সন্তানকে কীভাবে পড়ার ব্যাপারে সাহায্য করবেন?

454

 


রাগিব হাসানের লেখা ‘বিদ্যাকৌশল’ বইয়ের অংশবিশেষ

এই লেখাটা আসলে শিক্ষার্থীদের জন্য না, বরং তাদের অভিভাবকদের জন্য। তাই এক কাজ করুন, এই লেখাটা নিয়ে আপনার অভিভাবককে দেখান, পড়ান।

অভিভাবকরা শিক্ষার্থীদের জন্য অনেকটা বটগাছের মতো। ছায়া দিয়ে, পড়ার জন্য দরকার সবকিছু দিয়েই বাবা মায়েরা সন্তানদের পড়ালেখায় ভালো করার চেষ্টা করেন। এই ক্ষেত্রে তাঁরা কী কী কাজ করতে পারেন, যা শিক্ষার্থীদের কাজে আসবে? আর কী কী কাজ করলে সেটা ভালোর বদলে সমস্যার সৃষ্টি করবে? আসুন দেখা যাক।

পড়ায় উৎসাহ দেয়া

বাবা মায়েরা সবচেয়ে বড় যে কাজটা করতে পারেন, তা হলো পড়ায় উৎসাহ দেয়া। ছোট ছোট কাজে পর্যাপ্ত পরিমাণ প্রশংসা করুন। আবার বেশি প্রশংসাও করবেন না। মাত্রা রেখে প্রশংসা করুন, তাতে করে আপনার সন্তানটি উৎসাহ পাবে।

পড়ার পরিবেশ করে দেয়া

পড়ার জন্য যে পরিবেশ লাগে, সেটা করে দিন। বাসার মধ্যে সারাক্ষণ অতিথি কিংবা হৈচৈ আড্ডা চললে সেটা আপনার সন্তানের পড়ায় অনেক ঝামেলা করবে। তাই খেয়াল রাখুন। পড়ার জন্য আলাদা চুপচাপ একটা জায়গা করে দিন।

নিজে উদাহরণ হন

আপনি নিজে আপনার সন্তানের কাছে সবচেয়ে বড় উদাহরণ হতে পারেন। বাসায় কি আপনি সারাক্ষণ টিভিতে সিরিয়াল দেখায় ব্যস্ত থাকেন? তা না করে আপনার সন্তানের পড়ালেখার খবর রাখুন। বাসায় টিউটর বা গৃহশিক্ষক রেখে দিয়েই দায়িত্ব শেষ মনে করে নিজে আড্ডাবাজি বা সিরিয়ালবাজিতে নেমে পড়বেন না। বরং নিজেই খেয়াল করুন। সামাজিক নানা অনুষ্ঠানের হৈ হুল্লোড়ে যেন সন্তানের পরীক্ষা বা দরকারি পড়ার সময়টা নষ্ট না হয়, সেই দিকে খেয়াল রাখুন।

      – বাচ্চার সাথে যা কখনো করবেন না –

অন্যের সাথে তুলনা করবেন না: অমুকের ছেলে ফার্স্ট হয়েছে, আপনার ছেলে হয়নি, একারণে বকাঝকা করার মতো নেগেটিভ কাজ আর হয় না, আপনার এই তুলনাবাজি কিন্তু ভালোর বদলে আপনার সন্তানের মনে এটা আরো খারাপ প্রভাব ফেলবে। হীনমন্যতা খুব খারাপ জিনিষ, আর বাবা-মায়ের মতো কাছের মানুষের কাছ থেকে মন ছোট করে দেয়ার মতো কথা শুনলে তা যে কারো মন ভেঙে দিতে বাধ্য। তাই অন্যের সাথে তুলনা করা, গাধা বলা, এসব বাদ দিন।

ভালো ফলাফলের উপরে অতিরিক্ত জোরাজুরি করা: পরীক্ষার ফলাফলের চাইতে বড় ব্যাপার হলো আপনার সন্তানটি কতটুকু শিখছে, কতটুকু জানছে। আর বিশেষ করে স্কুল কলেজে কোনো পরীক্ষায় কেউ একটু খারাপ করলে সেটা আদৌ ভবিষ্যত জীবনের উপরে খুব বড় প্রভাব ফেলে না। তাই স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের কাছে বকাবকি করে পড়াটাকে আতঙ্ক বানিয়ে ফেলবেন না। আমি অনেক উদাহরণ দিতে পারতাম, কিন্তু একটাই দেই, আমার সেই স্কুলের বন্ধুর কথা বলে, যে ক্লাস সেভেন থেকে এইটে উঠতে গিয়ে প্রায় আটকে গেছিলো খারাপ ফল করে। আজ ২২ বছর পরে সে হয়েছে দেশের ব্যাংকিং জগতের এক বড় তারকা, স্নাতক পর্যায়েও তার বিষয়ে সে অনেক ভালো ফল করেছিলো। তাই স্কুল কলেজের বাচ্চাদের পড়ায় অমুক করতে হবে, তমুক পেতেই হবে, এবং তা না পেলে বকাবকি বা মারধোর করা, এসব একেবারেই বাদ দিন। জীবন একটাই, সেই জীবনের শৈশবের মধুর সময়টা তাদের উপভোগ করে বেড়ে উঠতে দিন, ভালো ফল করার জন্য উদ্বুদ্ধ করবেন বটে, কিন্তু আপনার নিজের মনমত ফলাফল তারা করতে না পারলে তাদের পিছনে লাগবেন না।

 

 

..দেশরিভিউ ডট কম

 

 

 

 

 

SHARE