শিশু বিনোদনকেন্দ্রে উপচে পড়েছে সব বয়সী মানুষ

78

।।দেশরিভিউ।।
ঢাকার আকাশ সকাল থেকেই মেঘাচ্ছন্ন। সকাল ৯টা পর্যন্ত ঢাকায় ৪৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এরপর থেমে থেমে ছিল গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি। ঈদের দিন দুপুর পর্যন্ত ঢাকার রাস্তায় কিংবা বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে তেমন কোনও ভিড় না থাকলেও বিকালের পর ভিড় বাড়তে শুরু করে। বুধবার (৫ জুন) বিকালে রাজধানীর সংসদ ভবন এলাকা ও শ্যামলী শিশুমেলা ঘুরে দেখা যায় এমন চিত্র।

রাজধানীতে শিশুদের বিনোদনের অন্যতম স্থান শিশুপার্কে এ বছরের ১ জানুয়ারি থেকে আধুনিকায়নের কাজ শুরু হওয়ায় সেটি বন্ধ আছে। তাই সেখানে এবারের ঈদের চিত্র ভিন্ন।

সংসদ ভবন এলাকায় ছিল শিশুদের পদচারণা। দুপুরের পর থেকে এখানে বাড়ে লোকসমাগম। শিশুদের উপস্থিতি দেখে অনেক খেলনা বিক্রেতা সেখানে পসরা সাজিয়ে বসেছেন। চার বছরের শিশু লামিয়া বাবা-মার সঙ্গে সংসদ ভবনে এসেছে। সে ঘুরে ঘুরে খেলনা দেখছে। তার বাবা নাসিম মেয়ের ছবি তুলছেন। তার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শিশুপার্ক বন্ধ থাকায় তিনি পরিবার নিয়ে এখানে এসেছেন। এর আগে শিশুমেলায় গিয়েছিলেন, কিন্তু ভিড় দেখে এখানে চলে আসেন।

বৃষ্টি উপেক্ষা করে সংসদ ভবন এলাকায় বেড়াতে আসে শিশুরা
বৃষ্টি উপেক্ষা করে সংসদ ভবন এলাকায় বেড়াতে আসে শিশুরা
সংসদ ভবনের সামনে বসার জায়গায় ক্যানভাস, আর্টপেপার আর আর্টপেনসিল নিয়ে বসে আছেন একজন চিত্রশিল্পী। তার নাম মিজান। তিনি সবার পোর্ট্রেট আঁকেন। এর জন্য তিনি ৩০০ টাকা নেন। তবে দামাদামি করে কিছু কমও তাকে দেওয়া যায়। স্কেচ দেখার জন্য তাকে ঘিরেও দাঁড়িয়ে ছিল কয়েকটি শিশু।

সংসদ ভবনের পর সবচেয়ে বেশি ভিড় দেখা গেছে শ্যামলী শিশুমেলায়। টিকিট কাউন্টারের সামনে দেখা গেছে দীর্ঘ লাইন। ভিতরে ঢুকে দেখা যায় লোকে লোকারণ্য। এখানে সব বয়সের শিশুদেরই বিভিন্ন রাইডের সামনে লাইনে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে।

শিশুমেলায় মিরপুর থেকে আসা আরাফাত খান বলেন, ‘ঢাকায় তো শিশুদের নিয়ে বেড়াতে যাওয়ার জায়গার অভাব। তাই ছুটির দিনে বাচ্চাকে এখানে নিয়ে আসি বেড়াতে। শিশুরা রাইড পছন্দ করে। তাদের জন্য এমন সুযোগ খুব কম। এখানে খরচও কম। বাচ্চারা এখানে এসে মন ভরে খেলাধুলা করতে পারে। তাই ঈদের আনন্দ বাড়াতে মেয়েকে নিয়ে এখানে আসা।

ছয় বছরের ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে ওয়ান্ডারল্যান্ডে এসেছেন ফজলে করিম। ছেলের আবদার রাখতেই তাকে এখানে নিয়ে আসা বলে জানান তিনি।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শাহনাজ মনে করেন, শিশুদের মানসিক বিকাশের জন্য খেলাধুলা ও বেড়ানোর সুযোগ থাকা উচিত। ঢাকায় শিশুদের বিনোদন কেন্দ্রের অনেক অভাব। এ ধরনের জায়গা আরও থাকা দরকার।

ওয়ান্ডারল্যান্ড কর্তৃপক্ষ জানান, ঈদে বিশেষ ব্যবস্থায় সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত এটি খোলা রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

SHARE