যে কারনে স্বামীর নির্মম হত্যাকাণ্ডের বিচারে খালেদা জিয়ার আপত্তি

8185
স্বামী জিয়াউর রহমানের সাথে বেগম খালেদা জিয়ার ফাইল ফটো

।।দেশরিভিউ নিউজ।।
খালেদা জিয়া কেন স্বামীর হত্যার বিচার করেননি? ১৯৯১ সালের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিতে জিয়া হত্যার বিচারের প্রতিশ্রুতি দিলেও কেন তা বাস্তবায়ন করেননি তা আজো অনেকের মনে প্রশ্ন।

১৯৮১ সালের ৩০ মে মারা যান বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান। চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে এক সেনা বিদ্রোহে তাকে হত্যা করা হয়। এই হত্যাকাণ্ডের পরপর সেনা আইন এবং প্রচলিত আইনে জিয়ার বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়। হত্যাকাণ্ডকে একটি ক্যু প্রচেষ্টা হিসেবে উল্লেখ করে, অনেক নিরপরাধ মুক্তিযোদ্ধা সেনা অফিসারকেও কোর্ট মার্শালের মাধ্যমে ফাঁসিতে ঝোলানো হয়। কিন্তু বেসামরিক আদালতে জিয়ার হত্যার বিচার মামলা ফাইলবন্দী রয়ে গেছে। বেগম জিয়াই তার স্বামীর বিচারের জন্য কোনো উদ্যোগ নেননি।

জিয়ার মৃত্যুর পর উপরাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবদুস সাত্তার অস্থায়ী রাষ্ট্রপতির দায়িত্বগ্রহণ করেন। দায়িত্বগ্রহণ করেই তিনি জিয়া হত্যার বিচারের অঙ্গীকার করেন। এই আলোকে চট্টগ্রাম কোতয়ালী থানায় রাষ্ট্র বাদী হয়ে মামলা করে। বিএনপি দুই দফায় ক্ষমতায় থাকলেও অজ্ঞাত কারণে এই মামলার কোন অগ্রগতি হয়নি। কাগজপত্রে দেখা যায় যে, ১৯৮১ থেকে ১৯৯৫ পর্যন্ত এই মামলায় ৫৩ বার তারিখ পড়ে। এই মামলার কার্যক্রম স্থগিত করার জন্য গোপনে চিঠি দেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বেগম জিয়াও এই মামলার ব্যাপারে আগ্রহী ছিলেন না কখনও। স্বামীর নির্মম হত্যাকাণ্ডের বিচার তিনি কেন চাইলেন না সে এক বড় প্রশ্ন।

এরশাদই জিয়ার হত্যাকারী: খালেদা জিয়া
১৯৮১ সালে জিয়া হত্যা মামলা দায়ের হওয়ার কিছুদিনের মধ্যে (৮২ এর ২৪ মার্চ) তৎকালীন সেনা প্রধান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ ক্ষমতা গ্রহণ করেন। বেগম জিয়া এর কিছুদিনের মধ্যেই সরাসরি রাজনীতিতে আসেন। রাজনীতিতে এসে এরশাদবিরোধী আন্দোলনের একপর্যায়ে ১৯৮৩ সালের ২১ নভেম্বর বেগম জিয়া প্রথম আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেন যে, ‘জিয়াউর রহমানের হত্যার পিছনে এরশাদের হাত রয়েছে।’ এরপর ১৯৮৪ সালের ২৪ মার্চ বেগম জিয়া এক বিবৃতিতে বলেন, ‘এরশাদই জিয়ার হত্যাকারী।’

সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের সাথে বেগম খালেদা জিয়ার ফাইল ছবি

১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর বেগম জিয়া ঘোষণা করেন যে বিএনপি ক্ষমতায় এলে জিয়া হত্যার জন্য এরশাদকে কাঠগড়ায় দাঁড় করাবে।

৯১ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে ‘জিয়া হত্যার বিচার’

১৯৯১ সালের বিএনপি তার নির্বাচনী ইশতেহারে জিয়া হত্যার বিচারের অঙ্গীকার করে। ঐ নির্বাচনে অভাবনীয়ভাবে জয়ী হওয়ার পর বিএনপি এই হত্যার বিচারের কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। তৎকালীণ আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী মির্জা গোলাম হাফিজ, ১৯৯২ সালের ২৮ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘জিয়া হত্যার বিচার হবে। বর্তমানে এটি আদালতে বিচারাধীন, সাব-জুডিস।’ কিন্তু ১৯৯৫ সালের ২৩ অক্টোবর সিএমপি কমিশনার পুলিশ সদর দপ্তরে পাঠানো এক গোপনীয় চিঠিতে জানান, সরকার এই মামলার সব কার্যক্রম স্থগিত করে দিয়েছে। জানা গেছে, দলীয় ফোরামেই এই মামলার বিচারের ব্যাপারে একাধিকবার প্রশ্ন ওঠে।

স্বামী হত্যার বিচারে খালেদা জিয়ার অনাগ্রহের কারন:
দলের তৎকালীন গুরুত্বপূর্ণ নেতা ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা এ ব্যাপারে বেগম জিয়াকে সরাসরি প্রশ্ন করেন। কিন্তু বেগম জিয়া কখনোই এই বিষয়টি স্পষ্ট করেননি। বরং তিনি নিজেই এই মামলা ধামাচাপা দেওয়ার পক্ষে ছিলেন। কারন চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে যে রাতে জিয়াউর রহমানকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়েছিলো ঠিক একই সময়ে একই ছাদের নিচে বিএনপি’র অনেক শীর্ষ স্থানীয় নেতা অক্ষত ছিলেন। সেই রাতের নির্মম হত্যাকাণ্ডে বেসামরিক লোক মারা যাওয়ায় নিয়ম অনুযায়ী তা আদালতের মাধ্যমে বিচার হওয়ার কথাও ছিলো। কিন্তু হত্যা মামলাটি চালু হলে বিএনপির অনেকেই ফেঁসে যেতে পারেন, বিএনপিতেও বিপর্যয় হতে পারে, এই বিবেচনা থেকেই সম্ভবত এই মামলার অগ্রগতি হয়নি।

যে প্রশ্নের উত্তর ৩৮ বছরে বিএনপি দিতে পারেনি:

বিএনপি তার দলের প্রতিষ্ঠাতার খুনের বিচার করেনি। খালেদা জিয়া স্বামী হত্যার বিচারের চেয়ে দলের নেতাদের(খুনীদের) জীবন বাঁচাতেই এমন সিদ্ধান্তে অটল ছিলেন বলে মনে করেন বিএনপি’র অনেক প্রবীন নেতা। আর রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছে, যে রাজনৈতিক সংগঠন তার প্রতিষ্ঠাতা হত্যার বিচার করেনি তারা কিভাবে বাংলাদেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করবে!

 

দেশরিভিউ নিউজ/বাংলা ইনসাইডার

 

SHARE