শিক্ষার্থীদের সামনে শাকিবের গাড়ি, অতঃপর

31

বৃহস্পতিবার সকালে চিত্রনায়ক শাকিব খান পুরান ঢাকা যাচ্ছিলেন ‘ক্যাপ্টেন খান’ ছবির শুটিংয়ে। এসময় মতিঝিল শাপলা চত্বরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দেখে গাড়ি থামান এসময় শিক্ষার্থীরা শাকিব খানকে দেখে ছুটে আসেন।

শাকিব খান তার গাড়ির জানালা খুলে দেন। সাথে সাথে তাকে শিক্ষার্থীরা ছুটে এসে আন্দোলনে যোগ দেওয়ার জন্য তাকে আহ্বান জানান। তাৎক্ষণিকভাবে শাকিব খান শিক্ষার্থীদের এই শান্তিপূর্ণ ও যৌক্তিক আন্দোলনে তার সমর্থনের কথা শিক্ষার্থীদের জানান। এবং বেশ কিছুক্ষণ ধরে গাড়িতে বসে তিনি শিক্ষার্থীদের সাথে কথাও বলেন। কিন্তু তার আগে শিক্ষার্থীরা শাকিবের গাড়ির লাইসেন্স চেক করে। সব ঠিকঠাক পাওয়া যায়।

এসময় শাকিব বলেন, খুবই ভালো লাগছিল দেখে যে বৃষ্টির মধ্যে ভিজে তারা শান্তিপূর্ণভাবে যৌক্তিক দাবি আদায়ের জন্য আন্দোলন করছে। শুটিংয়ের কস্টিউম পরা না থাকলে আমি শিক্ষার্থীদের সাথে রাস্তায় নেমে যেতাম।

শাকিব খান মনে করেন, র‍্যাডিসন হোটেলের সামনে দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। কারণ, ফিটনেস বিহীন গাড়ি, প্রশিক্ষণহীন চালক প্রতিদিনই এভাবে আমাদের ভাইবোনদের জীবন কেড়ে নিচ্ছে।

তিনি বলেন, পরিবহন সেক্টরে যে সিস্টেম চালু আছে এতে বাসা থেকে বের হওয়ার পর আমরা কেউ নিরাপদ না। আজকে যে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা দাবি আদায়ে রাস্তায় যে আন্দোলন করছে, সেটা আমাদের বড়দের করার কথা ছিল। কিন্তু শিক্ষার্থীরা আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে আমরা ব্যর্থ হয়েছি।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কিছু চিত্র ভালো লেগেছে জানিয়ে তিনি আরো বলেন, সবচেয়ে ভালো লাগছে রাস্তার মোড়ে দাঁড়িয়ে, বৃষ্টিতে ভিজে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন গাড়ির লাইসেন্স দেখছে, তারপর গাড়ি ছাড়ছে, শৃঙ্খলাবদ্ধভাবে চলাচলে সহায়তা করছে। কী সুন্দর দৃশ্য! দেখে আমি সত্যিই আবেগাপ্লুত।

শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক আন্দোলনের সাথে আছেন জানিয়ে সবশেষে শাকিব বলেন, সরকারের যেসব প্রতিষ্ঠানের এসব ফিটনেসবিহীন গাড়ি দেখার কথা ছিল, তারা এতদিন কিছুই করেনি। আমি এই আন্দোলনের সাথে আছি। প্রয়োজনে শিক্ষার্থীদের সাথে আমিও রাস্তায় নামবো। এই আন্দোলন সরকারের বিরুদ্ধে না, সিস্টেমের বিরুদ্ধে। আমার মতে, প্রতিটি মানুষই এই সড়কে অকাল মৃত্যুর সমাধান চায়। এই আন্দোলন বাংলাদেশের প্রতিটি সচেতন মানুষের।

দেশরিভিউ/এস এস

SHARE