সুস্থ হলে চাকরি পাবেন রাজীব

277

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বেপরোয়া দুই বাসের ঘেঁষাঘেঁষিতে ডান হাত হারানো সরকারি তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীব হোসেন সুস্থ হয়ে উঠলে সরকারের পক্ষ থেকে তার চাকরির ব্যবস্থা করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, রাজীব খুব মেধাবী ছাত্র। অনেক কষ্ট করে পড়াশোনা করতো। মা-বাবা হারা এতিম একটা ছেলে। তার ছোট দুই ভাই রয়েছে। সব কিছু বিবেচনায় রেখে রাজীব সুস্থ হলেই তার চাকরির ব্যবস্থা করা হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রাজীবকে দেখতে এসে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, রাজীবের অঙ্গহানি হয়েছে। সে সুস্থ হয়ে উঠলে তার হাত সংস্থাপনের জন্য যদি বাইরে পাঠাতে হয়, সে ব্যবস্থাও সরকারের পক্ষ থেকে করা হবে।

রাজীবের চিকিৎসার বিষয়ে তিনি বলেন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকদের নিয়ে রাজীবের চিকিৎসায় সাত সদস্য বিশিষ্ট একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। রাজীব মস্তিষ্কেও আঘাত পেয়েছে। তার চিকিৎসার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, রাজীবের চিকিৎসার সকল ব্যয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সরকার বহন করবে। পাশাপাশি শমরিতা হাসপাতালে রাজীবের চিকিৎসায় যে খরচ হয়েছে সেটাও সরকারই বহন করবে।

দোষীদের শাস্তি হবে জানিয়ে তিনি বলেন, এই ধরনের সড়ক দুর্ঘটনা দুঃখজনক। বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানোর কারণে দোষীদের আইনের আওতায় এনে বিচারের ব্যবস্থা করা হবে।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার (৩ এপ্রিল) বিআরটিসির একটি দোতলা বাসের পেছনের ফটকে দাঁড়িয়ে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন মহাখালীর সরকারি তিতুমীর কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র রাজীব হোসেন। বাসটি হোটেল সোনারগাঁওয়ের বিপরীতে পান্থ কুঞ্জ পার্কের সামনে পৌঁছালে হঠাৎ করে পেছন থেকে স্বজন পরিবহনের একটি বাস ওভারটেক করে।

সে সময় বিআরটিসির দোতলা বাসটির পেছনের ফটকে দাঁড়িয়ে থাকা রাজীবের ডান হাতটি বাইরের দিকে সামান্য বেরিয়েছিল। স্বজন পরিবহনের বাসটি বিআরটিসি বাসের গা ঘেঁষে যাওয়ার যাওয়ার সময় রাজীবের হাতটি ছিঁড়ে যায়। তাকে দ্রুত পান্থপথের শমরিতা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু চিকিৎসকেরা চেষ্টা করেও বিচ্ছিন্ন সে হাতটি রাজীবের শরীরে আর জোড়া লাগাতে পারেননি। পরে তাকে বুধবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়।

ঢাকায় রাজীব হোসেন যাত্রাবাড়ীর মীর হাজিরবাগের একটি মেসে থাকতেন। কষ্টে-সৃষ্টে পড়াশোনা চালাচ্ছিলেন স্বজনদের সহযোগিতায়। রাজীবের মা-বাবা অনেক আগেই মারা গেছেন। তিন ভাইয়ের মধ্যে রাজীব সবার বড়। বাড়ি পটুয়াখালীর বাউফলের দাসপাড়ায়। রাজীব টিউশনি করতেন এবং চাচা ও খালাসহ সবার সহযোগিতায় পড়াশোনা চালিয়ে নিচ্ছিলেন।

দেশরিভিউ/শিমুল

SHARE