সেই রোদ্দূর রায়কে গ্রেফতারের দাবীতে মমতার বাড়ির সামনে বিক্ষোভ

302


।।দেশরিভিউ সংবাদ।। 
পশ্চিম বাংলার বিতর্কিত ইউটিউবার রোদ্দূর রায়। ‘অশ্লীল’ শব্দ ব্যবহার করেই প্রায় ইউটিউব, ফেসবুকে কবিতা ও গান গেয়ে বেশ পরিচিত পেয়েছেন তিনি। খিস্তির আদলে লেখা কবিতা ও অশ্লীল প্যারোডি গান গেয়ে সমালোচিত হয়েছেন বারবার। একপরেও নতুন প্রজন্মের একটা অংশ রোদ্দূর রায়ের বিশাল ফ্যান। তারা বিতর্কিত এসকল কবিতা, অশ্লীল প্যারোডি সংগীত প্রকাশ্য গেয়ে পশ্চিম বাংলার সংস্কৃতিকে কলুষিত করছেন এমন অভিযোগ পশ্চিম বাংলার সিনিয়র সিটিজেন থেকে শুরু করে সকল শ্রেনী পেশার মানুষের।

সম্প্রতি শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বসন্ত উৎসবে এমন একদল রোদ্দুর ফ্যান ঘটিয়েছে ফেলেছেন বিশাল এক কান্ড। কয়েকজন ছাত্র-ছাত্রী নিজেদের পিঠেই রং দিয়ে লিখেছিল, রোদ্দুর রায়ের সেই ‘বিকৃত’ গানের লাইন “*** চাঁদ উঠেছিল গগনে”! একদল তরুন বুকে লিখেছে রোদ্দুরের রচিত অশ্লীল একটি লাইন “***** ছেঁড়া গেছে”।

কবিগুরুর শান্তিনিকেতনে সেই ছাত্র-ছাত্রীদের এমন কান্ডে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। বিষয়টি এতদূর গড়ায় যে, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য পদত্যাগও করেন। পরে অবশ্য তা তিনি ফিরিয়ে নিয়েছেন। কিন্তু পশ্চিম বঙ্গে রোদ্দূরকে নিয়ে বিতর্ক থামেনি। তাঁর ‘অপসংস্কৃতি’ নিয়ে অভিযোগ জানাতে থানায় হাজির হয়েছে বিভিন্ন সংগঠন। রোদ্দূর রায়ের নামে অবশেষে দায়ের হয়েছে মামলা। তাঁর বিরুদ্ধে রবীন্দ্র সংগীতকে অশ্লীলভাবে ব্যবহারের অভিযোগ দায়ের করেছে শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ। বেলেঘাটা থানায় দায়ের হয়েছে মামলা। মামলা দায়ের হয়েছে শান্তিনিকেতন থানাতেও।

সর্বশেষ পথে নেমে বিক্ষোভ দেখাতেও শুরু করেছেন প্রতিবাদীরা। উদ্দেশ্য একটাই, রোদ্দূর রায়ের গ্রেফতারি।
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ির কাছের কালীঘাট থানার বাইরে রোদ্দূরকে গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ দেখালেন শিক্ষকরা। মুখ্যমন্ত্রী মমতার দৃষ্টি আকর্ষণ করতেই কালীঘাট থানায় বিক্ষোভ-অবস্থানের সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছে অংশ নেয়া প্রতিবাদকারীরা। তারা বলেছেন, ইউটিউব ও সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে রবীন্দ্র সংগীতকে অশ্লীল মোড়কে নতুন প্রজন্মের কাছে উপস্থাপন করছেন রোদ্দূর রায়। আর তাতে আসক্ত হয়ে সেই ‘অশ্লীল’ শব্দ ব্যবহার করেই প্রকাশ্য রবীন্দ্র সংগীত গাইছেন, পিঠে লিখছে তরুণী-তরুণীদের একাংশ। যা আসলে সমাজকে কলুষিত করছে বলেই অভিযোগ।

গ্রেফতারের দাবীতে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ

কিন্তু ঝড়ের মধ্যেও সামান্যতম সংশোধন হওয়ার সুযোগ নিতে নারাজ বিতর্কিত রোদ্দূর রায়। তিনি যে গ্রেফতারি বা জনরোষের ভয় পান না, একাধিকবার তা জানিয়েছেন রোদ্দূর রায়। তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হওয়ার পর মঙ্গলবার রোদ্দূর রায় বলেছেন, ‘ক্ষমতা থাকলে গ্রেফতার করো, মারো!’ যদিও স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতেও সেই চ্যালেঞ্জ জানাতেও ব্যবহার করেছেন অশ্লীল শব্দ। এমনকি সেদিনের অনুষ্ঠানে অশ্লীল শব্দ ও বাক্য (বুকে পিঠে) লিখে বিতর্কের মুখে থাকা তরুন তরুনীদের পক্ষে সাফাই গেয়ে রোদ্দূর রায় বলেছেন, ওরা তো কোনও নাশকতা করেনি। বাঁদরামো করেনি। দে আর জাস্ট বিইং দেমসেলভস।

SHARE