শেখ হাসিনার জনসভায় ২৪ জনকে হত্যা মামলায় পাঁচ জনের মৃত্যুদণ্ড

167

।।দেশরিভিউ, সংবাদ।।

তিন দশক আগে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার জনসভায় গুলি চালিয়ে ২৪ জনকে হত্যার ঘটনায় পাঁচ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

১৯৮৮ সালে চট্টগ্রামের লালদীঘি ময়দানে আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনার জনসভায় গুলি চালিয়ে ২৪ জনকে হত্যা মামলায় পাঁচ পুলিশ সদস্যের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আজ সোমবার (২০শে জানুয়ারি) বিকেল সোয়া তিনটায় চট্টগ্রামের বিশেষ জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক মো. ইসমাইল হোসেন এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিরা হলেন, জে সি মণ্ডল, প্রদীপ বড়ুয়া, মমতাজউদ্দিন, মোস্তাফিজুর রহমান এবং শাহ আবদুল্লাহ। এদের মধ্যে জে সি মণ্ডল পলাতক রয়েছেন। মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিরা প্রত্যেকেই পুলিশ সদস্য। এই মামলায় অভিযুক্ত অন্য তিন পুলিশ সদস্য মারা যাওয়ায় তাদের মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

১৯৮৮ সালের ২৪শে জানুয়ারি চট্টগ্রামের লালদিঘী ময়দানে ছিল আওয়ামী লীগের জনসভা। ঐদিন দুপুর ১টার দিকে শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রাকটি জনসভায় প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে গুলিবর্ষণ শুরু হয়। পুলিশের চালানো গুলিতে মারা যান ২৪ জন। এছাড়া দুইশতাধিক নেতাকর্মী আহত হন। এ ঘটনার চার বছর পর ১৯৯২ সালের ৫ই মার্চ আইনজীবী শহিদুল হুদা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে ৪৬ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

১৯৯৬ সালে আদালতের নির্দেশে মামলাটির তদন্ত শুরু করে সিআইডি। অভিযোগপত্রে তৎকালীন সিএমপি কমিশনার মীর্জা রকিবুল হুদাসহ আট পুলিশ সদস্যকে আসামি করা হয়। এ মামলায় মোট ১৬৮ সাক্ষীর মধ্যে ৫৩ জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলী সভু প্রসাদ বিশ্বাস রায় ঘোষণার পর বলেন, ‘৫৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য শেষে আদালত পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। তাদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। পৃথক আরেকটি ধারায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিদের প্রত্যেককে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

দীর্ঘ ৩২ বছর পর হত্যার বিচার পেয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন দলীয় নেতাকর্মীরা।

SHARE