যে কারণে খোকাকে পছন্দ করতেন প্রধানমন্ত্রী

88

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে যারা ঘনিষ্ঠ তারা সবাই জানেন তিনি সদ্য প্রয়াত বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকাকে আলাদা চোখে দেখতেন। বিএনপির আর দশ জন নেতা থেকে খোকা কে আলাদা রাখতেন আওয়ামী লীগ সভাপতি।

২০০৯ সালে যখন তিনি দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পান তখন ঢাকা মহানগরীর মেয়র ছিলেন সাদেক হোসেন খোকা। সে সময় নির্বাচন নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিল আওয়ামী লীগ। তখন আওয়ামী লীগ সরকারের পক্ষে মেয়র পদ থেকে খোকাকে সরিয়ে দেওয়া ছিল খুব স্বাভাবিক ঘটনা। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী সে কাজটি করেননি। বরং দুই বছর খোকাকে মেয়র পদে রেখেছিলেন তিনি।

জানা যায় যে, শুধু এই ঘটনা নয় বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে বিভিন্ন পর্যায়ে বিএনপির কারো সঙ্গে কথা বলা অথবা যোগাযোগের ক্ষেত্রে খোকার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর আলাপ হতো। খোকার প্রতি আওয়ামী লীগ সভাপতির কেন এই পক্ষপাত? অনুসন্ধানে দেখা যায় যে এর পেছনে কয়েকটি কারণ ছিল।

প্রথম কারণ হলো যে ১৯৯১ সালে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়ার পর খোকা গোপালগঞ্জের স্কুল গুলোর জন্য ক্রীড়া সামগ্রী বরাদ্দ অনুমোদন করেছিলেন। কিন্তু তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া সেই বরাদ্দ অনুমোদন বাতিল করে দেন। তখন খোকা বেগম জিয়ার সঙ্গে দেখা করে এর প্রতিবাদ করেছিলেন। খোকার প্রতিবাদের কারণে এই বরাদ্দ শেষ পর্যন্ত পুরোটা বাতিল না করে অর্ধেক দেওয়া হয়। ২০০১ এ বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর ২০০৪ সালের ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা ঘটানো হয়।
বিএনপির মধ্যে থেকে যারা এই গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন এবং তারেক জিয়ার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন খোকা। জানা গেছে যে ঐ সময় খোকা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। গ্রেনেড হামলার জন্য তিনি দুঃখ প্রকাশও করেছিলেন। খোকা দলীয় ফোরামে সবসময় এই ঘটনার জন্য তারেককে দায়ী করতেন। গ্রেনেড হামলার ঘটনা বিএনপির জন্য একটা বড় ভুল বলে তিনি উল্লেখ করতেন।

প্রধানমন্ত্রী খোকাকে পছন্দ করার দ্বিতীয় কারণ হলো ওয়ান ইলেভেনের সময় খোকা আওয়ামী লীগ সভাপতির পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন। আওয়ামী লীগ সভাপতির দৃঢ়চিত্ত, সাহস এবং তার অবস্থানের প্রশংসা করেছিলেন খোকা। সেসময় তিনি ভবিষৎবাণী করেছিলেন যে, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগই ক্ষমতায় আসবে।

সর্বশেষ হলো খোকা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি আওয়ামী লীগ সভাপতির সবসময় একটা আলাদা পক্ষপাত থাকে।

(বাংলা ইনসাইডার)

SHARE