সাংবাদিক একরামুল হকের প্রশ্ন: আল জাজিরা কেন একজন সন্ত্রাসীর পক্ষে নিল?

56

আল জাজিরার প্রতিবেদন এবং আদালতে গুলিবিদ্ধ সন্ত্রাসীর বয়ান নিয়ে আমার কিছু প্রশ্ন আছে। কারণ, আমি অনেক দিন কোর্ট বিটে কাজ করেছি। দেশে-বিদেশে আলোচিত ১০ ট্রাক অস্ত্র আটক মামলায় রথি-মহারথিদের জবানবন্দী আমি সবার আগে পেয়েছি, যা নিয়মিত প্রথম আলো পত্রিকায় শিরোনাম হয়েছে। কোর্ট বিটে কাজ করার কারণে কিছু ক্ষুদ্র অভিজ্ঞতা হয়েছে আমার। সেই অভিজ্ঞতার আলোকে আমার মনে কৌতূহল সৃষ্টি হয়।

আল জাজিরার প্রতিবেদনের একটি অংশ নিয়ে আমারসহ অনেকের মনে খটকা লেগেছে। যেমন,
১৯৯৬ সালে ফ্রিডম পার্টির গুলিবিদ্ধ সন্ত্রাসী মোস্তফা মৃত্যুর আগে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে একটি জবানবন্দি দিয়েছিল বলে আল জাজিরা প্রতিবেদনে তুলে ধরেছে। ম্যাজিস্ট্রেটের অনুলিখনে মোস্তফার বয়ান হলো, ‘হারিস আমাকে তাঁর লাইসেন্স করা বন্দুক দিয়ে প্রথমে গুলি করে। হারিসের পর জোসেফ আমার কোমর থেকে পিস্তল নিয়ে আমার পেটে গুলি করে। হারিস এবং জোসেফ ছাড়া অন্যরা আমাকে Randomly (এলোমেলোভাবে) গুলি করে। …… আমাকে নয়টি গুলি করা হয়েছে।’

ওই সময় আদালতে জবানবন্দী নিতেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা। মোস্তফা যখন জবানবন্দী দিচ্ছিল তখন সে মৃত্যুশয্যায়। সে কীভাবে বললো, তাকে নয়টি গুলি করা হয়েছে?
অথচ সন্ত্রাসী মোস্তফার ডায়িং জবানবন্দীর ভিত্তিতেই বিএনপি আমলে জোসেফ এবং অন্যদের সাজা হয়েছিল। যে বন্দুক দিয়ে তাকে গুলি করা হলো সেটি লাইসেন্স করা ছিল বলে সে জবানবন্দীতে উল্লেখ করেছে। মোস্তফা তা কীভাবে জানলো? সে কি রক্তাক্ত অবস্থায় গুলির শব্দও গুনছিল? মনস্তাত্ত্বিকবিদদের এ বিষয়ে বক্তব্য কী?
১৯৯৬ সালে যে ম্যাজিস্ট্রেট গুলিবিদ্ধ সন্ত্রাসী মোস্তফার জবানবন্দী নিয়েছেন তিনি হয়তো এখন সরকারের সচিব বা অতিরিক্ত সচিব। ওই ম্যাজিস্ট্রেটকে এই মুহূর্তে শনাক্ত করা উচিত। কারণ, আল জাজিরা যার ভিত্তিতে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করেছে দেশের গণমাধ্যমের উচিত ওই ভিত্তিটা আদৌ ঠিক ছিল কিনা। এতে গুলিবিদ্ধ মোস্তফার গাজাখোরী জবানবন্দীর আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে।
ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাতের ডাইং স্টেটমেন্ট কীভাবে নেওয়া হয়েছে তা অনেকের জানা আছে। নুসরাতের ডাইং স্টেটমেন্টের সাথে সন্ত্রাসী মোস্তফার ডাইং স্টেটমেন্টের ফারাক কোথায় তা এখন স্পষ্ট।
দ্বিতীয়ত, গুলিবিদ্ধ মোস্তফা কোমরে পিস্তল নিয়ে হাঁটতেন। তাই ফ্রিডম পার্টির নিহত এই সন্ত্রাসীর প্রতি সহানুভুতি দেখানোর কোনো সুযোগ নেই। সন্ত্রাসীরা এমনিতে আরেক সন্ত্রাসীর হাতে নিহত হয়। এটাই প্রকৃতির বিচার। আল জাজিরা কেন একজন সন্ত্রাসীর পক্ষে অবস্থান নিল?

লেখক: একরামুল হক, সংবাদকর্মী।

SHARE