শিগগিরই পাশ হচ্ছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন

27

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সংসদীয় কমিটির প্রতিবেদন চূড়ান্ত, আগামী অধিবেশনেই পাস হবে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার। আজ বৃহস্পতিবার সকালে, জেলা প্রশাসক সম্মেলনের তৃতীয় অধিবেশনে এ কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী জানান, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন আমরা স্থায়ী কমিটিতে প্রায়ই চুড়ান্ত করেছি, সেটি পাশ হলে ৫৭ ধারা নামক কোন ধারা আর থাকবে না। নতুন আইনের কিছুটা সংস্করণ আছে জানিয়ে তিনি বলেন, ৫৭ ধারায় সংগঠিত অপরাধে পুলিশ সরাসরি কোন ব্যবস্থা নিতে পারবে না।’

এছাড়াও নতুন আইনে ৫৭ ধারা থাকবে না তবে এ পর্যন্ত হওয়া মামলাগুলো আগের আইনেই নিষ্পত্তি হবে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন প্রথম করা হয় ২০০৬ সালে। পরে ২০১৩ সালে শাস্তি বাড়িয়ে আইনটিকে আরও কঠোর করা হয়। এ আইনের ৫৭ ধারায় গত কয়েক বছরে অপপ্রয়োগের শিকার হয়েছেন সাংবাদিকরা। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের খসড়া পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, এতে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের কোনো মৌলিক পরিবর্তন আসেনি। তবে অপরাধের ধরন অনুযায়ী শাস্তির মাত্রা কিছুটা কমানো হয়েছে। তা সত্ত্বেও নতুন আইনের ১৪টি ধারার অপরাধ জামিন অযোগ্য।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কয়েকটি ধারায় মতপ্রকাশের ক্ষেত্রে হয়রানির আশঙ্কা প্রবল, যা স্বাধীন সাংবাদিকতাকে বাধাগ্রস্ত করবে। যেমন, আইনটির ৩২ ধারায় ডিজিটাল অপরাধের বদলে গুপ্তচরবৃত্তির সাজার বিধান রাখা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ‘যদি কোনো ব্যক্তি বেআইনি প্রবেশের মাধ্যমে সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত বা সংবিধিবদ্ধ সংস্থার কোনো ধরনের গোপনীয় বা অতি গোপনীয় তথ্য-উপাত্ত কম্পিউটার, ডিজিটাল ডিভাইস, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক বা অন্য কোনো ইলেক্ট্রনিক মাধ্যমে ধারণ, প্রেরণ বা সংরক্ষণ করেন বা সংরক্ষণে সহায়তা করেন, তাহলে কম্পিউটার বা ডিজিটাল গুপ্তচরবৃত্তির অপরাধ বলে গণ্য হবে।’

এজন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি অনধিক ১৪ বছরের কারাদণ্ড বা ২৫ লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। আর এ অপরাধ একই ব্যক্তি দ্বিতীয়বার বা বারবার করলে তিনি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বা এক কোটি টাকা অর্থদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

দেশরিভিউ/এস এস

SHARE