শতাধিক মাদ্রাসা জয়ী সাহসী সেই নারীর সাংসদ হওয়ার ইচ্ছা

706

দেশরিভিউ:
খানিকটা ইত:স্তত ভঙ্গিমায় সুর করে ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’ গেয়ে চলেছে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা। কয়েক লাইন গাওয়ার পর আড়ষ্টতা ভেঙে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হতে থাকে সবাই। গানে ফিরে আসে প্রাণ। এবার অনেকটাই স্বত:স্ফূর্ত পুরা অনুষ্ঠানটি। বেশ আনন্দ নিয়েই গাইছে সবাই জাতীয় সংগীত। জাতীয় সঙ্গীত শেষ হতেই অতপর নারী কন্ঠে ‘জয় বাংলা’ ধ্বনি। সাথে সাথেই মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের সমস্বরে কন্ঠে ধ্বনি ‘জয় বাংলা’

সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রাম বিভাগের সমন্বয়ক এডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরী এবার মাইকে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের কাছে জানতে চাইলেন এই গান তারা আগে গেয়েছে কিনা? উত্তরে জানা গেলো এই জাতীয় সঙ্গীত কখনো পাঠ করা হয়নি তাদের, এমনকি অনেকে শুনেনি কখনো। রবিবার এই দৃশ্য দেখা যায় চট্টগ্রামের আল-হুমায়রা (রা) মহিলা মাদ্রাসায়। গত তিনবছর ধরে শুধু চট্টগ্রাম শহরে নয়, গ্রামগঞ্জের মাদ্রাসাগুলোতেও ছুটে চলেছেন আলোকিত সাহসী এই নারী। সুন্নিয়তে বিশ্বাসী কিংবা কওমী মাদ্রাসা – সবখানে সব আকিদ্বায় বিশ্বাসী মাদ্রাসাতে ছুটে যাচ্ছেন সাহসী এই নারী।

অদম্য সাহসী এই নারীর ধারাবাহিক প্রচেষ্টাতে বদলে গেছে চট্টগ্রামের মাদ্রাসার চিত্র। দূর হয়েছে কুসংস্কার, ভ্রান্ত ধারনা এবং পাল্টে যাচ্ছে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের পুরান মন-মানসিকতা। এখন চট্টগ্রামের মাদ্রাসাগুলোর এসেম্বলীতে নিয়মিত পাঠ করানো হয় জাতীয় সংগীত। বলা যায় জাতীয় সংগীত নিয়ে কুসংস্কারের বেড়াজালে থাকা মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের দৃষ্টি উন্মোচিত করে দিয়েছেন দুঃসাহসিক এই নারী এডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরী। যিনি ক্রমাগত স্রোতের বিপরীতে ছুটে চলেছেন দেশ গড়ার অদম্য শক্তি সাহস ও স্বপ্ন নিয়ে।

এ বিষয়ে এডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জাতীয় সংগীতের বিষয়ে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের জানার সুযোগ ছিলো না। কারন অধিকাংশ মাদ্রাসার শিক্ষকদের কাছেই এই সংঙ্গীত নিয়ে ভ্রান্ত ধারনা ছিলো। এমনকি জাতীয় সঙ্গীতের রচয়িতা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হওয়ায় অঘোষিতভাবেই নিষিদ্ধ ছিলো এই সংগীত। কিন্তু মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরাই এবার গাইছে জাতীয় সংগীত। শুধুই কি জাতীয় সংঙ্গীত? তারা স্লোগান দিচ্ছে ‘জয় বাংলা’। এভাবেই নিজের কথা গুলো বলছিলেন জিনাত সোহানা চৌধুরী।

কিভাবে এতো সাহসী কাজে এগিয়ে আসলেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার জন্য সোনার মানুষ প্রয়োজন। আর সোনার মানুষ হতে হলে আমাদের তরুন শিশু কিশোরদের মাঝে দেশপ্রেমের শেকড় রোপন করতে হবে। মূলত এই চিন্তা থেকেই সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমন্বয়কের দায়িত্ব পাওয়ার আগে ও পরে আমি বিরামহীন এই কাজটি করে চলেছি।

২০১৮ সালের ২৭ অক্টোবর বিভিন্ন মাদ্রাসায় এই সাহসী কাজের স্বীকৃতিস্বরুপ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয়ের হাত থেকে সম্মাননা স্মারক লাভ করেন তিনি

জানা যায়, ২০১৮ সালের ২৭ অক্টোবর বিভিন্ন মাদ্রাসায় এই সাহসী কাজের স্বীকৃতিস্বরুপ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয়ের হাত থেকে সম্মাননা স্মারক লাভ করেন তিনি। মূলত ‘জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাস বিরোধী আলেম ওলামা শিক্ষার্থী সমাবেশ’ প্রোগ্রামের আওতায় চট্টগ্রামের প্রতিটি মাদ্রাসায় জঙ্গিবাদ বিরোধী প্রচার প্রচারণার মাধ্যমে বিপুল সংখ্যক ছাত্র ছাত্রীদেরকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধকরণ ও মূল ধারায় সম্পৃক্ত করার কার্যক্রমটি দীর্ঘদিন ধরেই চলমান এই অদম্য নারীর উদ্যোগে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে সক্রিয় রাজনীতিতেও সুনাম রয়েছে এই নারী আইনজীবির। দায়িত্ব পালন করছেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক পদেও। চট্টগ্রাম জেলা আদালতে অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলায় জন্ম নেয়া জিনাত সোহানা চৌধুরী পালন করছেন চট্টগ্রাম কারাগারের বেসরকারী কারা পরিদর্শকের দায়িত্বও। জাতীয় নির্বাচনের প্রাক্কালে চট্রগ্রামের শতাধিক স্থানে নৌকার প্রার্থীদের সমর্থনে ডিজিটাল পদ্ধতিতে করেছেন তথ্য চিত্র প্রদর্শনী। বিএনপি জামায়াতের বর্বরতার চিত্র, সংখ্যালঘু নির্যাতনের চিত্র এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার নিরলস প্রচেষ্টায় এগিয়ে যাওয়া দিন বদলের উন্নয়নের চিত্র চট্টগ্রামের মানুষের কাছে তুলে ধরে জনমত তৈরী করেছেন। ভূমিকা রেখেছেন আওয়ামী লীগের পক্ষে ভোট টানতে।

ইতিমধ্যে চট্টগ্রামের জনসাধারনের চোখে অসাধারন একজন সাহসী নারী হিসাবে খ্যাতি পাওয়া এই নারী নেত্রী জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে নিজের জন্য দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন। নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করার শপথ নিয়ে সমগ্র দেশের নারী সমাজকে নিজের মতো সাহসী ও উদ্যোমী করার স্বপ্ন দেখছেন জানিয়ে এডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছেন বঙ্গবন্ধু। বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে সম্মানিত করছেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। এই সুনাম ও সম্মান ধরে রেখে নেত্রীর হাতকে শক্তিশালী করতেই অতীতের মতো ভবিষ্যতেও কাজ করার স্বপ্ন দেখছি। এসময় তিনি বলেন, দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছি কারন আমি কাজে বিশ্বাসী, লবিং এ বিশ্বাস করিনা। জননেত্রী শেখ হাসিনা সারা বাংলার খবর রাখেন জানিয়ে তিনি বলেন, নেত্রী কাজ করার মানুষগুলোকে সুযোগ করে দিয়েছেন বলেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমি নেত্রীর উপর আস্থাশীল, আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন।

SHARE