রাতের আঁধারে দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে নিচ্ছে বিএনপি-জামায়াত

56

ক্ষমতায় আসলে এলাকা ছাড়া করার হুমকি!

সারাদেশে নির্বাচনী ডামাডালের মূল্য দিতে হচ্ছে দরিদ্র কৃষকদের। দেশের কয়েকটি এলাকা থেকে বিএনপির নেতাকর্মীদের দ্বারা ক্ষেতের ধান কেটে নেয়ার অসংখ্য অভিযোগ এসেছে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে বিএনপি দলীয় প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালাতে ধানের ছড়া ব্যবহৃত হচ্ছে। আর এ ধানের ছড়া জোগাড় করা হচ্ছে কৃষকদের জমি থেকে ধান কেটে।

নেত্রকোণা জেলার সদর উপজেলায় ঠাকুরকোনার ইউনিয়নের কাজীপাড়া গ্রামের আব্দুল লতিফের জমির ধান কেটে নিয়েছে পাশের গ্রামের ঠাকুরকোনা দক্ষিন পাড়া গ্রামের নজরুল ইসলাম ও তার লোকজন। নজরুল উপজেলা বিএনপির সমাজকল্যান সম্পাদক। নেত্রকোনা-২ আসনে বিএনপির প্রার্থী অধ্যাপক ডা. আনোয়ারুল হকের পক্ষে মঞ্চ সাজাতে গত সোমবার রাতে জমির ধান কেটে নেয়। এতে বাঁধা দেয়ায় লতিফের লোকজনদের ওপর হামলা চালিয়ে আহত করেছে নজরুলের লোকজন। এ নিয়ে নেত্রকোণা মড়েল থানায় একটি মামলা হয়েছে।

আব্দুল লতিফ জানান, তাদেরকে প্রাণ নাশের হুমকি দিচ্ছেন নজরুল। দক্ষিণপাড়া গ্রামের শিক্ষক আব্দুস সামাদ জানান, লতিফ ছাড়াও আরও দুজনের জমির ধান কেটে নেয়ার ঘটনা হয়েছে। এর সুবিচার হওয়া প্রয়োজন বলেন এই শিক্ষক।

দিনাজপুর সদর উপজেলার দক্ষিণ শিবপুর, নওগাঁর রাণীনগর, বগুড়ার সারিয়াকান্দি, সুনামগঞ্জের ছাতক এবং কিশোরগঞ্জে হাওরের বোরো ক্ষেত থেকে বিএনপির নেতাকর্মীরা ধান কেটে নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিএনপি দলীয় প্রার্থীর সঙ্গে এখন যুক্ত হয়েছে জামায়াতসহ ঐক্যজোটের অন্যান্য প্রার্থীরা। 

ধান কাটায় বাঁধা দিলে পাল্টা হামলা ছাড়াও ক্ষমতায় এলে গ্রাম ছাড়া করার হুমকি দিচ্ছে বিএনপি জামায়াতের নেতাকর্মীরা। আগামী ১০ ডিসেম্বর থেকে কার্যক্রম শুরু হলেও নির্বাচনী ক্যাম্প তৈরির কাজ ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। বেশিরভাগ ক্যাম্পেই সাজসজ্জার জন্য ব্যবহার হচ্ছে কাচা পাকা ধান। এছাড়া বিভিন্ন সভা, সমাবেশ ও মিছিলে ব্যবহার করা হচ্ছে ক্ষেতের ধান।

ক্ষেতের ধান কাটা নিয়ে আতঙ্কে রয়েছেন কৃষকরা। মূলত দরিদ্র কৃষকদের টার্গেট করে ধান কাটা হচ্ছে যেন প্রতিরোধের সম্মুখীন হতে না হয়। আবদুল লতিফসহ কয়েকজন কৃষক এ অনাচারের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানিয়েছেন।

SHARE