সাকিবের পর মুশফিককে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল আকসু

126
(ফাইল ফটো)

দেশরিভিউ, নিউজডেস্ক

এক জুয়াড়ির টেলিফোনের তথ্য গোপনের অপরাধে শাস্তির মুখোমুখি হতে হচ্ছে টাইগারদের টি-টোয়েন্টি ও টেস্ট অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে।

আইসিসির অ্যান্টি করাপশন ইউনিটের কোড অব কন্ডাক্টে তার ছয় মাস থেকে ৫ বছর পর্যন্ত শাস্তি হতে পারে। আসিসি কী সিদ্ধান্ত নেবে সেদিকে তাকিয়ে আছে বিসিবি এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়।

জুয়াড়িদের কবল থেকে ক্রিকেটকে রক্ষা করতে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে আইসিসি। তাদের হয়ে প্রকাশ্যে ও গোপনে কাজ করছে দুর্নীতি দমন ইউনিট (আকসু)।

জুয়াড়িরা ফোন কিংবা অন্য কোনো মাধ্যম ব্যবহার করে ক্রিকেটারদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে কি না- সেদিকে কড়া নজর রাখছে তারা।

(ফাইল ফটো)

২ বছর আগে সাকিবকে ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব দেয় মোস্ট ওয়ান্টেড এক জুয়াড়ি। তবে সঙ্গে সঙ্গে আকসুকে সেটি জানাননি তিনি। ওই সময় তাকে জিজ্ঞেস করা হলেও বিষয়টি অস্বীকার করেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। পরে তাদের ফোন কল ট্র্যাক করে ঘটনার সত্যতা পায় দুর্নীতি দমন ইউনিট।

একই কারণে সেসময় মুশফিকুর রহিমকেও আকসুর জেরার সামনে পড়তে হয়। জানতে চায় তাকেও কোনো জুয়াড়ি ফোন করেছে কি না? জবাবে মিস্টার ডিপেন্ডেবল জানান, সেরকম কারো কাছ থেকে ফোন পাননি তিনি।

পরিপ্রেক্ষিতে বাড়তি পর্যবেক্ষণের জন্য মুশফিকের মোবাইল ফোন চায় আকসু। সেই ফোনের কললিস্ট পরীক্ষা করে তারা। তবে তাতে অমন কিছু পাওয়া যায়নি। ফলে সন্দেহের তালিকা থেকে মুক্ত হন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান।

এদিকে আইসিসির সিদ্ধান্ত যাই হোক যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সাকিব আল হাসানের পাশেই থাকবেন বলে জানিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল।

মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) তিনি বিবিসি বাংলাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এ অবস্থানের কথা ব্যক্ত করেছেন। সকালে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আজকের মধ্যেই এ বিষয়টি তারা আইসিসির কাছে লিখবে এবং আশা করছি আজই জানা যাবে যে আসলে কী হতে যাচ্ছে।

জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ক্রিকেট বোর্ডকে নির্দেশ দিয়েছেন যাতে আইসিসির সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করে বিষয়টি দ্রুত সুরাহা করে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আসলে এটা অনেক দিনে ধরেই নাকি চলছিল। খেলোয়াড়রা অবগত করেনি। আমার অজানা ছিল। ক্রিকেট বোর্ড জানিয়েছে অনেক দিন ধরেই হচ্ছে। পত্রিকা দেখে বোর্ডের সাথে কথা বলেছি। বোর্ডও বলেছে তারা জানতেন না। সাকিব হয়তো হালকা ভাবে নিয়েছে। এটা যে এতদূর গেছে সেটা কেউ বুঝতে পারেনি।

তিনি বলেন, কোনো কঠোর সিদ্ধান্ত আসলে আমরা সাকিবের পাশে থাকব। তবে আমাদের হস্তক্ষেপের সুযোগ নেই আইসিসির বিষয় বলে। তবে সার্বক্ষণিক মনিটরিংয়ে রেখেছ যাতে সুষ্ঠুভাবে সমাধান করা যায়।

SHARE