লন্ডনে পড়াশোনা শেষে দুই বছর কাজের সুযোগ পাবে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা

100


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
উচ্চশিক্ষার জন্য একসময় লন্ডনে পড়তে যাওয়াই ছিল বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের প্রথম পছন্দ। কারণ, সেখানে বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য পড়াশোনা শেষে দুই বছর কাজের সুযোগ ছিল। ২০১২ সালে অভিবাসন কমানোর কৌশল হিসেবে সেটি বন্ধ করে দিয়েছিলো যুক্তরাজ্য সরকার। এই সিদ্ধান্তের কারণে বাংলাদেশ ছাড়াও দক্ষিণ এশিয়া থেকে ব্রিটেনে পড়তে যাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা ব্যাপকভাবে কমে যায়।

দীর্ঘ সাত বছর পর যুক্তরাজ্য তাদের সেই অবস্থান থেকে সরে এসেছে। বিদেশি শিক্ষার্থী আকর্ষণে অভিবাসন নিয়ম শিথিল করেছে দেশটি। নতুন নিয়ম অনুযায়ী পড়াশোনা শেষে দুই বছর যুক্তরাজ্যে অবস্থান করতে পারবেন বিদেশি শিক্ষার্থীরা। এ সময় তাঁদের কর্মসংস্থানের ওপর বিধিনিষেধ থাকবে না। অর্থাৎ যেকোনো ধরনের চাকরি বা ব্যবসায় যুক্ত হতে পারবেন তাঁরা।

গত ১১ সেপ্টেম্বর দেশটির অভিবাসন বিভাগ এই নতুন নিয়ম ঘোষণা করে। স্নাতক বা স্নাতকোত্তর কোর্স সম্পন্নকারী বিদেশি শিক্ষার্থীরা এই সুযোগ পাবেন। ২০২০ সালে যাঁরা পড়তে যাবেন, তাঁরা এই সুযোগটি পাবেন। দুই বছরের কাজের সুযোগ নিতে হলে অভিবাসনের নিয়মকানুন যথাযথভাবে মেনে চলে, এমন প্রতিষ্ঠানগুলোতে পড়াশোনা করতে হবে।

অভিবাসন নিয়ম বদলের ঘোষণা দিয়ে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, ‘এই পরিবর্তনের ফলে বিদেশি শিক্ষার্থীরা নিজেদের সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর সুযোগ পাবেন এবং যুক্তরাজ্যে নিজেদের কর্মজীবন শুরু করতে পারবেন।’ আর অর্থমন্ত্রী (চ্যান্সেলর) সাজিদ জাভিদ বলেন, ‘বহু আগেই সরকারের এই সুযোগ ফিরিয়ে আনা উচিত ছিল।’

যুক্তরাজ্যে বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য পড়ালেখার পর চাকরির সুযোগটি ‘পোস্ট স্টাডি ওয়ার্ক পারমিট’ (পিএসডব্লিউ) নামে পরিচিত। ২০১২ সালে তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী থেরেসা মে অভিবাসন কমানোর কৌশল হিসেবে সেটি বন্ধ করে দেন। এর ফলে এখন পড়াশোনা শেষ করার চার মাসের মধ্যে বিদেশি শিক্ষার্থীদের যুক্তরাজ্য ছাড়তে হয়।

SHARE