লাখো অশ্রুসিক্ত ভক্ত-অনুরাগীর শ্রীদেবীর ভালোবাসায় শেষযাত্রা

248

বিদায় দেওয়া হচ্ছে তাঁকে। উপস্থিত আছেন তাঁর হাজারো-লাখো ভক্ত-অনুরাগী, পরিবার, বন্ধু, আত্মীয়-পরিজন আর অনেক তারকা, বিদায় দেবেন তাঁকে। অশ্রুসিক্ত শেষ বিদায়।

রুপালি পর্দার আলোচিত মুখ শ্রীদেবীকে দেওয়া হবে এই অন্তিম বিদায়।গতকাল রাতে দেশে ফেরে শ্রীদেবীর মরদেহ। আজ শেষ বিদায়। লোখান্ডওয়ালার সেলিব্রেশন স্পোর্টস ক্লাবে রাখা হয়েছে তাঁর মরদেহ। তেরঙায় ঢাকা। বেলা আড়াইটা থেকে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে তাঁর মরদেহ, দেওয়া হয়েছে শেষ দেখার সুযোগ।

একে একে এগিয়ে আসছেন সবাই। হাতে পোস্টার, ফুল, চোখে জল। এ এক অন্যরকম দৃশ্য, এ এক বেদনাদায়ক বিদায়। যে টেবিলের ওপর তাঁর মরদেহটি রাখা হয়েছে সেটি রজনীগন্ধার মালা দিয়ে সাজানো। সাদা দিয়ে ফেরত যাবেন দুনিয়া থেকে- এমনই না-কি প্রত্যাশা ছিল তাঁর, তাই সাদা দিয়েই সাজানো হয়েছে তাঁর আশপাশ। শামিয়ানার নিচে শুয়ে আছেন তিনি। জড়ানো আছেন সাদা, মেরুন আর সোনালি রেশমিতে।

এর আগে, মুম্বাই পুলিশের পক্ষ থেকে পদ্মশ্রীপ্রাপ্ত এই মহানায়িকাকে জাতীয় সম্মাননা দেওয়া হয়। পুলিশের চার সদস্য তাঁর দেহ জাতীয় পতাকায় ঢেকে দেয়।

বুধবার ভোর থেকেই মুম্বাইয়ের লোখন্ডওয়ালার রাস্তায় ভিড় জমতে শুরু করে। বেলা যত গড়িয়েছে ভিড় চলতে শুরু করেছে লোখন্ডওয়ালার সেলিব্রেশন স্পোর্টস ক্লাবের দিকে। দুপুর পর‌্যন্ত শ্রীদেবীর মৃতদেহ সেখানেই শায়িত ছিল। প্রয়াত নায়িকাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে একে একে এসেছেন অসংখ্য বলিউডি তারকা। আর তাদের ছাপিয়ে যায় শ্রী-র ভক্তরা।

দুপুর ২টা ২৬ মিনিটে গানস্যালুটের মাধ্যমে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শুরু হল শেষযাত্রা। শ্রীদেবীর অগণিত ভক্তদের সঙ্গে শেষযাত্রায় হাজির হন কাপুর পরিবারের সমস্ত সদস্যই। তেরঙ্গা পতাকায় মুড়ে ফেলা হল কফিন।

এরপর ফুলে ঢাকা ট্রাকে কফিনে করে ভিলে পার্ল শ্মশানের উদ্দেশে রওনা দিল শ্রীদেবীর শবযাত্রা। সেখানে সাড়ে ৩টার দিকে শেষকৃত্য হওয়ার কথা।

শ্রীদেবীর শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী সব কিছুই সাজানো হয়েছে তার প্রিয় রং সাদায়। সাদা ফুল দিয়ে সাজানোর পাশাপাশি শ্রীদেবী-র বাংলো ‘ভাগ্য’ও মুড়ে ফেলা হয়েছে সাদা কাপড়ে। শেষকৃত্যেও সকলকে অনুরোধ করা হয়েছে সাদা পোশাকে আসতে।

দেশরিভিউ/তারেক

SHARE