রুশ ব্যাংক থেকে ৬০ লাখ ডলার চুরি

    156
    মেসেজিং অ্যাপ সুইফটে সাইবার আক্রমণের মাধ্যমে রাশিয়ার একটি ব্যাংক থেকে ৬০ লাখ ডলারের সমপরিমাণ অর্থ চুরি করেছে সুইফট হ্যাকারদের একটি দল। এ ঘটনায় জড়িত হ্যাকারদের এখনো চিহ্নিত করা যায়নি বলে জানিয়েছে দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
    রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, অর্থ লোপাটে সুইফট কোড ব্যবহার করে হ্যাকাররা। রাশিয়ার ব্যাংকিং ব্যবস্থায় ডিজিটাল চুরি নিয়ে দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে হ্যাকিংয়ের এ কথা জানানো হয়েছে। এটাই সুইফট কোড ব্যবহারের মাধ্যমে করা চুরির সর্বশেষ উদাহরণ।

    প্রতিবেদনটি প্রকাশ হওয়ার পর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুখপাত্র ঘটনার শিকার ব্যাংকটির নাম প্রকাশ করেননি। তিনি এই চুরির বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিরাপত্তা বিভাগের উপ-প্রধান আর্টেম শিচেভের মূল্যায়ন তুলে ধরেন। শিচেভ এই ঘটনাটিকে ‘সাধারণ চুরি’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

    এ নিয়ে আর কোনো বিস্তারিত তথ্য দিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকটি অস্বীকৃতি প্রকাশ করেছে বলে রয়টার্স-এর প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

    ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারির শুরুতে সুইফট মেসেজিং সিস্টেমের মাধ্যমে ৩৫টি ভুয়া বার্তা পাঠিয়ে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউ ইয়র্কে রক্ষিত বাংলাদেশের এক বিলিয়ন ডলার সরিয়ে ফেলার চেষ্টা হয়। এর মধ্যে পাঁচটি মেসেজে ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার যায় ফিলিপিন্সের রিজল কমার্সিয়াল ব্যাংকে। আর আরেক আদেশে শ্রীলঙ্কায় পাঠানো হয় ২০ লাখ ডলার।

    শ্রীলঙ্কায় পাঠানো অর্থ ওই অ্যাকাউন্টে জমা হওয়া শেষ পর্যন্ত আটকানো গেলেও ফিলিপিন্সের ব্যাংকে যাওয়া অর্থের বেশিরভাগটাই স্থানীয় মুদ্রায় বদলে জুয়ার টেবিল ঘুরে চলে যায় নাগালের বাইরে।

    ওই অর্থের কিছুটা উদ্ধার করা গেলেও বেশিরভাগই এখনও পায়নি বাংলাদেশ।

    রুশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অর্থ চুরির বিষয়ে জানতে চাইলে সুইফটের মুখপাত্র নাতাশা ডি টেরান বলেন, নির্দিষ্ট কোনো ব্যাক্তি বা প্রতিষ্ঠান নিয়ে মন্তব্য করেন না তারা।

    “আমাদের কাছে যখন সম্ভাব্য কোনো জালিয়াতির বিষয়ে অভিযোগ করা হয়, আমরা আক্রান্ত ব্যবহারকারীদেরকে তাদের পরিবেশ সুরক্ষিত করতে সহায়তায় আমাদের সহযোগিতা নেওয়ার প্রস্তাব করি।”

    রুশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক মুখপাত্র তাদের নিরাপত্তা বিভাগের উপ-প্রধান আরটেম সাইচেভ-এর উদ্ধৃতি তুলে ধরেছে। সাইচেভ বলেন, হ্যাকাররা ওই অর্থ তুলে নিয়েছে, আর “তারা যখন একটি কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারে তখন এমনটা খুবই সহজেই হতে পারে।”

    ব্রাসেলসভিত্তিক সংস্থা সুইফট বলছে, গত বছর বিশ্বজুড়ে ডিজিটাল জালিয়াতির ঘটনা বেশ বৃদ্ধি পেয়েছে। নতুন নতুন হামলা চালানোর জন্য হ্যাকাররা আরো অত্যাধুনিক সরঞ্জাম ও কৌশল ব্যবহার করছে।

    দেশরিভিউ/শিমুল

    SHARE