রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর বিষয়ে জাতিসংঘে কথা বলবে বাংলাদেশ

92

।দেশরিভিউ।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের এবারের অধিবেশনে রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় বিশ্ব জনমত গড়ে তুলতে চায় ঢাকা।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৪তম অধিবেশনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে ১৭ই সেপ্টেম্বর।  তবে মূল আকর্ষণ উচ্চ পর্যায়ের বিতর্ক শুরু হতে আরও দিন দুই বাকি। যদিও অধিবেশনে যোগ দিতে এরই মধ্যে নিউইয়র্কে পা রাখতে শুরু করেছেন সদস্য রাষ্ট্রগুলোর প্রতিনিধিরা।

দেশের ‘ইমেজ’ বাড়ানোর ওপর জোর দিচ্ছে বাংলাদেশ। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে যোগ দিতে নিউইয়র্ক পৌঁছে সংবাদ মাধ্যমকে এসব কথা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন। রোহিঙ্গা ইস্যুতে চীনের উদ্যোগেও আস্থার কথা জানান মন্ত্রী।

অধিবেশনে যোগ দিতে আসা বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন, শনিবার সন্ধ্যায় সংবাদ মাধ্যমকে ঢাকার পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, “১৯৩টি দেশের মধ্যে ৪টি বড় অনুষ্ঠানের ২টিতেই আমরা কো-চেয়ার। বাংলাদেশ চায়না ও মায়ানমার কে নিয়ে একটি বৈঠকে বসবে এবং আমাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর জন্য কোন পদ্ধতি বের করা”।

তিনি জানান, এবারের আসরে স্বাস্থ্যসেবা কিংবা স্যানিটেশন এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় বাংলাদেশের অগ্রগতি বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরার সুযোগ পাচ্ছে বাংলাদেশ। এ বিষয়ে তিনি বলেন, “ইউনিভার্সাল হেলথ কেয়ারে আমরা একটা মডেল। স্যানিটেশনের উপর সবচেয়ে ভালো কাজ করা ৫টি দেশের মধ্যে আমরা অন্যতম। গত ১০ বছরে আমাদের অর্থনৈতিক অগ্রগতিও সবচেয়ে বেশী”।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘে নিজেদের প্রস্তাবনা তুলে ধরা ছাড়াও জনমত গড়ে তুলতে চায় বাংলাদেশ। একই সাথে রোহিঙ্গা নিয়ে চীন সরকারের ভুমিকায় আস্থা রাখার কথা বলেছেন তিনি। মোমেন বলেন, “মায়ানমার তো সহজে কোন সাড়া দেয় না তবে এইবার তারা কথা বলছে”।

আগামী ২৭শে সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে ভাষণ দেওয়ার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার।

SHARE