শুনশান নিরবতার চাদরে ঢাকা ও চট্টগ্রাম

163


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
শুনশান নিরবতার চাদরে রাজধানী ঢাকা ও দ্বিতীয় বৃহত্তম নগরী চট্টগ্রাম। জরুরি সার্ভিসের গাড়ি চলাচল ছাড়া ‘লকডাউন’ করা হয়েছে রাজধানী ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরী। জরুরি সার্ভিসের আওতাভুক্ত গাড়ি তথা ভোগ্যপণ্য, ওষুধ-ডাক্তারবাহী, ব্যাংকার এবং কিছু উৎপাদনমুখী শিল্পকারখানার গাড়ি ছাড়া দেশের দুই বৃহত্তম নগরীতে কোনো ধরনের গাড়িই চলছে না।

খুব অল্পসংখ্যক ব্যক্তিগত তথা প্রাইভেটকার চলাচল করতে দেখা গেলেও জিজ্ঞাসাবাদের পর জানা যাচ্ছে, এগুলো চিকিৎসক, ব্যাংকার কিংবা যেসব কারখানা এখনো অনুমোদিতভাবে উৎপাদনে আছে সেগুলোর কর্মকর্তারা যাতায়াত করছেন। এর বাইরে গণপরিবহন বলতে গেলে শূন্য হয়ে গেছে। অল্প কিছু রিকশা আছে সড়কে। 

রাজধানী ঢাকাতে সরকারের নির্দেশ মতো রাজধানীর বাজার ও অলিগলির দোকানপাঠ বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার দুপুর ২টার পরই এসব  বন্ধ  হয়ে যায়। পুলিশ সদস্যদের এসময় মোটর সাইকেলে দোকান বন্ধের নির্দেশ দিতে দেখা যায়। এছাড়া গলির মোড়ের সবজি, ফল ও অন্যান্য ভ্রাম্যমাণ  দোকানগুলোও সরিয়ে দেয়া হয়েছে। দোকানিরা জানিয়েছেন দুইটার আগেই বন্ধের নির্দেশ দিয়ে গেছে। দুইটার দিকে এসে আবার তাগাদা  দেয়। এতে যে কয়টা বন্ধে গড়িমসি করছিল তারাও দ্রুত বন্ধ করে বাড়ি চলে যায়। টহল রত পুলিশ সদস্যরা বলছেন, গলির মোড়গুলোতেই বেশি আড্ডা হয়। তাই এগুলোই বন্ধে বেশি জোর দেয়া হচ্ছে। রাজধানীর মানিকনগর, মুগদা, শাহজাদপুর,নতুন বাজার, বাড্ডা, কুড়িলসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন চিত্র পাওয়া যায়।


এদিকে চট্টগ্রাম মহানগরীর অবস্থাও রাজধানী ঢাকার মতো হলেও অনেকক্ষেত্রে আরো বেশী কঠোরহস্তে নামতে দেখা গেছে পুলিশকে। দুইটি প্রবেশ-বাহির পথের দূরত্ব প্রায় ১৬ কিলোমিটার। এই দীর্ঘপথ ঘুরে নগরীর কোথাও গণপরিবহন, অটোরিকশা, সিএনজি কিংবা অন্য গাড়ি চলাচল করতে দেখা যায়নি। তবে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, সেনাসদস্য ও পুলিশ সদস্যদের টহল টিমের গাড়িগুলো চলাচল করছে। কোনো কোনো গাড়ির বহর থেকে নগরবাসীকে ঘরে থাকার এবং গাড়ি বের না করার অনুরোধ জানিয়েছে সতর্কতামূলক মাইকিং করা হচ্ছে। এরপর নগরীর নিউমার্কেট, টাইগারপারস, বহদ্দরহাট, জিইসির, আগ্রাবাদ বাদামতল মোড় এলাকায় বসেছে চেকপোস্ট। এখানে নগরী ভেতরে যেসব গাড়ি অপ্রয়োজনীয়ভাবে ঘোরাফেরা করছে সেগুলোর বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হচ্ছে। সিটি গেট এলাকায় গিয়ে দেখা গেল, এখানে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্যবোঝাই কাভার্ডভ্যান, লরি বেরিয়ে যাচ্ছে। আবার অনেক ট্রাক-কাভার্ডভ্যন নগরীতে প্রবেশ করছে। তবে কোনো ধরনের গণপরিবহন নেই। সন্ধ্যার পর সমগ্র নগরীতে নেমে আসে শুনশান নিরবতা।

SHARE