লামা পৌরসভার নির্বাচনী প্রচারণায় চলছে ভোট উৎসব

37

।। স্বপন কর্মকার , লামা বান্দরবান প্রতিনিধি ।।

আসন্ন ১৬ জানুয়ারি বান্দরবান লামা পৌরসভার নির্বাচন। দুটি বড় দল ভোটে অংশ নেওয়ায় বেশ জমে উঠেছে প্রচারণা। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পৌরশহরের রাজপথসহ অলিগলি ছেয়ে গেছে মেয়র পদপ্রার্থী ও কাউন্সিলরদের হরেক রকমের পোস্টারে। ভোটের পোস্টার হওয়াতে সবগুলোই সাদা-কালো রঙের। তাই ব্যস্ততম এই শহরের সৌন্দর্য অনেকটা বেড়ে গেছে।
মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) সকালে সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, পুরোদমে চলছে নির্বাচনী প্রচারণা। যতদূর চোখ যায় ততদূরই পোস্টার ও ব্যানার দেখা যায়। নৌকা ও ধানের শীষের মেয়রপ্রার্থী এবং দুই প্রধান দলের সমর্থিত কাউন্সিরর প্রার্থীরা নির্বাচনে প্রচারে পৌরশহরের বিদ্যুতের খুঁটি, বাসা-বাড়ির দেওয়ালসহ কোনও এলাকাই বাদ যায়নি পোস্টার ও ব্যানারে। কোথাও যেন তিল ধারণের ঠাঁই নেই।

১,২,৩,৪,৫,৬,৭,৮,৯নং ওয়াডের এলাকায় নৌকা ও ধানের শীষের মেয়র প্রার্থী, কাউন্সিলদের পোস্টারে ঢাকা পুরো এলাকা। বিএনপি পৌর শহরের কিছু জায়গায় বিএনপির মেয়র পদপ্রার্থী মোহাম্মদ শহীনের পোস্টার দেখা গেলেও পুরো নগরীজুড়ে দেখা গেছে নৌকার মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ জহিরুল ইসলামের পোস্টার।

পাশাপাশি রয়েছে কাউন্সিলদের পোস্টারও।বড় দুই দলের পোস্টারের পাশাপাশি জাতীয় পার্টি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মো: এ টি এম শহিদুল্লাহ নাঙ্গল প্রতীকের পোস্টারও দেখা গেছে। প্রতিদিনই মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থীরা গণসংযোগ করছেন। নিজ নিজ সীমানা প্রাচীরের ভেতরেই অব্যাহত রেখেছেন নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা। সকাল থেকেই কাউন্সিলর প্রার্থীরা নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকার ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন। দিচ্ছেন বিভিন্ন প্রতিশ্রুতিও। লিপলেট নিয়ে নেতাকর্মীরা যাচ্ছেন ভোটারদের দুয়াড়ে দুয়ারে।

সমর্থক ও ভোটাররা জানান, বিগত ৫ বছর ও করোনাকালীন সময়ে সাধারণ মানুষের পাশে ছিলেন জহিরুল ইসলাম। দিয়েছেন বিভিন্ন সহায়তা। তাই তার জনপ্রিয়তা সবচেয়ে তুঙ্গে।

তবে লামা পৌর এলাকা বরাবরই বিএনপির দূর্গ
হিসাবে পরিচিত। সেই বিবেচনায় ধানের শীষের প্রতীকের প্রার্থী মোঃ শাহীনকে ছোট করে দেখার সুযোগ নেই বলে বলছেন সুশীল সমাজ।

অন্যদিকে নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত সাবেক মেয়রকে মনোনয়ন না দিয়ে নবীন একজনকে সুযোগ দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে বিএনপি দুই গ্রুপে বিভক্ত লামা বিএনপি। জড়িয়ে পড়েছে পাল্টা অভিযোগ ও মামলা মোকাদ্দমায়।

তৃণমূলের নেতাকর্মীরা জানান, নির্বাচনকালীন সময়ে দলের এমন অবস্থা দেখে হতাশ সাধারণ ভোটাররা। জাতীয় পার্টি সমর্থিত প্রার্থী এ.টি.এম শহিদুল ইসলামও বয়সে নবীন। ভোট পেতে গণসংযোগ অব্যাহত রেখে পুরোনোরা অতীতে এলাকায় যা উন্নয়ন করেছেন তার ফিরিস্তি তুলে ধরছেন ভোটের মাঝে। সঙ্গে নির্বাচনী ওয়াদা তো রয়েছেই। সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্ধি বেশি হওয়ায় ও তিন ওয়ার্ডে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা চালাতে বেগ পেতে হচ্ছে সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরদের।

১নং ওয়ার্ডের প্রার্থীরা হলেন সাকেরা বেগম (আনারস), রোকেয়া খানম কেয়া (চশমা) ও শ্যামলী বিশ্বাস (জবা ফুল)। ২নং ওয়ার্ডের প্রার্থীরা হলেন জোসনা বেগম (আনারস) ও মরিয়ম বেগম (জবা ফুল)। ৩নং ওয়ার্ডের প্রার্থীরা হলেন মাজেদা বেগম (চশমা), জাহানারা বেগম (আনারস), রোজিনা আক্তার (অটোরিক্সা) ও মোছাম্মৎসুমনা আক্তার (জবা ফুল)।

জানা যায়, ২৮.৪৯ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের পৌরসভায় ভোটার সংখ্যা ১৩ হাজার ৩৮৯জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭ হাজার ৩০০ জন ও মহিলা ভোটার ৬ হাজার ৩৮৬ জন। আসন্ন নির্বাচনে ৯টি কেন্দ্রে ৩৯টি বুথে ১৬ জানুয়ারি ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ১৪ জানুয়ারি রাত ১২টা থেকে প্রচার-প্রচারণা বন্ধ হয়ে যাবে।

পৌর নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন অফিসার মো. রেজাউল করিম বলেন, ভোট গ্রহণের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।আশা করছি শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন।

তারমধ্যে ২নং ওয়ার্ড এবং ৪নং ওয়ার্ডে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মোহাম্মদ হোসেন বাদশা ও মো.রফিক নির্বাচিত হয়েছেন দুই কাউন্সিলর প্রার্থী।

SHARE