রংপুরে কিশোরী হত্যা ও লাশ গুমের অভিযোগে বিএনপির শীর্ষ নেতা আটক

216

রংপুরে সুমি আক্তার (১৪) নামে এক কিশোরী গৃহপরিচারিকাকে হত্যা ও  লাশ গুমের  অভিযোগে রংপুর মহানগর বিএনপির সহসভাপতি কাওছার জামান বাবলাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় বাবলা ছাড়াও আরও তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

 মঙ্গলবার গভীর রাতে মাহিগঞ্জ ও মুন্সিপাড়া এলাকা তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের বিষয়টি রংপুর মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানার ওসি রেজাউল করিম নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেফতারকৃত বাবলা রংপুর বিএনপির সহ-সভাপতি এবং বিএনপির একজন প্রভাবশালী নেতা।  এর আগে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী হিসেবে রংপুর সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচন করে শোচনীয়ভাবে পরাজিত হন। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাবলা বিএনপির সদর আসনে প্রার্থী ছিলেন। কিন্তু আসনটি ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীকে ছেড়ে দেয়ায় তিনি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান।

গৃহপরিচারিকা সুমি নগরীর নব্দীগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা। সুমি বিএনপি নেতা বাবলার বোনের বাড়িতে গৃহপরিচারিকা ছিল। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে বিএনপি নেতা কাওছার জামান বাবলার বোন লাবনী আক্তার তার স্বামীসহ নগরীর মুন্সিপাড়ায় বসবাস করেন। সুমি ওই বাড়িতে গৃহপরিচারিকা হিসেবে ছিল।

গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ওই বাড়িতে সুমি আক্তারের লাশ পাওয়া যায়। তিন দিন লাশ গোপন করে রেখে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে সুমির পরিবারের লোকজনকে ম্যানেজ করার চেষ্টা চালান বিএনপি নেতা বাবলা। এতে কাজ না হলে সোমবার নগরীর মাহিগঞ্জ  এলাকায় গোপনে সুমির লাশ দাফন করা হয়।

পরবর্তীতে সুমির মা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ মঙ্গলবার রাতে বাবলা, তার বোন লাবনী ও বোনের স্বামীসহ আম্বিয়া খাতুন নামে অপর এক গৃহপরিচারিকাকে গ্রেফতার করে।
এদিকে নির্বাচনের ঠিক আগ মুহুর্তে বিএনপি নেতার এসব কর্মকান্ড দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করবে কিনা এমন প্রশ্ন করলে বিষয়টি এড়িয়ে যান রংপুর বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতারা।

SHARE