শেখ হাসিনার নির্দেশে সম্ভাব্যতা যাচাই, লৌহার খনি পেতে যাচ্ছে বাংলাদেশ!

147

||দেশরিভিউ,হিলি|| হাকিমপুর (হিলি) উপজেলার আলিহাট ইউনিয়নের ইসবপুর গ্রামে বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদফতরের পরিচালিত জরিপে লোহার খনি পাওয়ার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে।  বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদফতর (জিএসবি) জানিয়েছে ; ইতোমধ্যে সেখান থেকে লোহা ও চুম্বক জাতীয় পদার্থ পাওয়া গেছে, যা পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছে।  সব মিলিয়ে এখানে ভালো কিছু পাওয়ার আশা করছে জরিপ পরিচালনাকারী এই সংস্থা। 

 

 

খনির সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে গত ১৯ এপ্রিল দিনাজপুর-৬ আসনের সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক ড্রিলিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদফতরের (জিএসবি) ২২ সদস্যের একটি দল এই ড্রিলিং কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এর আগে ২০১৩ সালে হাকিমপুর উপজেলার মুর্শিদপুর গ্রামে খনিজসম্পদ অনুসন্ধানে জরিপ কার্যক্রম চালায় বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদফতর (জিএসবি)। সেখানে লোহার আকরিকের সন্ধান পায় অনুসন্ধানকারী দল, যা বাংলাদেশে প্রথম ছিল। এর ওপর ভিত্তি করেই দ্বিতীয় পর্যায়ের জরিপ কার্যক্রম চালাচ্ছে অনুসন্ধানকারী দল।

 

 

ড্রিলিং কার্যক্রমে অংশ নেওয়া টিম সূত্রে জানা গেছে, ভূপৃষ্ঠের এত কাছে লোহার খনি আবিষ্কার দেশের মধ্যে এটাই হবে প্রথম।

এদিকে স্থানীয় এলাকাবাসীর মাঝেও লোহার খনির সম্ভাবনার বিষয়টি  ইতিবাচক সাড়া ফেলেছে। এলাকাবাসী খননকাজে সহযোগিতা করার পাশাপাশি খনি পাওয়া গেলে এলাকার উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের স্বপ্ন দেখছে।

 

দিনাজপুর-৬ আসনের সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক বলেন, ‘আমাদের মাটির নিচে যে সম্পদটুকু রয়েছে সেটাকে যথাযথ ব্যবহারের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশে বিভিন্ন সংস্থা সারা দেশে অসংখ্য জরিপ পরিচালনা করছেন। সেটা গ্যাসের জন্য করছেন, কয়লা ও পাথরের জন্য করছেন, বিভিন্ন সম্পদের জন্য ড্রিলিং করছেন। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদফতর হিলির ইশবপুর গ্রামে ড্রিলিং কার্যক্রম চালাচ্ছে। ইতোমধ্যে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ ও হাকিমপুর উপজেলার এক অংশ নিয়ে আমরা দিঘিপাড়া কয়লার খনি পেয়ে গেছি। আমরা আশা করছি হিলির ইশবপুরেও ভালো কিছু পেতে পারি। কয়লা বা এর চেয়ে উন্নত আরও কোনও কিছু পেতে পারি। আমরা আশা করছি, এখানে খনি হলে দেশের অগ্রগতির পাশাপাশি এলাকাবাসীর জীবনমানেরও উন্নয়ন হবে।’

 

ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদফতরের পরিচালক সাইদুল হোসেন এবং উপপরিচালক মাসুম ও মাসুদ রানা বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, এর আগে ২০১৩ সালের দিকে হাকিমপুরের মুর্শিদপুর গ্রামে অনুসন্ধান কার্যক্রম চালানো হয়েছিল। তারই ধারাবাহিকতায় ইশবপুরে দ্বিতীয় দফায় অনুসন্ধান কার্যক্রম চলছে। এখানে কী ধরনের ধাতব ও খনিজ পদার্থ রয়েছে সেটি পর্যালোচনা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘আমরা সম্ভাব্য যেসব এলাকা চিহ্নিত করি, পরে সেখানে কূপ খনন করে ড্রিলিং কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকি। তারই অংশ হিসেবে হিলির ইশবপুর গ্রামে ড্রিলিং কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। এখানে ধাতব খনিজ সম্পদের মজুত ও বিস্তৃতি এবং অর্থনৈতিক সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য ড্রিলিং কার্যক্রম চলছে। গত ১৯ এপ্রিল এই কাজ শুরু হয়েছে, এটি তিন-চার মাস ধরে চলবে। আমরা এখানে ড্রিলিং কার্যক্রমে নিচ থেকে কাদা, বালি বা আদি শিলা সব নমুনা সংগ্রহ করছি। সেগুলো সংগ্রহ করে আমরা অ্যানালাইসিস করছি। সবকিছু মিলিয়ে এখানে এখন পর্যন্ত আমরা যা পেয়েছি তাতে করে এখানে ভালো কিছু পাওয়া যাবে বলে আমরা সংকেত পাচ্ছি।’

 

গত ২৬ মে ড্রিলিং কার্যক্রম পরিদর্শন করে বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদফতর (জিএসবি) মহাপরিচালক জিল্লুর রহমান চৌধুরী। তিনি জানান, ‘এর আগে হাকিমপুরের মুশিদপুর গ্রামে ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদফতর থেকে কিছু কাজ করা হয়েছিল। সেই কাজের তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে আবারও ড্রিলিং করার সম্ভাবনা তৈরি হয়। ফলে আবারও ইশবপুর গ্রামে ড্রিলিং কার্যক্রম শুরু হয়েছে’।

 

তিনি বলেন, ‘এ পর্যন্ত আমরা ১৫০৩ ফুট নিচ পর্যন্ত ড্রিলিং কার্যক্রম চালিয়েছি ও সেই কার্যক্রম এখনও অব্যাহত রয়েছে। এখান থেকে প্রাপ্ত নমুনা জয়পুরহাটে বিসিএসআইআর-এর গবেষণা প্রতিষ্ঠানে টেস্ট করেছি।  এর নিচে গিয়ে আমরা যা পেয়েছি, তা প্রাথমিকভাবে যা পেয়েছিলাম তার চেয়ে আপাতদৃষ্টিতে অনেক ভালো,  তবে এখানে লৌহজাতীয় খনির সন্ধান মিলেছে, যার মজুত আশানুরূপ রয়েছে বলে আমরা আশাবাদী। সব মিলিয়ে আমরা ভালো কিছুর প্রত্যাশায় এখানে ড্রিলিং কার্যক্রম চালিয়েছি। সেই প্রত্যাশা আমাদের হয়তো পূরণ হতে যাচ্ছে।’

 

SHARE