লন্ডন থেকে গ্রাম-গন্জ, সর্বত্র বিএনপি’র মনোনয়ন বানিজ্য।

313

লন্ডন থেকে গ্রাম-গন্জ, সর্বত্র বিএনপি’র মনোনয়ন বানিজ্য।

দেশরিভিউ-মুস্তাফিজুর রহমান-

মনোনয়ন বাণিজ্যের শীর্ষে  এবারো আছে বিএনপি। দুর্নীতির দায়ে বারবার প্রশ্নবিদ্ধ হওয়া দলটির শীর্ষস্থানীয় নেতা থেকে শুরু করে গ্রামে গন্জে সংক্রমিত হয়ে পড়েছে মনোনয়ন বানিজ্য।মোটামুটি এ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে দলের অভ্যন্তরে। এবারো যথারীতি অভিযোগ খোদ তারেক জিয়ার বিরুদ্ধে। মজার ব্যাপার হলো লন্ডনে বসে দূর্নীতির দায়ে পলাতক এই ব্যক্তি বাংলাদেশের রাজনীতিতে জেলা উপজেলা এমনকি ইউনিয়ন পর্যন্ত ছড়িয়ে দিয়েছে নিজস্ব সিন্ডিকেট বাহিনী। নয়া পল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় 

কার্যালয়ে বসে তারেক রহমানের এই পুরো সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রন করছে বিএনপি’র সহ দপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমদ। এ নিয়ে খোদ অভিযোগ তুলেছে বিএনপি’র মনোনয়ন না পাওয়া নেতা কর্মীদের অংশটি। গত কয়েকদিনে নিজেদের সোস্যাল মিডিয়ার সিক্রেট গ্রুপগুলোতে এ বিষয়ে তথ্যসম্বলিত বিভিন্ন লেখালিখিও চলছে। অনুসন্ধানে জানা যায়,  

দলের সিনিয়র নেতাদের ৩৮টি আসন বাদ দিয়ে সব আসনেই বাণিজ্য হয়েছে। সর্বনিম্ন ১০ কোটি টাকা থেকে প্রার্থী ভেদে ১২০ কোটি টাকায় মনোনয়ন বিক্রি হয়েছে। আর এই পুরো বাণিজ্য তদারকি করেছেন লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া।

জানা যায়, বিএনপিপন্থী ব্যবসায়ীদের ব্যাংকিং চ্যানেল ও হুন্ডির মাধ্যমে ইতিমধ্যে তারেক জিয়ার কাছে বিশাল অঙ্কের টাকা লন্ডনে পাচার করা হয়েছে।   এই কাজে সহযোগিতা করছে বিএনপি’র ব্যবসায়ী নেতা আব্দুল আওয়াল মিন্টু। আর বাকী টাকা উত্তোলনের দায়িত্ব পালন করছে বিএনপির সহ দপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমদ। উল্লেখ্য বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা বিশিষ্ট শিল্পোদ্যক্তা আবদুল আউয়াল মিন্টুর একান্ত আস্থাভাজন হিসাবে কেন্দ্রীয় কমিটিতে তারেক রহমানের আশির্বাদে স্থান করে নিয়েছিলেন বেলাল আহমদ। দুজনের বাড়ি ফেনী জেলায়। অনুসন্ধানে জানা গেছে দেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলায় নমিনেশনের বাকী টাকা উত্তোলনের কাজ করছে বিপ্লব, সবুজ, খায়রুল সহ আরো বেশ কয়েকজন। যারা সবাই কেন্দ্রীয় কমিটির সহ দপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমদের লোক হিসাবে পরিচিত। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে ফেনী জেলা বিএনপির বর্ষীয়ান নেতা খাইরুজ্জামান বলেছেন মিষ্টি খাওয়ার নাম করে বেলাল আহমদ গংরা প্রতি প্রার্থী থেকে ৫ লাখ থেকে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। কেন টাকা দিলেন এমন প্রশ্নে এই নেতা বলেন, তারেক রহমানের লোক হিসাবে তারা পরিচিত।

বরিশাল অঞ্চলের বহিষ্কৃত এক নেতা তারেক জিয়ার চাহিদা অনুযায়ী অর্থ দিতে গিয়ে তাঁর মগবাজারের একটি বাড়িও বিক্রি করেছেন। জানা গেছে, সর্বোচ্চ ১২০ কোটি টাকায় তারেক জিয়া চট্টগ্রামের একটি আসন এক অজ্ঞাত পরিচয় ব্যবসায়ীর কাছে বিক্রি করেছেন।

বিএনপির নেতারা বলেছেন, মনোনয়ন দিয়ে ৮০০ থেকে এক হাজার কোটি টাকা আয় করেছেন তারেক জিয়া। বিএনপির অন্য দু-একজন নেতাও মনোনয়ন বাণিজ্যে জড়িয়ে গেছেন। মনোনয়ন বাণিজ্যে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ এবং নজরুল ইসলাম খানের নামও এসেছে। এদিকে বিএনপির মনোনয়ন বানিজ্য এখন টপ সিক্রেট একটি বিষয় উল্লেখ করে ঢাকা মহানগরের আলোচিত এক নেতা বলেন, তারেক জিয়ার বিএনপি’তে প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের নীতি নৈতিকতা ও আদর্শের ঠাঁই নেই।

SHARE