রোষানল ঠেকাতে বিএনপির মনোনয়নে ছলচাতুরী

169

মনোনয়ন বঞ্চিতদের রোষানল থেকে বাঁচতে ছলচাতুরীর আশ্রয় নিলো বিএনপির হাইকমান্ড। এমনটাই অভিযোগ দলটির মনোনয়ন বঞ্চিত একাধিক নেতার।

শনিবার মনোনয়ন বঞ্চিতদের সমর্থকরা দিন-ভোর বিক্ষোভ করে দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে। কয়েকটি আসনে কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে সময় বেঁধে দেয় তারা। এ-সময় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সহ একাধিক সিনিয়র নেতা অবরুদ্ধ থাকে গুলশানে অবস্থিত কার্যালয়ের অভ্যন্তরে।

অবস্থার বাস্তবচিত্র তুলেধরে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাথে একাধিকবার ফোনে কথা বলেন মির্জা ফখরুল ইসসলাম আলমগীর। কথার ফাঁকে কয়েকবার উচ্চস্বরে দুজনের বাক্য বিনিময়ের বিষয়টা জানা গেছে বিশ্বস্ত সুত্রে।

দলটির এক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক দেশরিভিউকে জানান তারেক রহমানের সাথে কথা শেষ করে দুটি আসনে মনোনয়ন পরিবর্তনের জন্য চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শামসুদ্দিন দিদারকে দ্রুত নতুন মনোনয়ন পত্র লিখতে নির্দেশ দেন।

পরবর্তীতে রাতেই শামসুদ্দিন দিদার চাঁদপুর-১ আসনের জন্য এহসানুল হক মিলন (সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপি সরকারের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী), ও মানিকগঞ্জ-১ আসনের জন্য বিএনপির সাবেক মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের ছেলে খন্দকার আব্দুল হামিদ ডাবলুর কাছে মির্জা ফখরুল স্বাক্ষরিত দুটি চিঠি হস্তান্তর করে।

পত্র প্রাপ্তির বিষয়টা স্বীকার করে মানিকগঞ্জ-১ (শিবালয়, ঘিওর ও দৌলতপুর) আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী খন্দকার আব্দুল হামিদ ডাবলু দেশরিভিউকে জানান রাত এগারোটার দিকে আমি মনোনয়ন পত্র পেয়ে নেতাকর্মীদের শান্ত থাকতে বলি। বিষয়টি জানাজানি হলে মানিকগঞ্জের বিএনপির নেতাকর্মীরা উচ্ছাস প্রকাশ করতে থাকে। তবে রাতের আধারেই অদৃশ্য ইশারায় আমার মনোনয়ন বাতিল করা হয়। এটি মুলত নির্যাতিত নেতাকর্মীদের রোষানল থেকে বাঁচতে হাইকমান্ডের ছলচাতুরি বলে মনে করছেন কারানির্যাতিত এই নেতা।

এদিকে মনোনয়ন প্রত্যাহারের সময়সীমা শেষ হওয়ার আগ মুহূর্তে দুটি আসনে প্রার্থী পরিবর্তন করেছে বিএনপি। এই আসন দুটি হলো চট্টগ্রাম-৮ ও শেরপুর-২। চট্টগ্রাম-৮ আসনে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খানকে বাদ দিয়ে চট্টগ্রাম জেলা বিএনপির নগর বিএনপির সভাপতি আবু সুফিয়ানকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। আর শেরপুর-২ আসনে এ কে এম মোখলেছুর রহমান রিপনের বদলে সাবেক হুইপ প্রয়াত জাহিদ আলী চৌধুরীর ছেলে ফাহিম চৌধুরীকে দেয়া হয়েছে চূড়ান্ত মনোনয়ন।

রোববার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের কার্যালয় থেকে এই দুটি আসনে সুফিয়ান ও ফাহিমকে চূড়ান্ত মনোনয়নের চিঠি দেয়া হয়।

৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় একাদশ সংসদ নির্বাচনে রোববারই মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। এরপর কোনো দলের একাধিক প্রার্থী থাকলে ব্যালটে নাম থেকে যাবে।

এছাড়াও শেষ সময়ে বিএনপি চেয়ারপার্সনের কার্যালয় থেকে ঢাকা-১ আসনে আবু আশফাক খন্দকার, ঢাকা-৫ আসনে নবীউল্লাহ নবী, ঢাকা-১৪ এ বি সিদ্দিক সাজু, রাজশাহী-৫ আসনে নাদিম মোস্তফাকে চূড়ান্ত মনোনয়নের চিঠি দেয়া হয়। চিঠি নিয়েই তারা দ্রুত রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের দিকে রওনা হন।

এদিকে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত গুলশানের কার্যালয়ে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী মো. আবদুল্লাহ এবং কুমিল্লা-৪ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী মঞ্জুরুল আহসান মুন্সির কর্মী-সমর্থকরা বিক্ষোভ চালিয়ে যায়। এই দুটি আসনের মধ্যে কুমিল্লা-৪ এ জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতনকে ধানের শীষ প্রতীক দেয়া হয়েছে। মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে প্রার্থী করা হয়েছে দলের ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনকে।

দেশরিভিউ/ডেস্ক