সত্য জানুন- বঙ্গবন্ধু মাত্র ১ দিনের জন্য ৪ টি বাদে সব পত্রিকা বন্ধ করেছিলেন।

353

সত্য জানুন- বঙ্গবন্ধু মাত্র ১ দিনের জন্য ৪ টি বাদে সব পত্রিকা বন্ধ করেছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে বহুল প্রচারিত একটি কথা আমরা জানি – তা হচ্ছে তিনি নাকি ৪ টি বাদে সকল পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধ করে দিয়েছিলেন। কিন্তু এর পরে আর কেউ কিছু জানতে চায়না। এই আইনটি বলবত ছিল মাত্র ১ দিন। ১ দিন পরেই ১২৪ টি পত্রিকার ডিক্লারেশন বহাল করা হয়।

১৯৭৫ সালের ১৬ জুন বঙ্গবন্ধু ‘সংবাদপত্র অর্ডিন্যান্স, ৭৫’ চালু করেন। কিন্তু ১ দিন পরেই ‘১২৪টি পত্রিকার ডিক্লারেশন বহাল’ শীর্ষক সংবাদে বলা হয়ঃ গোতকাল [সোমবার] সরকার কর্তৃক জারিকৃত সংবাদপত্র [ডিক্লারেশন বাতিলকরণ] অর্ডিন্যান্স ১৯৭৫-এর অধীনে প্রকাশনার ডিক্লারেশন বাতিলকরণ হইতে সরকার ১২৪টি দৈনিক, সাপ্তাহিক, দ্বিপাক্ষিক, মাসিক, ষান্মাসিক ও বার্ষিক পত্র-পত্রিকাকে অব্যাহতি দান করেয়াছিলেন । আজ মঙ্গলবার [১৭ই জুন] হইতে এই অর্ডিন্যান্স কার্যকারী হইতেছে ।

 

অব্যাহতি লাভকারী পত্র-পত্রিকার তালিকা নিম্নরূপঃ১৩ দৈনিক পত্রিকাঃ ১. দি বাংলাদেশ অবজারভার, ঢাকা । ২. দৈনিক বাংলা, ঢাকা । ৩. বাংলাদেশ টাইমস, ঢাকা । ৪. দৈনিক ইত্তেফাক, ঢাকা । সাপ্তাহিকঃ ৫. বাংলাদেশ সংবাদ, ঢাকা । ৬.বাংলাদেশ সি আই গেজেট, ঢাকা । ৭. বাংলাদেশ গেজেট, ঢাকা । ৮. বাংলাদেশ পুলিশ গেজেট, ঢাকা । ৯. ডিটেকটিভ, ঢাকা । ১০. ডাকবার্তা, ঢাকা । ১১. যুববার্তা, ঢাকা । ১২. সোভিয়েট সমীক্ষা, ঢাকা । ১৩. সোভিয়েট রিভিউ, ঢাকা । ১৪. আরাফাত, ঢাকা । ১৫. প্রতিবেশী, ঢাকা । ১৬. বিচিত্রা, ঢাকা । ১২৭. চিত্রালী,ঢাকা । ১৮. সিনেমা ঢাকা । ১৯. বেগম, ঢাকা । ২০. ললনা, ঢাকা । ২১.দি পালস, ঢাকা । পাক্ষিক পত্রিকাঃ ২২. বেতার বাংলা, ঢাকা । ২৩. আহমদী, ঢাকা । ২৪. আলপনা, ঢাকা । মাসিক পত্রিকাঃ ঢাকা হইতে প্রকাশিত ২৫. পূর্বাচল, ২৬. নবারুণ, ২৭. বাংলাদেশ বেতার (ইংরেজি), ২৮. কৃষি কথা, ২৯. অগ্রদূত, ৩০. বীমা বার্তা, ৩১. সুখী পরিবার, ৩২. বিজ্ঞানের জয়যাত্রা, ৩৩. বুলেটিন অব স্ট্যাটিসটিক্স, ৩৪. ধানশালিকের দেশ । ৩৫. উত্তরাধিকার । ৩৬. গণকেন্দ্র । ৩৭. পুরোগামী বিজ্ঞান । ৩৮. সমবায় । ৩৯. শাপলা শালুক । ৪০. স্ট্যাটিসটিক্যাল বুলেটিন অব বাংলাদেশ । ৪১. বাংলাদেশ লেবার কেসেজ । ৪২. ইকোনমিক ইন্ডিকেটর অব বাংলাদেশ । ৪৩. ল’ এন্ড ইন্টারন্যাশনাল এফেয়ার্স । ৪৪. বাংলাদেশ ট্যাক্স ডিসিশনস, ৪৫. দি জার্নাল অব ম্যানেজমেন্ট বিজনেস এন্ড ইকোনমিক্স । ৪৬. বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স একাডেমী । ৪৭. ঢাকা’ল রিপোর্টার্স । ৪৮. কারিগর । ৪৯. আজকের সমবায় । ৫০. মা [ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা] । ঢাকা হইতে প্রকাশিত-৫১. বই । ৫২. দীপক । ৫৩. উদয়ন । ৫৪. ভারত বিচিত্রা । ৫৫. আলমাহদী । ৫৬. আততাওহিদ । ৫৭. নবযুগ [চাঁদপুর, কুমিল্লা]। ৫৮. নেদায়ে ইসলাম, ঢাকা । ৫৯. তাহজীব, ঢাকা । ৬০. সন্দীপন, পাবনা । ৬১. আলআমিন, ঢাকা । ৬২. হেফাজত-এ ইসলাম, ঢাকা । ৬৩. ঋতুপত্র, ময়মনসিংহ । ৬৪. ছোটগল্প, ঢাকা । ৬৫. চন্দ্রাকাশ,ময়মনসিংহ । ৬৬. ঢাকা ডাইজেস্ট, ঢাকা । ৬৭. দীপ্ত বাংলা, ঢাকা । ৬৮. ধলেশ্বরী, ঢাকা । ৬৯. দিগন্ত, ঢাকা । ৭০. গণমন, ফরিদপুর । ৭১. ইস্পাত, কুষ্টিয়া । ৭২. যুগরবি, চট্টগ্রাম । ঢাকা হইতে প্রকাশিত- ৭৩. গণসাহিত্য । ৭৪. কপোত । ৭৫. মুক্তবাংলা । ৭৬. সওগাত । ৭৭. শতদল । ৭৮. সুজনেষু । ৭৯. কিংশুক । ৮০. বিদিশা । ৮৫. রূপম । ৮৬. রোমাঞ্চ । ৮৭? শুভেচ্ছা । ৮৮. ঝিনুক । ৮৯. চিত্রকল্প । ৯০. গোয়েন্দা পত্রিল্কা । ৯১. জোনাকি । ৯২. চিত্রবাণী । ৯৩. চলচ্চিত্র । ৯৪. নিপুণ । ৯৫. খেলাধুলা । ৯৬. চিকিৎসা সাময়িকী । ৯৭. পারিবারিক চিকিৎসা (নোয়াখালী) । ৯৮. হাকিমী খবর (ময়মনসিংহ) । ৯৯. স্বাস্থ্য সাময়িকী । ১০০. শাশ্বতী, চট্টগ্রাম । ১০১. বিজ্ঞান সাময়িকী (ঢাকা) । ১০২. টাইমস, ঢাকা । ১০৩. ফিন্যান্সিয়াল টাইমস (ঢাকা) । ১০৪. উর্বরা, ময়মনসিংহ । ১০৫. রংপুর সাহিত্য পরিষদ পত্রিকা, রংপুর । ১০৬. মৈত্রী, ঢাকা । দ্বিমাসিক/ত্রৈমাসিক পত্রিকাঃ ১০৭. অন্তিকা, চট্টগ্রাম (দ্বিমাসিক) । ঢাকা হইতে প্রকাশিত ১০৮. ব্যবস্থাপনা প্রসং । ১০৯. দি কস্ট এন্ড ম্যানেজমেন্ট । ১১০. বাংলা একাডেমী পত্রিকা । ১১১. বাংলা একাডেমী জার্নাল । ১১২. শিল্প ব্যাংক সমাচার (ইংরেজি) । ১১৩. বাংলা জার্নাল অব সায়েন্টিফিক এন্ড ইন্ডোস্ট্রিয়াল রিসার্চ । ১১৪. মার্কিন পরিক্রমা । ১১৫. মনীষা । ১১৬. কন্ঠস্বর । ১১৭. খিয়েটার । ১১৮. জনান্তিক । ১১৯. ক্রীড়া সাহিত্য, সিলেট । ১২০. মুখশ্রী, ঢাকা । অর্ধ-বার্ষিক/বার্ষিক পত্রিকা ঃ ১২১. বরিশাল মেডিক্যাল রিভিউ (বরিশাল) অর্ধ বার্ষিক । ১২২. শিপিং ডাইরেক্টরি (চট্টগ্রাম) অর্ধ-বার্ষিক । ১২৩. সাহিত্যিকী (রাজশাহী) অর্ধবার্ষিক । ১২৪. ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পত্রিকা বার্ষিক । ১২৫. দ্বীপান্বিতা (ঢাকা), বার্ষিক । ১২৬. এন্যুয়াল সায়েন্টিফিক রিপোর্ট (ঢাকা), বার্ষিক । তাহলে মোটামুটি কতগুলো পত্রিকা আসলে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল এমন একটি প্রশ্নের উত্তরও খোঁজার চেষ্টা করা হয় এবং জানা যায়- ১৯৭২-১৯৭৫ জুন পর্যন্ত প্রকাশিত পত্রিকার মোট সংখ্যায় ছিল (দৈনিক জনপদে প্রকাশিত ‘আমাদের প্রকাশনী শিল্প’ [১৫ই ফেব্রুয়ারি ১৯৭৫ এ রয়েছেঃ ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত] ১০৬ টি মাসিক, ৩৭টি দৈনিক, ১৭৪টি সাপ্তাহিক, ১৫টি মাসিক ও ৮টি ত্রৈমাসিক অর্থাৎ মোট ৩৪০টি .১৪ এই সংখ্যাটিকে গ্রহণ করলে বন্ধ পত্রিকার সম্ভাব্য সংখ্যা দাঁড়ায় (৩৪০-১২৬)=২১৪টি ।

কিন্তু কেন?এ সম্পর্কিত তথ্যানুসন্ধানে পাওয়া যায় –

১৫ স্বাধীনতা-উদ্দীপ্ত নব্য জাতি জীবনের অন্যান্য ক্ষেত্রের ন্যায় পত্রপত্রিকা ও সাময়িকী প্রকাশনার ক্ষেত্রেও প্রাণ প্রাচুর্য প্রদর্শন করে । ফলত, স্বাধীনতার প্রথম বৎসর (১৯৭২ সাল) প্রকাশিত বিপুল সংখ্যক (প্রায় ২৮১) খানি) পত্রপত্রিকা ও সাময়িকীর প্রকাশনার মধ্যে এই প্রাণ প্রাচুর্য অভিব্যক্ত । তবে কিছু কিছু পত্রপত্রিকায় এই প্রাণ প্রাচুর্য চড়া সুরে ধ্বণিত হতে শুরু করে । কখনও কখনও তা ছিল উস্কানিমূলক, মাঝে মাঝে তা ছিল শালীনতা বহির্ভূত এবং কখনওবা তা পৌঁছায় রাষ্ট্র ও জনস্বার্থ বিরোধী পর্যায়ে । ফলে সরকার নানাবিধ বিধিনিষেধ প্রয়োগ করতে বাধ্য হন । প্রথমে তিনি ১৯৬০ সালের প্রণীত প্রেস এন্ড পাবলিকেশন্স অর্ডিন্যান্স জারি করে ১৯৭২ সালেই গণশক্তি, হক কথা, লাল পতাকা, মুখপত্র, বাংলার মুখ, স্পোকসম্যান প্রভৃতি সাপ্তাহিক পত্রিকা বন্ধ এবং সম্পাদকদের গ্রেপ্তার করেন । পরের বৎসর ১৯৭৩ সালে মার্চ ও আগস্ট মাসে যথাক্রমে ঢাকার দৈনিক গণকন্ঠ ও চট্টগ্রামের দৈনিক দেশবাংলার প্রকাশনা বাতিল করা হয় । এদেশের রাজনৈতিক কারণে স্বাধীনতা পরবর্তীকালেও অনেকগুলো পত্রিকার প্রকাশনা স্থপিত কিংবা বাজোয়াপ্ত হুয় । সরকারী নথিপত্রের বরাত দিয়ে গবেষণা রিপোর্ট উল্লেখ করা হয়, ১৯৭২ সনে রাজনৈতিক কারণে ১০টি সংবাদপত্রের প্রকাশনা স্থগিত ও ১টি বাজেয়াপ্ত ঘোষিত হয় । ১৯৭৩ সনে এই সংখ্যার সহিত যুক্ত হয় যথাক্রমে ১০২টি ও ৬টি পত্রপত্রিকা । [অর্থ-রাজনৈতিক কারণেই এদেশে সংবাদপত্রের জন্ম ও বিকাশের জন্য দায়ী । দৈনিক ইত্তেফাক, ১৫নভেম্বর, ১৯৮৩] । পত্রিকা বন্ধ হয়ে যাওয়া, বাতিল হওয়া, সম্পাদকদের গ্রেপ্তার হওয়া ইত্যাদি কারণে সাংবাদিক সংগঠনসমূহ প্রতিবাদে সোচ্চার হয়ে ওঠে । ফলে রাষ্ট্রপতি পুরনো অর্ডিন্যান্স বাতিল করে ১৯৭৩ সালের ২৮শে আগস্ট ‘প্রিন্টিং প্রেস এন্ড পাবলিকেশন (ডিক্লারেশন ও রেজিস্ট্রেশন) অর্ডিন্যান্স’ জারি করেন । ১৯৭৪ সালের জানুয়ারি মাসে জাতীয় সংসদে পাশ হয় বিশেষ ক্ষমতা আইন । একই সালের ২০ই নভেম্বর বিলটি কন্ঠ ভোটে পাশ হয় । এই সালেই প্রেস ট্রাস্টের নাম পালটিয়ে হয় সংবাদপত্র ব্যবস্থাপনা বোর্ড । এরপর নিউজপ্রিন্ট নিয়ন্ত্রণাদেশ জারি করে যা ৯ই জুলাই কার্যকর করা হয় ।

সরকারী শোকজ নোটিশে কি ছিলো?

শোকজ নোটিশে বলা হয়, পত্রিকার বিরুদ্ধে কাল্পনিক, বিদ্বেষমূলক, মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যমূলক সংবাদ পরিবেশনের নির্দিষ্ট অভিযোগ রয়েছে।

পত্রিকা সমূহের কয়েকটি অভিযুক্ত খবরসমূহ:

 ‘হককথা’ বন্ধের পর এর প্রকাশিত বিশেষ বুলেটিনের কিছু শিরোনামঃ ‘সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ উপেক্ষিত। 

‘মুখপাত্র’ লিখেছিলো এ সরকার ভারত আশ্রিত তাঁবেদার সরকার’, ‘ইল্লাল্লাহুর বীজ বপন করতে হবে’ ইত্যাদি। 

‘চট্রগ্রামের দেশবাংলা’ লিখেছিলো বিদেশী অস্ত্রে সুসজ্জিত বিদ্রোহীদের হাতে রাঙামাটি শহর পতনের আশঙ্কা’ যা সম্পূর্ন ভিত্তিহীন ও বানোয়াট

এছাড়াও সাপ্তাহিক নয়াযুগ সহ কিছু পত্রিকা ছিলো অনুমোদনহীন।

সূত্র – বঙ্গবন্ধু ও গণমাধ্যম, বাংলাদেশ প্রেস ইন্সটিটিউট কর্তৃক প্রকাশিত

বিস্তারিত পড়ুন

https://songramernotebook.com/archives/41345

SHARE