শেষ সময়ের মনোনয়ন দৌড়ে তিনজন

574


।দেশরিভিউ সংবাদ।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী হতে শেষ সময়ের দৌড়ঝাপ চলছে। সম্ভাব্য সকল প্রার্থী ঢাকায় অবস্থান করলেও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানা যাবে শনিবার রাতে।প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা শেষে এদিন জানা যাবে চট্টগ্রামে কার ভাগ্যে থাকছে নৌকা প্রতীক।

দেশরিভিউর সাথে আলাপে আওয়ামী লীগের একাধিক নেতারা বলছেন, প্রধান সমুদ্রবন্দর এবং দেশের সিংহভাগ ব্যবসা-বাণিজ্যের মূলকেন্দ্র চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগের রাজনীতির সুনাম ও নিয়ন্ত্রণ অক্ষুন্ন রাখতে দলটি এবার সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। অগ্রহণযোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা সংকটে থাকা কেউ এবার দলের টিকেট পাচ্ছেনা এটা নিশ্চিত। কেন্দ্রীয় নেতাদের বিশাল একটি অংশ নিয়ন্ত্রনে নিলেও মনোনয়ন হারাবেন বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। মেয়র নাছিরের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের পাশাপাশি স্থানীয় একাধিক মন্ত্রী এমপিদের প্রচুর অভিযোগ রয়েছে। দলের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে সন্ত্রাসের মদদ দেওয়ার অভিযোগের পাশাপাশি মেয়র নাছিরের বিরুদ্ধে রয়েছে সিটি কর্পোরেশন পরিচালনায় ব্যর্থতার বিশাল খতিয়ান। একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর টেবিলে জমা হয়েছে নিজস্ব সূত্রে পাওয়া নাছিরের আমলনামা। তাই তার মনোনয়নের টিকেট এবার হাতছাড়া হচ্ছে এটা প্রায় নিশ্চিত। ইঙ্গিত হিসাবে শুক্রবার দুপুরে গনভবনে প্রধানমন্ত্রীর স্বাক্ষাৎ চেয়েও পাননি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন।

গণভবনসহ আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, শেষ সময়ে দলের টিকেট ভাগিয়ে নিতে দৌড়ে আছে তিনজন। দৌড়ে থাকা এ তিনজন হচ্ছেন সিডিএ’র সাবেক চেয়ারম্যান ও নগর কমিটির অর্থ সম্পাদক আবদুচ ছালাম, চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম এবং মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার সদস্য জহুর আহমদ চৌধুরীর সন্তান হেলাল উদ্দিন চৌধুরী তুফান।

দলীয়সূত্রে জানা গেছে, আবদুচ ছালামের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনার ক্ষেত্রে বিবেচনা করা হবে কয়েকটি বিষয়। মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের সিটি কর্পোরশন পরিচালনায় ব্যর্থতার মধ্যে আবদুচ ছালামের সিডিএ চেয়ারম্যান মেয়াদে করা প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প চট্টগ্রামের চেহারায় কিছুটা হলেও পরিবর্তন এনেছে। আ জ ম নাছির উদ্দিন ছিটকে পড়লে দৌড়ে থাকা অন্যান্যদের মধ্যে কেবল আবদুচ ছালাম রাজনৈতিক মাঠে সক্রিয় রয়েছে।

অন্যদিকে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী নেতা ও চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম ছাত্রজীবনে রাজনীতিতে জড়িত থাকলেও দীর্ঘদিন ধরে দলের টিকেটে চসিক নির্বাচনে অংশ নিতে সক্রিয় আছেন। দলের হাইকমান্ডের সাথে যোগাযোগ রক্ষার পাশাপাশি শেষ মূহুর্তের দৌড়েও টিকে
আছেন তিনি। ব্যবসায়ীদের বিশাল একটি অংশের সমর্থন ও স্থানীয় কয়েকজন এমপি চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলমের জন্য কোমড় বেধে নেমেছেন।

আওয়ামী লীগ সূত্র বলছে, অনেকটা নাটকীয়ভাবে শেষ সময়ে আলোচনা এসেছেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার সদস্য জহুর আহমদ চৌধুরীর সন্তান হেলাল উদ্দিন চৌধুরী তুফান। প্রধানমন্ত্রীর একান্ত আস্থাভাজন হিসাবে তিনি শেষ সময়ের দৌড়ে আছেন। হেলাল উদ্দিন চৌধুরী তুফান বিজেএমইএর সাবেক পরিচালক ছিলেন। এছাড়াও নগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্যের দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

SHARE