যেন সিনেমার কাহিনী, ২০ বছর পর পরিবারের কাছে বৃদ্ধ আব্দুস সোবাহান (ভিডিও)

113


।।দেশরিভিউ নিউজ।।
সিনেমা কাহিনীর মতো ছোট বেলায় হারিয়ে গিয়ে ঘটনাচক্রে বৃদ্ধ বয়সে এসে পরিবার পরিজনকে খুঁজে পাওয়া যায়, এমন দৃশ্য রুপালি পর্দায় দেখা গেলেও বাস্তবে দেখা মিললো পারি ফাউন্ডেশন এর সহায়তায় পরিবার পরিজনকে খুঁজে পাওয়া আবদুস সোবাহান চাচার জীবনে!

জানা গেছে প্রায় ২০ বছর আগে ফেনীর ছাগলনাইয়া থেকে স্ত্রীর সাথে অভিমান করে বাড়ি থেকে চলে যান তিনি! পড়াশুনা জানা শিক্ষিত ভদ্রলোক। বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর বিভিন্ন বাড়িতে লজিং থেকে হাইস্কুলে দীর্ঘদিন শিক্ষকতাসহ মসজিদে ইমামতিও করেছেন। একসময় সব ছেড়ে দিয়ে চট্টগ্রামে চলে যান। সেখানে ভবঘুরে জীবন কাটাতে থাকেন। খেয়ে না খেয়ে শরীর বেশ খারাপ হতে থাকে। একসময় অজ্ঞান হয়ে পড়ে থাকেন রাস্তায়!

এরপর মাসুম বিল্লাহ, সানজিদা আফরোজ নওরিন সহ কিছু স্বেচ্ছাসেবক তাকে হাসপাতালে ভর্তি করান। দীর্ঘদিন চিকিৎসা দেয়ার পর তারাও তার পরিবারের সন্ধান করে ব্যর্থ হন। তারপর তারা মিল্টন সমর্দারের পরিচালিত চাইল্ড এন্ড ওল্ড এজ কেয়ার বৃদ্ধাশ্রমে নিয়ে আসেন। মিল্টন হলেন এই আশ্রম অসহায় মানুষের শেষ ভরসা।

এদিকে দেখতে দেখতে সময় পেরিয়ে যায়! দিন, মাস, বছর ঘুরে কেটে যায় ২০ বছর! এতগুলি বছর সোবাহান চাচা হাঁতড়ে বেড়িয়েছেন তার পুরোনো স্মৃতি। যে সন্তানদেরকে ছোট বেলায় হাত ধরে হাঁটা শিখিয়েছেন এই বুঝি সেই ছেলেরা তাকে বাবা বলে ডাক দিলো! দিন, মাস, বছর, যুগ ঘুরে যায় কিন্তু তার আর বাবা ডাক শোনা হয় না!

সোবাহান চাচা মাঝে মাঝে ডুবে যান তার ভাবনার রাজ্যে যেখানে আছে শুধু তার স্ত্রী, ছেলে মেয়ে। স্বপ্নে ডুবে যান নাতি নাতনির খেলার সাথী হয়ে। ভাবতে থাকেন এখন হয়ত তার ছেলে মেয়ের বিয়ে হয়েছে, নাতি নাতনি হয়েছে। একটা সময় তার পিঠে উঠে ঘোড়া বানিয়ে তার ছেলেরা আনন্দ উল্লাস করতো। এখন হয়তো নাতি নাতনিরা তার ছেলেদের পিঠে উঠে আনন্দ উল্লাস করছে! এসব ভেবে ভেবে তার দিন কেটে যায়। আর ওই দিকে বাবাকে হন্যে হয়ে খুজতে থাকেন ছেলে মেয়েরা। সব সময় বাবার মুখটা সন্তানদের তাড়া করে ফিরতো। যখন তিনি বাড়ি ছাড়েন তখন তার বড় ছেলের বয়স মাত্র ১০। বাকিরা তখন আরো ছোট। এখন বড় ছেলের বয়স ৩০। দেশের বাইরে থাকেন। তিনিও ২ সন্তানের বাবা। আরেক ছেলের বয়স ২৫, সেও বিদেশে থাকেন। মেয়েরও ভালো ঘরে বিয়ে হয়েছে। সব মিলিয়ে সাজানো সংসার। জীবন সঙ্গীনি স্ত্রীও প্রিয় মানুষটির খোজে দিন রাত তীর্থের কাকের মতো প্রহর গুনছিলেন। তার স্বজনরাও সারা দেশে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে তার আশা অনেকটা ছেড়েই দিয়েছিলেন।

পারি ফাউন্ডেশনের সভাপতি বিভিন্ন সময় বৃদ্ধাশ্রমে বৃদ্ধদের সাথে সময় কাটান। সেখানে সোবাহান চাচার সাথে কথোপকথনের মাধ্যমে জানতে পারেন তার বাড়ি ফেনীর ছাগলনাইয়াতে। তিনি তার বিস্তারিত তথ্য নেন এবং তাকে তার পরিবারে ফিরিয়ে দিতে আশ্বস্ত করেন এবং তার পরিচয় জানতে বিভিন্ন মাধ্যমে চেষ্টা শুরু করেন। অন্যান্য চেষ্টার সাথে এ বিষয়ে পারি ফাউন্ডেশনের পেজে একটা পোস্ট দেয়া হয়, সেখানে অনেকেই সহায়তায় এগিয়ে আসেন। সাইফুল আযম বাবর ভাইয়ের সহায়তায় তার পরিবারের সন্ধান পাওয়া যায়। যোগাযোগ করা হয় তার পরিবারের সাথে। খবর জেনে পরিবার যেন অমাবস্যার চাঁদ হাতে পায়!

গতকাল (৩০ অক্টোবর) তার পুনর্মিলন হয় পরিবার পরিজনদের সাথে। দীর্ঘ ২০ বছর পর স্ত্রী পেলো তার জীবন সঙ্গীকে, স্বামী পেলো তার সহধর্মিণীকে, সন্তানরা পেলো তাদের বাবাকে, পুত্রবধু পেলো শ্বশুরকে, নাতি নাতনিরা পেলো তাদের প্রিয় দাদাকে। আর পারি ফাউন্ডেশন পেলো একজন ঘরহারা মানুষকে ঘরে ফেরোনোর একরাশ প্রশান্তি! পারি সবসময় অসহায় মানুষের সাথেই আছে। আশা করি আপনারাও পারি’র সাথেই থাকবেন।

 

SHARE