রাজশাহীর ছয় আসনে এবার নতুন ভোটার ২ লাখ

119

রাজশাহী ছয়টি আসনে এবার যুক্ত হয়েছে প্রায় ২ লাখ নতুন ভোটার। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নতুন ভোটাররা মুখ্য ভূমিকা পালন করতে পারে বলে সংশ্লিষ্টরা।

জেলা নির্বাচন কার্যালয় থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে,  নতুন ভোটারের মধ্যে ৯০ ভাগই তরুণ। একাদশ সংসদ নির্বাচনে রাজশাহীর ছয়টি আসনে মোট ভোটার ১৯ লাখ ৪২ হাজার ৫৬২ জন। দশম সংসদ নির্বাচনে মোট ভোটার ছিলেন ১৭ লাখ ৪২ হাজার ৬৫৭ জন। এবার নতুন ভোটার হয়েছেন ১ লাখ ৯৯ হাজার ৯০৫ জন।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার মহিশালবাড়ী এলাকার তরুণ ভোটার মারুফ হোসেন। গোদাগাড়ী সরকারি ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী সে। তিনি একাদশ সংসদ নির্বাচনে নতুন ভোট প্রদান করবেন।

মারুফ বলেন, ‘এলাকায় মাদক নির্মূলে শুধু কথা প্রতিশ্রুতি নয়, যে প্রার্থী লিখিত অঙ্গীকার করবেন। তাকেই আমি বেছে নেবো। সেই সঙ্গে খেলাধুলার উন্নয়নে কাজ করবেন। এমন প্রার্থী আমার পছন্দ। কারণ খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে যুবক সমাজকে রক্ষা করা যাবে।’

নগরীর তেরখাদিয়া এলাকার তরুণ ভোটর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী জেড এম সাকি রহমান পথিক। তিনি বলেন, ‘সিটি করপোরেশনে নতুন ভোটার হয়ে ভোট দিয়েছি। তবে সংসদ নির্বাচনে এবারই প্রথম ভোট প্রদান করবো। তবে যে প্রার্থী কর্মসংস্থানে প্রবেশের জন্য উপঢৌকন ছাড়া অঙ্গীকার করবেন। তাকেই আমি ভোট দেবো।’

চারঘাট উপজেলার নতুন ভোটার তাসনুভা শিরিন বলেন, ‘নারীদের সামনে এগিয়ে নেওয়ার পাশাপাশি এলাকার উন্নয়নে যার অঙ্গীকার দৃঢ় হবে, তাকে আমার প্রথম ভোটটা দেওয়ার জন্য মনস্থির করে রেখেছি।’

রাজশাহীর তরুণ সংগঠন ইয়ুথ অ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ এর সভাপতি শামীউল আলীম শাওন বলেন, ‘তরুণদের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি সমাজকে রক্ষা করে উন্নয়ন করবে। এমন প্রার্থী আমরা বেছে নেবো। শুধু বর্তমান নয়, ভবিষ্যত পরিকল্পনা করে তরুণদের জন্য রাজশাহী অঞ্চলকে সুন্দর করতে যেসব প্রার্থী ভাববেন। তাদের পক্ষেই আমাদের অবস্থান থাকবে। কারণ মোট ভোটারের সংখ্যায় তরুণ-তরুণীদের ভোট অনেকটা আসনে ফাক্টর হবে বলে মনে করছি। ’

দেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাদের নতুন ভোটারদের টানার ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক কামারুজ্জামান চঞ্চল বলেন, ‘গত১০ দশ বছরে এলাকার অনেক উন্নয়ন হয়েছে। সেগুলো তুলে ধরা হবে। সেইসঙ্গে গত ১০ বছরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দাঙ্গা-হাঙ্গামা না থাকায় সেশনজট কমে এসেছে। এসে করে শিক্ষার্থীরা নির্ধারিত সময়ে পড়ালেখা শেষ করতে পারছে। তারা চাকরিও পাচ্ছে। এ ধরনের ইতিবাচক দিকগুলো তাদের সামনে নির্বাচনি প্রচারণায় দলীয় ইশতেহারের সঙ্গে তুলে ধরা হবে।’

SHARE