সারাদেশে যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.)

347

।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

আজ রোববার পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.)। দেড় হাজার বছর আগে এ দিনে জন্মগ্রহণ করেন বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)। ৬৩ বছর পর আবার একই দিনে তিনি ইন্তেকাল করেন।

মুসলিম উম্মাহর কাছে দিনটি একই সঙ্গে আনন্দ ও বেদনার। যথাযোগ্য মর্যাদা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে তাই দিনটি পালন করেন ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা।

বর্বর আরব সমাজে বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) আবির্ভাব বদলে দিয়েছিল গোটা সমাজ ব্যবস্থাকে। মানবতার মুক্তির দূত হয়ে তিনি আরব সমাজের পাশাপাশি গোটা পৃথিবীর মানুষের জন্য নিয়ে এসেছিলেন শান্তির অমোঘ বার্তা।

৫৭০ খ্রিষ্টাব্দে মক্কার কুরাইশ গোত্রের সাধারণ পরিবারে জন্ম নেন রাসুল (সা.)। আরবি পঞ্জিকা অনুযায়ী দিনটি ছিল ১২ রবিউল আউয়াল। ৪০ বছর বয়সে নবুয়ত লাভ করেন। কুসংস্কার, অন্যায়, অবিচার ও দাসত্বের শৃঙ্খল ভাঙতে মুক্তির বার্তা আনেন মানব জাতির জন্য। মহানবী (সা.) দীর্ঘ ২৩ বছর এই বার্তা  প্রচার করে ৬৩ বছর বয়সে ইহলোক ত্যাগ করেন।

ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে সারাবিশ্বের মুসলমানদের মতো বাংলাদেশেও ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা পারিবারিক ও সামাজিকভাবে নানা অনুষ্ঠান পালন করে থাকেন। এর মধ্যে রয়েছে নফল নামাজ আদায়, কোরআনখানি, মিলাদ মাহফিল।

ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জাতীয় সংসদের বিরোধী দলের নেতা বেগম রওশন এরশাদ পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে মহানবীর (সা.) জীবনাদর্শ অনুসরণ করে ভ্রাতৃত্ববোধ ও মানবকল্যাণে ব্রতী হতে সবার প্রতি আহ্বান জানান রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী।

ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে আজ সরকারি ছুটির দিন। বন্ধ থাকবে সংবাদপত্রও। দেশের সব সরকারি, বেসরকারি টেলিভিশন ও রেডিও চ্যানেল দিনটিতে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবীর (সা.) গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করবে। সংবাদপত্রগুলোও বিশেষ নিবন্ধ প্রকাশ করেছে।

SHARE