রুমিন ফারহানাকে নিয়ে বিএনপিতে উত্তেজনা

57

জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত কোটায় নির্বাচিত এমপি রুমিন ফারহানাকে দলের হুইপের দায়িত্ব দেয়ার প্রস্তাব করেছে বিএনপি। তারেক রহমানের একক পছন্দে তাকে মনোনিত করা হলেও এ নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া-উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে দলটিতে।

দলের একটি অংশের দাবি, রুমিন ফারহানা বিএনপিতে নবাগত এবং অনুপ্রবেশকারী হিসেবে চিহ্নিত। তিনি সরাসরি ভোটে এমপি নির্বাচিত হননি। রুমিন ফারহানা এত তরুণ এবং নবীন রাজনীতিবিদ যে এই পদের জন্য তিনি যোগ্য নন। তাকে ঘিরেই বিএনপিতে বিতর্কের সূত্রপাত হয়েছে।

তারা বলেন, অতীতে যারা মাটি কামড়ে বিএনপিকে আগলে রেখেছেন, আজ তাদের মূল্যায়ন করা হচ্ছে না। উড়ে এসে জুড়ে বসা নেতারাই এখন বিএনপিকে নিয়ন্ত্রণ করছেন। সম্প্রতি তাবিথ আউয়াল, রুমিন ফারহানা ও ইশরাক হোসেনের মতো ব্যক্তিদের গুরুত্ব বেড়েছে। এর অন্যতম কারণ লন্ডন বার্তা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলটির দায়িত্বশীল এক নেতা বলেন, মহিলা সংরক্ষিত আসন কেন রুমিন ফারহানাকে দেয়া হলো? দলে তার অবদান কতটুকু?

তিনি আরো বলেন, রুমিন ফারহানার চেয়ে অনেক ত্যাগী নেত্রী বিএনপিতে আছেন, যারা জনপ্রিয় এবং দলের জন্য অবদান রেখেছেন। তাদের বাদ দিয়ে রুমিন ফারহানাকে এমপি করার রহস্য কী?

দলীয় সূত্রমতে, সম্প্রতি তাবিথ আউয়াল ও ইশরাক হোসেনকে নিয়ে বিএনপির মধ্যে এক ধরনের উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। তাদেরকে বিএনপিতে হাইব্রিড নেতা হিসেবে মনে করা হয়। তাবিথ ও ইশরাকের অতীত রাজনীতির কোনো ভূমিকা না থাকার পরেও তাদেরকে মেয়র পদে মনোনীত করা হয়েছে। বিএনপিতে যারা ত্যাগী, নিঃস্বার্থভাবে কঠিন সময়ে দলের জন্য কাজ করেন তাদেরকে মূল্যায়ন করা হচ্ছে না।

এ বিষয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও বুদ্ধিজীবীরা বলেন, বিএনপির নেতৃত্বের প্রতি এই অভিযোগ নতুন কিছু নয়। তারা ত্যাগী ও পরিশ্রমী নেতাদের মূল্যায়ন করে না। এরা এখন রাজনীতিবিদ নয়, শুধু ব্যবসায়ীদের মূল্যায়ন করতে জানে। অর্থের কাছে আদর্শকে বিক্রি করছে বিএনপি।

SHARE