সাঈদী এসে আমাকে ধর্ষণ করেছে, আমি সহ্য করতে পারছি না, তুমি পালাও

410


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
২০১২ সালের ১ ফেব্রুয়ারী জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর বিরুদ্ধে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারপর্বে রাষ্ট্রপক্ষের ২৩তম সাক্ষী হিসেবে সাক্ষ্য দেন পিরোজপুরের বৃদ্ধ মধুসূদন ঘরামী। সাঈদীর অপকর্মের যে বর্ণনা সেদিন আদালতে মধুসূদন ঘরামী দেন, তা শিউরে ওঠার মতো বললেও কম বলা হয়।

জবানবন্দি দেওয়ার সময় বারবার কেঁদে ফেলেন ও বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন মধুসূদন ঘরামী। তাঁর কান্না দেখে ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত অনেকের চোখেই পানি চলে আসে। মধুসূদন ঘরামীর কান্নায় গোটা ট্রাইব্যুনাল কক্ষ স্তব্ধ হয়ে যায়। গুরুতর অসুস্থ মধুসূদন ঘরামীকে একটি সিকবেডে শুইয়ে সাক্ষ্য নেওয়া হয়। রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালের একজন চিকিৎসক তাঁর পাশে সেদিন সার্বক্ষণিক উপস্থিত ছিলেন।

বিচারপতি নিজামুল হকের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের জবানবন্দিতে হৃদয়বিদারক বর্ণনা দিয়ে মধুসূদন ঘরামী বলেন, ‘সেদিন আমি বাড়ি ফেরার পর আমার স্ত্রী কাঁদতে কাঁদতে বলল, যে তোমাকে জোর করে মুসলমান বানিয়েছে, সে (সাঈদী) রাজাকার এসেছিল। আমাকে ধর্ষণ করেছে। এ যন্ত্রণা আমি আর সহ্য করতে পারছি না। তুমি পালাও। আমার কথা ভেবো না।’

ধর্ষণের শিকার বেদনার্ত স্ত্রীর এমন আর্তির বর্ণনা দিতে গিয়ে সেদিন কাঁদতে কাঁদতে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন অশীতিপর মধুসূদন ঘরামী। চশমা খুলে চোখ মোছেন।

আদালতকে মধুসূদন ঘরামী বলেন, ‘৪০ বছর ধরে এই বেদনা আমি বয়ে বেড়াচ্ছি।’ এ কথা বলার সময় শোয়া অবস্থা থেকে উঠে বসার চেষ্টা করেন তিনি। তারপর বলেন, ‘পরে আমার স্ত্রী গর্ভবতী হয়ে পড়ে। দেশ স্বাধীনের পর অগ্রহায়ণ মাসে তার একটি কন্যাসন্তান হয়। নাম রাখা হয় সন্ধ্যা। কিন্তু লোকজনের কানাঘুষা আর ইঙ্গিতপূর্ণ কথাবার্তায় অতিষ্ঠ হয়ে এবং অপমান সহ্য করতে না পেরে একদিন আমার স্ত্রী মেয়েটাকে নিয়ে ভারতে চলে যায়। আর ফিরে আসেনি।’ সাক্ষ্য দেওয়ার একপর্যায়ে মধুসূদন ঘরামী অসুস্থ হয়ে পড়লে উপস্থিত চিকিৎসক তাঁকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। এরপর আবার তিনি বক্তব্য দেন।

আদালতকে মধুসূদন ঘরামী বলেন, ‘একদিন বিকেল ৪টা-সাড়ে ৪টার দিকে আমার বাড়িতে রাজাকার বাহিনী আসে। কারা এসেছিল জানি না। আমি তখন ছিলাম না। স্ত্রী আমাকে পরে বলে যে, তোমাকে যে জোর করে মুসলমান বানিয়েছে, সে এসেছিল।’ তিনি বলেন, দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী আমাকে, কৃষ্ণ সাহা ও ডা. গণেশকে জোর করে ধরে নিয়ে মসজিদে বসিয়ে মুসলমান বানায়। তখন আমার নাম রাখা হয় আলী আশরাফ। কৃষ্ণ সাহার নাম রাখা হয় আলী আকবর। কিন্তু কৃষ্ণ সাহা মুসলমান হয়ে আল্লাহর নাম নিয়েও বাচতে পারেনি। কয়েক দিন পর তাকে হত্যা করা হয়।’ তিনি বলেন, সাঈদী বলেছিল, ‘তোমরা মুসলমান হলে মরবা না, তা না হলে বাঁচতে পারবা না।’ তিনি বলেন, ‘দেশ স্বাধীনের পর আমি আবার স্বধর্মে ফিরে আসি।’ মধুসূদন বলেন, ‘ধর্ষণের শিকার ও গর্ভবতী হওয়ার পর আমার স্ত্রীকে এলাকার লোকজন অপমান করত, গঞ্জনা দিত। এ অবস্থায় আমি শ্যালক কার্তিক সিকদারকে বললাম, কী করবা? শ্যালক বলল, ভারতে নিয়ে যাই। কয়েক দিন পর শিশুকন্যাকে নিয়ে আমার স্ত্রী শেফালী ঘরামী ভারতে চলে যায়। এর পর থেকে তাদের সঙ্গে আর দেখা হয়নি। আমি দেশেই থেকে যাই।’ বৃদ্ধ মধুসূদন এ পর্যায়ে আবার কেঁদে ফেলেন। মধুসূদন ঘরামী বলেন, ‘১৯৭০ সালের আগে আমার ভাই নিকুঞ্জ মারা গেছেন। লুটপাটের (মুক্তিযুদ্ধ) কিছু দিন আগে শেফালী ঘরামীকে আমি বিয়ে করি। ফাল্গুন মাসের শেষের দিকে বিয়ে হয়। বিয়ের পরে স্ত্রীকে নিয়ে আমি পিরোজপুরের হোগলাবুনিয়ায় আমার বাড়িতে আসি। এর কিছুদিন পরই পিরোজপুরে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ শুরু হয়। ওই সময় দানেশ মোল্লা, মোসলেম মাওলানা, সেকান্দার সিকদার ও দেলোয়ার সিকদার শান্তি কমিটি গঠন করে।’ মধুসূদন ঘরামী আরো বলেন, ‘দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী মুক্তিযুদ্ধের সময় দেলাওয়ার সিকদার নামে পরিচিত ছিল। সে সময় এই সাঈদীর নেতৃত্বে গঠিত রাজাকার বাহিনী বিভিন্ন গ্রামে ঢুকে হিন্দু বাড়িতে লুটপাট করে ও আগুন ধরিয়ে দেয়। হিন্দুদের ধরে নিয়ে হত্যা করে ও নির্যাতন চালায়। আমরা সে সময় ঘুঘু পাখির চেয়েও ছোট হয়ে থাকতাম। পালিয়ে বেড়াতাম।’

মধুসূদন ঘরামী বলেন, ‘একদিন রাতে হোগলাবুনিয়া গ্রাম থেকে তরুণ সিকদার, তারাকান্তি সিকদার, নির্মল সিকদার, হরলাল মালাকার, প্রকাশ সিকদার ও তার ছেলে নির্মলসহ ৯ জনকে ধরে নিয়ে যায়। কারা ধরে নিয়ে গিয়েছিল তা আমরা দেখিনি। সকালে ঘুম থেকে উঠে তাদের আর পাইনি।’ এ সময় মধুসূদন কেঁদে ফেলেন। একপর্যায়ে আদালতের প্রসিকিউটর রানা দাশ গুপ্তের এক প্রশ্নের জবাবে মধুসূদন ঘরামী বলেন, ‘আমি আর বিয়ে করিনি। মুক্তিযুদ্ধের দুই বছর আগে বাড়ি-ঘর বিক্রি করে দিয়েছিলাম সোবহান ও সুলতানের কাছে। তার পর থেকে সাধু ঘরামীর বাড়িতে উঠেছিলাম স্ত্রীকে নিয়ে। এখন পর্যন্ত ওই ঘরেই আছি।’ তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের সময় কাঠমিস্ত্রির কাজ করতাম। বাবা যখন মারা যান তখন আমার বয়স আড়াই বছর। বাবা মারা যাওয়ার সময় আমার বড় দুই বোন সুশীলা ও গোলাপী এবং দুই ভাইকে রেখে যান। পরে তারাও ভারতে চলে যায়।’

SHARE