্গেট করে প্রতি রমজানে মাঠে নামে সংগঠনটি। ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা সহ দেশের প্রতিটি বিভাগীয় শহরে ‘যাকাত মেলা’ আয়োজন করে সংগঠনটি। বিগত ৮ বছর যাবত দেশের প্রতিষ্ঠিত কিছু ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ও রাজনৈতিক নেতাদের সামনে রেখে প্রতিটি বিভাগীয় মহানগর, জেলা পর্যায়েও এ মেলার আয়োজন করে আসছে সেন্টার ফর জাকাত ম্যানেজমেন্ট (সিএমজেড)। পুরো বিষয়টির নেপথ্যে কলকাঠি নাড়ছেন লন্ডনে পলাতক যুদ্ধাপরাধী চৌধুরী মাইনউদ্দিন ও আমেরিকায় পলাতক যুদ্ধাপরাধী আশরাফুজ্জামান খান।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের অর্থের যোগানদাতা মুসলিম এইড ইউকে পরিচালিত ‘সেন্টার ফর জাকাত ম্যানেজমেন্ট’ (সিএমজেড) ২০১৭ সালের ১৯ ও ২০ মে চট্টগ্রামে ‘যাকাত ফেয়ার’ অনুষ্ঠানের কথা থাকলেও দেশের শীর্ষ গণমাধ্যম ‘দৈনিক ভোরের কাগজ’ এ সংক্রান্ত খবর প্রকাশ হওয়ায় তা পরে ভন্ডুল হয়ে যায়। এসময় ভোরের কাগজে উঠে আসে ‘সেন্টার ফর জাকাত ম্যানেজমেন্ট’ (সিএমজেড) অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ফুল ওনারশিপ হিসেবে ‘মুসলিম এইড‘ এর নাম ও তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট লিংক সংযুক্ত থাকার বিষয়টি।

আরো পড়ুন ভোরের কাগজে: জামায়াতের তহবিল গঠনে মাঠে নেমেছে সিএমজেড

জানা গেছে, সর্বশেষে ২০১৯ সালে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে সেন্টার ফর জাকাত ম্যানেজমেন্ট আয়োজিত সপ্তম জাকাত ফেয়ার অনুষ্ঠিত হয়। আর এ অনুষ্ঠানে সরকাররের এক গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে করোনা দূর্যোগকালীন সময়ে ‘সেন্টার ফর জাকাত ম্যানেজমেন্ট’ (সিএমজেড) দেশের কোথাও ‘যাকাত ফেয়ার’ আয়োজনের অনুমতি না পেলেও ব্যক্তি উদ্যোগে এবং অনলাইন প্রচারনার মাধ্যমে যাকাত ও ফিতরার অর্থ সংগ্রহ চালিয়ে যাচ্ছে। এজন্য তারা ফেসবুক টুইটার সহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্মপ্রান মুসলমানদের দৃষ্টি আকর্ষন করতে দেখা গেছে। এছাড়াও চ্যারেটি প্লাটফর্ম নামে একটি জামায়াতি সংগঠনকেও যাকাত ফিতরার অর্থ সংগ্রহে দেখা গেছে। মিরপুর ডিওএইচএস‘তে এভিনিউ নং ২ এর রোড নং ১১ এবং হাউস নং ৮৮৬ (৪র্থ তলা) তে বসে ‘চ্যারিটি প্লাটফর্ম’ নামের সংগঠনটির কার্যক্রম পরিচালনা করছে জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বায়তুল মোকাররম মসজিদের সিনিয়র ইমাম হাফেজ মাওলানা মুফতি মিজানুর রহমান বলেন, আল্লাহ পবিত্র কুরআনের সূরা আত-তাওবা তে যাকাত বন্টনে আটটি খাতের কথা উল্লেখ করেছেন। এই খাতগুলো সরাসরি কুরআন দ্বারা নির্ধারিত। তাই এর বাইরে যাকাত বণ্টন করলে তা ইসলামী শরিয়তসম্মত হয় না। যাকাত মেলা আয়োজনকেও এসময় তিনি উদ্দেশ্যমূলক বলে উল্লেখ করেন।

SHARE