যুক্তরাষ্ট্রের ওপর খ্যাপা জি-৭

9

জি-৭ এর (বিশ্বের সাত উন্নত দেশের সংগঠন) মন্ত্রীরা বেজায় খেপেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ওপর।সম্প্রতি ইউরোপীয় ইউনিয়ন, কানাডা ও মেক্সিকো থেকে ইস্পাত এবং অ্যালুমিনিয়াম আমদানির ওপর শুল্ক আরোপ করেছে ফলে শীর্ষ এ সংহঠনের নেতারা খেপেছেন বলে শুনা যাচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের নতুন এই নীতির আওতায় ইস্পাতের ওপর ২৫ ও অ্যালুমিনিয়ামের ওপর ১০ শতাং শুল্ক নির্ধারণ করা হয়েছে।

ইতোমধ্যে ফ্রান্সের অর্থমন্ত্রী ব্রুনো ল্য মের সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, ‘এর ফল ভালো হবে না। কয়েকদিনের মধ্যেই একটি বাণিজ্যযুদ্ধ শুরু হতে যাচ্ছে। কিন্তু তার আগে যুক্তরাষ্ট্রকেই ঠিক করতে হবে যে, তারা তাদের সবচেয়ে বড় ব্যবসায়িক অংশীদার ইউরোপের সঙ্গে বাণিজ্যিক দ্বন্দ্বে যাবে কি-না।’

জার্মানির অর্থমন্ত্রী ওলাফ শলৎস ওয়াশিংটনের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে বলেন, ‘এটি একটি একপাক্ষিক ভুল সিদ্ধান্ত এবং আমি মনে করি একটি আন্তর্জাতিক আইনের পরিপন্থী।’

এ ছাড়া কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেছেন, ‘এই সিদ্ধান্ত অন্যদের প্রতিশোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য করবে।’

যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘদিনের মিত্র ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পূর্বাবস্থার কথা স্মরণ করে ট্রাম্পের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘অর্থনৈতিক জাতীয়তাবাদ যুদ্ধ ডেকে আনে। ১৯৩০-এর দশকে এমনটিই ঘটেছিল।’

এর মধ্যে, বাণিজ্যিক অংশীদারদের সঙ্গে উদ্ভূত এই ধোঁয়াশা কাটাতে মার্কিন বাণিজ্য সচিব উইলবার রস বেইজিংয়ে চীনের ভাইস প্রিমিয়ার লিউ হে’র সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন। তবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক টুইটবার্তায় খোঁচা দিয়ে বলেছেন, ‘আমাদের সঙ্গে বাণিজ্য করে আপনারা যখন প্রতিবছর ৮ শ বিলিয়ন ডলার আয় করেন, তখন বাণিজ্য যুদ্ধে আপনারা হারতে পারেন না! এবার অন্যান্য দেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য সুবিধা নেওয়ার পালা। বুদ্ধিমান হোন!’

ট্রাম্প আরও বলেন, ‘এই শুল্কনীতির ফলে মার্কিন ইস্পাত ব্যবসায়ীরা লাভবান হবেন এবং জাতীয় উপার্জন অব্যাহত রাখতে এ ধরণের পদক্ষেপ নেওয়াটা খুবই জরুরি ছিল।’ ইউরোপ এবং অন্যান্য দেশে মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলো এর চেয়েও বাজে নিয়ন্ত্রণের শিকার বলেও অভিযোগ করেছেন তিনি।

অন্যদিকে, মার্কিন শুল্কের প্রতিক্রিয়ায় ১ জুলাই থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ইস্পাত, ইয়োগহার্ট (এক ধরনের দুধের তৈরি মদ), হুইস্কি ও রোস্টেড কফির মতো ভোগ্যপণ্যের ওপর পাল্টা শুল্ক আরোপের ঘোষণা দিয়েছে কানাডা।

মেক্সিকোর অর্থ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তারাও যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানি করা ইস্পাতের ওপর শুল্ক আরোপের চিন্তা করছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন, মেক্সিকো, কানাডার পাশাপাশি মার্কিন কংগ্রেসের রিপাবলিকান সদস্যরাও মিত্রদেশগুলোর ওপর বাড়তি শুল্ক চাপানোকে ভালো চোখে দেখছেন না।

দেশরিভিউ/শিমুল

SHARE