যে কারনে এবারের দুর্গাপূজায় মনটা খারাপ কুমার বিশ্বজিতের

75


সায়ান আহমেদ, দেশরিভিউ:
করোনার আতঙ্কে জনজীবন বেহাল। তাই এবার দুর্গাপূজায় তারকাদের উচ্ছ্বাসে কিছুটা ভাটা পড়েছে। বিগত বছরের মতো নয়, এ বছর পূজার আনন্দ কিছুটা হলেও রংহীন। কেউ উদযাপন করবেন স্বল্প পরিসরে। কারও সময় কাটবে বাসায়। আর সুযোগ পেলে কেউ কেউ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঢুঁ মারবেন পূজামণ্ডপে।
সংগীতশিল্পী কুমার বিশ্বজিতের মনটা বেশিই খারাপ। করোনার কারণে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে আটকে আছেন এই সংগীতশিল্পীর স্ত্রী। ছেলে নিবিড়কে নিয়ে তিনি আছেন ঢাকায়। গত বছরের শেষ দিকে মাকে হারান তিনি। অনেক জনপ্রিয় বাংলা গানের এ শিল্পী বলেন, ‘ভাবলেই বুকটা আটকে আসে, মা নেই। মা ছাড়া পৃথিবী ভাবতেও পারিনি আগে। এই সময়ে যাঁদের প্রিয়জন চলে গেছেন, তাঁদের আত্মার প্রতি আমার শ্রদ্ধা।’
করোনার মধ্যে কাছের আত্মীয়দের মৃত্যুর খবরও তাঁকে কষ্ট দিয়েছে। সবকিছু মিলিয়ে এবারের পূজায় খুব একটা আনন্দ নেই কুমার বিশ্বজিতের মনে। তিনি বলেন, ‘বাসায় থাকব। নতুন জামাকাপড় পরব। মা নেই পৃথিবীতে, অর্ধাঙ্গিনী নেই দেশে, সবাই মিলেমিশে আনন্দ করতে না পারলে আনন্দই হয় না।’

কুমার বিশ্বজিতের দুর্গাপূজার স্মৃতির সঙ্গে জড়িয়ে আছে গ্রামের বাড়ি। এ শিল্পীর শৈশব কেটেছে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে। শৈশবে গ্রামের বাড়িতে পূজার উদ্‌যাপন ছিল আনন্দ আর উচ্ছ্বাসে ঠাসা।

এখনো পূজার ঢাকের বাদ্য অনেক বেশি মিস করেন এই সংগীতশিল্পী। কুমার বিশ্বজিৎ বলেন, ‘আমার ছোটবেলা কেটেছে সীতাকুণ্ডে। তখন আমাদের এলাকায় হাটহাজারী থেকে একজন ঢাকবাদক আসতেন। তাঁর বাদ্য শুনে কোথায় যেন হারিয়ে যেতাম। কী সুন্দর বাজাতেন! এমনও হতো, ওই ঢাকবাদকের সঙ্গেই সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত থাকতাম। তাঁর সঙ্গেই খাওয়াদাওয়া করতাম। এখনো ঢাক দেখলে আমার বুক কেঁপে ওঠে।’

SHARE