সীমানা বিরোধে ২ বছর আটকে থাকার পর আঠারোবাকি নদী পুনঃখনন কাজ শুরু

139


।।সাজিদুল ইসলাম শোভন, নড়াইল।।

নড়াইল ও বাগেরহাটের দু’জেলার সীমানা বিরোধে ২ বছরের বেশি সময় বন্ধ ছিলো আঠারোবাকি নদীর ৩ কিঃমিঃ পুনঃখনন কাজ। ২ বছর পর দু জেলার সীমানা বিরোধ অবসানের পর আবারো শুরু হলো প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতির আঠারোবাকি নদী পুনঃখনন কাজ। ফলে আবারো হাসি ফুটেছে দু’জেলার লাখো মানুষের মুখে।

জানা গেছে, ২০১১ সালের ৫ মার্চ খুলনা সফরকালে প্রধানমন্ত্রী এ অঞ্চলের জলাবদ্ধতা নিরসন, আঠারোবাকি নদী পুনঃখননসহ প্রকল্প সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কাজের প্রতিশ্রুতি দেন। ২০১৩ সালের ২৯ অক্টোবর একনেকেও অনুমোদন পায় আঠারোবাকি নদী পুনঃখননকাজের প্রকল্পটি। এরপর ২০১৬ সালের ২৩ জানুয়ারি আঠারোবাকি নদী পুনঃখননের কাজ শুরু হয়। কাজটির প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছিলো ২শ’ ৮১ কোটি ৯০ লাখ ১৬ হাজার টাকা।

এই প্রকল্পের আওতায় নড়াইলের কালিয়া উপজেলার নড়াগাতি থানার চাপাইলঘাট থেকে খুলনার রূপসা উপজেলার আলাইপুর ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় ৪২ কিলোমিটার পুনঃখনন এবং ৭ (সাত) কিলোমিটার নদী ড্রেজিং করা হচ্ছে। প্রায় ১৩ থেকে ২২ ফুট গভীরতায় পুনঃখনন করা হচ্ছে আঠারোবাকি নদী।

পহরডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান মোল্লা মোকাররম হোসেন হিরু বলেন, আঠারোবাকি নদী পুনঃখনন কাজ সম্পন্ন হলে হাসি ফুটবে লাখো মানুষের মুখে, ৩০ বছর পর নদীর নাব্যতা ফিরে পাবে আঠারোবাকি নদী। ১৩টি বিলের পানি নিষ্কাশনের মধ্য দিয়ে নিরসন হবে নড়াইল, বাগেরহাট ও খুলনা অঞ্চলের ৪৩ হাজার হেক্টর জমির জলাবদ্ধতা।

বাগেরহাট জেলার মোল্লাহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাফফারা তাসনীন বলেন, আঠারোবাকি নদী পুনঃখনন কাজ শেষ হলে এ অঞ্চলের কৃষিতে ব্যপক পরিবর্তন আসবে, বাড়বে ফসল উৎপাদন। প্রকল্পের সব কাজ শেষ না হলেও এরই মধ্যে চিত্রা ও আঠারোবাকি নদী পুনঃখনন কাজের সুফল পাচ্ছেন নড়াইল, বাগেরহাট ও খুলনা জেলার কৃষকসহ লাখ লাখ মানুষ।

নড়াইলের কালিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাজমুল হুদা বলেন, খুলনা জেলার ভূতিয়ার বিল এবং বর্ণাল-সলিমপুর-কোলাবাসুখালী বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও নিষ্কাশন (২য় পর্যায়) প্রকল্প এর আওতায় আঠারোবাকি নদী পুনঃখনন চলছে। কাজটি বাস্তবায়ন করছে সেনাবাহিনী পরিচালিত বাংলাদেশ ডিজেল প্লান্ট (বিডিপি) লিমিটেড এবং বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড। তবে সীমানা দ্বন্দে ২ বছর এ কাজ বন্ধ ছিলো এবং খুব তাড়াতাড়ি এ পুনঃখনন কাজ শেষ করা হবে।

এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের এস ডি ই মো হুমায়ুন কবীর বলেন, নদী পুনঃখননের পাশাপাশি আঠারোবাকি নদীর বিভিন্ন স্থানে ব্রিজ তৈরি নদীর দুইপাড়ে সামাজিক বনায়ন এবং রাস্তা করার পরিকল্পনা রয়েছে ।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের খুলনা বিভাগ-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী শরীফুল ইসলাম বলেন, আঠারোবাকি নদীর ৫৭ কিলোমিটারের মধ্যে প্রায় ৩২ কিলোমিটার অংশে মিঠাপানির জলাধার থাকছে। এতে ফসল ও মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। কৃষিবিপ্লবসহ এলাকার আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নতি হবে।

SHARE