শাহরিয়ার কবির কবে বলেছেন ‘আল্লাহকে বিশ্বাস করে না?’

32

অপরের দিকে আংগুল তুলে নিজের ইমান নষ্ট করছেন না তো? শাহরিয়ার কবির ও গোলাম মাওলা রনী নাস্তিক?

সৈয়দ গোলাম কিবরিয়া আজহারী

এতটা ভয়ানক অসহনশীলতার জমানাতে আমরা এসে পৌঁছেছি যা ভাষায় বর্ণনা করার মত নয়৷ তুচ্ছ কারণে আমরা একে অপরকে গালি দিচ্ছি, কাফির-নাস্তিক বলে দিচ্ছি। একটা মানুষ নামাজ পড়ে, সুস্পষ্টভাবে আল্লাহর অস্তিত্বে বিশ্বাস করে, আমরা তাকে ভন্ড, নাস্তিক কিংবা কাফিরের ট্যাগ দিয়ে দিচ্ছি৷ কারণ সে আমার মত করে চিন্তা করে না, আমি যেই ধারার ইসলাম পছন্দ করি সে হয়ত সেই ধারাটাকে পছন্দ না করে অন্য ধারার ইসলাম পছন্দ করে৷ তার চাইতেও তুচ্ছ কারণ, আমি যে হুজুরকে পছন্দ করি সে ব্যক্তি হয়ত সেই হুজুরকে পছন্দ করে না। ব্যাস! এ কাফির, এ নাস্তিক, এ মুনাফিক! এ ভন্ড! কী ভয়ানক!

নিজের ইমান ও আমলকে একটাবার মিটার দিয়ে মেপেছি আমি? রাত গভীরে একটাবার চিন্তা করেছি আমরা কী করছি সারাদিন? কী বলছি, কী আচরণ করছি? কয়টা মানুষের মনে কষ্ট দিয়েছি সারাদিনে? কয়টা কবিরা গোনাহ করলাম?

নাহ! সারাদিন ব্যস্ত অপরকে নিয়ে। আর আমার আল্লাহ বলেন,

‎يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا عَلَيْكُمْ أَنفُسَكُمْ ۖ لَا يَضُرُّكُم مَّن ضَلَّ إِذَا اهْتَدَيْتُمْ ۚ إِلَى اللَّهِ مَرْجِعُكُمْ جَمِيعًا فَيُنَبِّئُكُم بِمَا كُنتُمْ تَعْمَلُونَ
হে মুমিনগণ, তোমরা নিজেদের চিন্তা কর। তোমরা যখন সৎপথে রয়েছ, তখন কেউ পথভ্রান্ত হলে তাতে তোমাদের কোন ক্ষতি নাই। তোমাদের সবাইকে আল্লাহর কাছে ফিরে যেতে হবে। তখন তিনি তোমাদেরকে বলে দেবেন, যা কিছু তোমরা করতে (৫ঃ১০৫)

আবার এই মানুষগুলোর অনেকেই নিজেদেরকে সুফিগণের অনুসারীও দাবি করেন। ভাই! আপনারা সুফিদের অনুসারী হলে সালাফি -আহলে হাদিস ভাইরা কী দোষ করলেন? আপনাদের মত অতি শুদ্ধাচারী উগ্রবাদী মুসলমানদের চাইতে একটু একটু গোনাহগার মুসলমান ভাল৷ অহংকার, দম্ভ, উগ্রতা, একরুখামী অন্তত তার মাঝে নাই৷ সে নিজেকে ইসলামের সোল এজেন্ট অন্তত মনে করে না৷ গোনাহগার মনে করে। অনুশোচনা অনুতাপ হয়ত হয় তার অন্তরে। আর আল্লাহ যে অনুতপ্ত ও অনুশোচনাকারীকে ভালোবাসেন। আর আপনারা নিজেদেরকে হকের এত বড় সোল এজেন্ট মনে করেন যে, আপনাদের আচরণে মনে হয় অনুশোচনা অনুতাপ আপনাদের জন্য না৷

কে আস্তিক, কে নাস্তিক! কে অন্তরে কুফরি লুকিয়ে ইমান প্রকাশ করে মুনাফিকি করে লোক দেখানোর জন্য তা আপনি কিভাবে জানেন?

আপনার কাছে ওহী আসে? কারো অন্তরের খবর বলা কত বড় কুফরি জানেন? প্রিয় নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর অতি আদরের সাহাবি হজরত উসামা ইবনে জায়েদ রা. কে কত কঠিন ভাষায় কথা বলেছেন, যুদ্ধের ময়দানে এক কাফির তাঁর তলোয়ারের নিচে চলে আসলে, প্রাণের ভয়ে কালিমাহ পড়েছিল হয়ত, তবুও তাকে হত্যা করেছিলেন উসামাহ ইবনে জায়েদ রা.। মদিনায় ফিরে আসলে প্রিয় নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জিজ্ঞেস করলেন, হে ওসামা! তুমি কি তার অন্তর চিড়ে দেখেছ সে প্রাণের ভয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছে কীনা! কাল হাশরের দিনে সে যখন কালিমাহ নিয়ে ওঠবে তুমি কি জবাব দেবে?

কুরআন মাজিদে আয়াত এসেছে,

‎يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا ضَرَبْتُمْ فِي سَبِيلِ اللَّهِ فَتَبَيَّنُوا وَلَا تَقُولُوا لِمَنْ أَلْقَىٰ إِلَيْكُمُ السَّلَامَ لَسْتَ مُؤْمِنًا تَبْتَغُونَ عَرَضَ الْحَيَاةِ الدُّنْيَا فَعِندَ اللَّهِ مَغَانِمُ كَثِيرَةٌ ۚ كَذَٰلِكَ كُنتُم مِّن قَبْلُ فَمَنَّ اللَّهُ عَلَيْكُمْ فَتَبَيَّنُوا ۚ إِنَّ اللَّهَ كَانَ بِمَا تَعْمَلُونَ خَبِيرًا
হে ঈমানদারগণ! তোমরা যখন আল্লাহর পথে সফর কর, তখন যাচাই করে নিও এবং যে, তোমাদেরকে সালাম করে তাকে বলো না যে, তুমি মুসলমান নও। তোমরা পার্থিব জীবনের সম্পদ অন্বেষণ কর, বস্তুতঃ আল্লাহর কাছে অনেক সম্পদ রয়েছে। তোমরা ও তো এমনি ছিলে ইতিপূর্বে; অতঃপর আল্লাহ তোমাদের প্রতি অনুগ্রহ করেছেন। অতএব, এখন অনুসন্ধান করে নিও। নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের কাজ কর্মের খবর রাখেন। (৪ঃ৯৪)

প্রিয় নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এতবার জিজ্ঞেস করেছেন, হে ওসামা! সে লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ পড়ার পরও কি তুমি তাকে হত্যা করেছ? হে ওসামা! সে লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ পড়ার পরও কি তুমি তাকে হত্যা করেছ? হে ওসামা! সে লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ পড়ার পরও কি তুমি তাকে হত্যা করেছ?

ওসামা ইবনে জায়েদ রা. বলেন, আমার মনে হচ্ছিল, আহ! ওইদিনের আগে আমি যদি ইসলাম গ্রহণ না করতাম তবে কতই না উত্তম হতো!

কালিমাহ শাহাদাতের ক্ষমতা আমরা আসলে ভুলে গেছি। সেই ঘটনার প্রেক্ষিতে কুরআন মাজিদের উপরোক্ত আয়াত নাজিল হল, যে তোমাদেরকে সালাম দেয় তাকে (সন্দেহবশতঃ) অমুসলিম বল না।

হাদিসে বিতাকা কি আমরা পড়েছি?

কালিমাহ তায়্যিবাহ এক পাল্লায় রাখা হবে কাল হাশরের দিনে, আর অপর পাল্লায় বান্দার সারা জীবনের গোনাহ। ভারী হবে কালিমাহ তায়্যিবাহ লিখিত সেই চিরকুট বা বিতাকাহ। ওই লোক জান্নাতী হয়ে যাবে। (সুনান তিরমিজি, ২৬৩৯)

আমরা উগ্রবাদী মুসলমানে পরিণত হচ্ছি দিন দিন। আগের যুগের ওলী আওলিয়া সুফিগনের সোহবতে হাজার হাজার কাফির মুসলমান হয়েছে। আর আমাদের উগ্রতা ও কঠোরতার কারণে মুসলমান আজ দ্বীন-ধর্ম ছেড়ে দিচ্ছে।

আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাই এসব মূর্খতা থেকে৷

ভাই আপনারা কত ভয়ানক জানেন? শাহরিয়ার কবির ও গোলাম মাওলা রনি সাহেবদের চাইতেও আপনারা ভয়ানক? রনি নাস্তিক? ছি ছি৷ সে আল্লাহতে বিশ্বাস করে না? গতকালের আলোচনাতেই তো সে কয়েকবার বলেছে, আমাদের ইমান আকিদা কিভাবে ভাল থাকবে, ইত্যাদি ইত্যাদি। নিজের দিকে একবার দেখেন। নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত হন।

আরে ভাই, যে আল্লাহর অস্তিত্ব স্বীকার করে সে আস্তিক, যে আল্লাহতে বিশ্বাস করে না সে নাস্তিক। সহজ বিষয় কেন বুঝেন না? বলতে পারেন তার আকিদাতে গন্ডগোল আছে, চিন্তায় ভ্রান্তি আছে। সেজন্য যোগ্য আলিমরা ফতোয়া দেবেন। নাস্তিক নাস্তিক কেন জপেন না বুঝে? মানুষ মূর্খ বলবে৷ অমুসলিমরা এসব পড়লে হাসবে যে আস্তিক ও নাস্তিকের সংজ্ঞা জানে না এসব উগ্রবাদী মুসলমান।

শাহরিয়ার কবির কখনো বলেছে আমি আল্লাহতে বিশ্বাস করি না, ইসলামে বিশ্বাস করি না? কখনোই বলে নাই। তার আকিদাগত ভ্রান্তির জন্য যোগ্য আলিম ফতোয়া দেবেন। নাস্তিক কি করে হয়?

সে ভিন্ন আইডিওলজি লালন করে৷ সেজন্য তার জাহেরি কথার উপর যোগ্য আলিম ফতোয়া দেবেন। নাস্তিক নাস্তিক জপেন কেন?

আসিফ মহিউদ্দিন এর মত যারা ওপেনলি ডিক্লেয়ার করেছে সে সৃষ্টিকর্তাতে বিশ্বাস করে না, তাকে নাস্তিক বলুন৷

ভাই! এগুলো কেমন উগ্রতা, মানুষকে জোর করে ইসলাম থেকে বের করে দেয়া?

আর যদি মুনাফিকির কথা বলেন, তবে শিয়ার কথায় সুন্নী মুনাফিক, সুন্নীর কথায় শিয়া মুনাফিক। দেওবন্দীর কথায় বেরেলভী আলা হজরত পন্থী মুনাফিক, বেরেলভিদের কথায় তারা ছাড়া সব মতবাদের মুসলমান মুনাফিক। মুসলমান কে তাহলে?

কাল হাশরের দিনে আল্লাহ পাকের ৮ টি জান্নাত কী তবে আল্লাহ পাক অমুসলিমদের দিয়ে ভরবেন? নাউজুবিল্লাহ মিন জালিক। কী ভয়ানক।

মুনাফিকির হুকুম কেবলমাত্র হুজুর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামার যুগের বিষয়। কে অন্তরে কুফরি লুকিয়ে ইমান প্রকাশ করেছে তা কেবল হুজুর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে আল্লাহ পাক ওহীর মাধ্যমে জানাতেন।

হজরত হুযায়ফাহ্ ইবনুল ইয়ামান (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ
তিনি বলেন, নিফাক্বের হুকুম হুজুর রসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-এর যুগেই ছিল। বর্তমানে হয় তা কুফ্‌রী, না হয় ঈমান। (সহীহ : বুখারী ৭১১৪, নাসায়ী ৩৪৩৩, সহীহ আল জামি‘ ১৭৩২, ইরওয়া ২০৬২, মিশকাতুল মাসাবিহ, হাদিস নং ৬২)।

সকল প্রকারের দম্ভ, অহংকার, হিংসা, বিদ্বেষ, হানাহানী, নিজেকে একমাত্র হকপন্থী ভাবা, হকের সোল এজেন্ট ভাবা, বাকি সবাইকে ভন্ড ভাবা এসব থেকে আল্লাহর কাছে পানাহ চাই৷ শয়তানের প্ররোচনা ও নফসের ধোকা থেকে মহান রবের কাছে আশ্রয় চাই। আমিন।

SHARE