রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন, মিয়ানমারের মিথ্যাচার

83
রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়ে বিদেশি কূটনীতিকদের ব্রিফিং শেষে কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
ঢাকা: রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিয়ানমার মিথ্যাচার করছে বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। এসময় মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে এক পায়ে খাড়া।

 

রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় ঢাকায় অবস্থান করা সবগুলো দেশের রাষ্ট্রদূত, হাইকমিশনার ও মিশন প্রধানদের রোহিঙ্গা ইস্যুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বুধবার (১২ জুন) ব্রিফ করেন। ব্রিফিংয়ে তিনি এমন মন্তব্য করেছেন বলে একাধিক কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে।

 

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন দ্রুত শুরু না হলে নিরাপত্তা ঝুঁকিতে পড়বে বিশ্ব, বাড়তবে সন্ত্রাসী তৎপরতাও’- এমন মন্তব্য করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের মিথ্যাচার বিষয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

 

ব্রিফিং শেষে ড. মোমেন বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিথ্যাচার করছে মিয়ানমার। জাপানের ফিউচার এশিয়া সম্মেলনে মিয়ানমারের একজন মন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশের কারণেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে দেরি হচ্ছে। এটা ডাহা মিথ্যা কথা।

 

তিনি বলেন, মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের নিয়ে দেওয়া প্রতিশ্রুতি রাখছে না। রাখাইনে ৮০০টি গ্রামের মধ্যে তারা মাত্র দুইটি গ্রামের পরিস্থিতি ভালো দেখিয়ে বলছে, সেখানে কোনো সমস্যা নেই।

এক প্রশ্নের উত্তরে ড. মোমেন বলেন, আমরা বিদেশি কূটনীতিকদের রোহিঙ্গা পরিস্থিতি ব্যাখা করেছি। এ বিষয়ে তারা কি করবে, সেটা তাদের সিদ্ধান্ত। তবে আমরা তাদের সহায়তা চেয়েছি।

 

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রিফিংয়ে বিদেশি কূটনীতিকদের বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিয়ানমার ঢালাওভাবে মিথ্যাচার ও অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি মিয়ানমারের ইউনিয়ন মিনিস্টার অফিসের স্টেট কাউন্সিলর কে টিন্ট সো’র দেওয়া ব্রিফিংয়ে মিথ্যাচার করা হয়। টোকিও’তেও মিয়ানমার এ বিষয়ে মিথ্যা তথ্য দিয়েছে। এছাড়া গত ১০ জুন রাশিয়ার মন্ত্রী সঙ্গে বৈঠকেও মিয়ানমারের ইউনিয়ন মিনিস্টার অফিসের স্টেট কাউন্সিলর মিথ্যা তথ্য দেয়।

 

রোহিঙ্গা সংকট শুরুর পর থেকেই বিভিন্ন সময় সরকারের পক্ষ থেকে বিদেশি কূটনীতিকদের কাছে পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় এই ব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়। এতে ঢাকার যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, চীন, ভারত, সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেন, ব্রাজিল, ফিলিস্তিন প্রভৃতি মিশনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি অংশ নেন।

 

SHARE