সোনালী ব্যাংকের প্রায় ৫ কোটি টাকা লোপাটের স্বীকারোক্তি আমিনুলের

205


।।নিজস্ব প্রতিবেদক, দেশরিভিউ।।
আলোচিত জাহালম মামলার অন্যতম প্রধান আসামি মোঃ আমিনুল হক ওরফে হক সাব সোনালী ব্যাংক লিমিটেড থেকে আত্মসাত করা ১৮ কোটি ৪৭ লাখ ২০ হাজার টাকার মধ্যে ৪ কোটি ৮০ লাখ টাকা লোপাট করেন। যা তিনি বৃহস্পতিবার দুদকের জিজ্ঞাসাবাদের সময় নিজ মুখে স্বীকারও করেছেন বলে জানা গেছে।

জানা গেছে সংঘবদ্ধ জালিয়াত ও প্রতারক দলের অন্যতম এই হোতা দুদকের ৩৩টি মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি।

সাত দিনের রিমান্ডের অংশ হিসাবে বৃহস্পতিবার দুদক কার্যালয়ে বেলা ১২ টা ৪৫ মিনিট থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত প্রথম দিন জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় আমিনুলকে। দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা সহকারি পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। সংস্থাটির জনসংযোগ দপ্তর এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে জুন মাসে জালিয়াতির ঘটনায় পুন:তদন্তের অংশ হিসেবে রিমান্ডে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির অভিযোগে ২০১০ প্রথম মামলা করে ব্যাংক। পরবর্তীতে তদন্তকালে দুদক ২০১২ সালে ৩৩টি মামলা দায়ের করে ও ২০১৪ সালে চার্জশিট দেয়।

দুদক সূত্রে আরো জানা যায়, আত্মসাতের অর্থ পুনরুদ্ধারের অংশ হিসেবে ২০১৮ সালের আগস্টে আদালতের আদেশে আমিনুলের ব্র্যাক ব্যাংকের বেগম রোকেয়া সরণী শাখার ৫২ লাখ ১৪ হাজার ৮৯৭ টাকা ও মিরপুর শাখায় তার নামে পরিচালিত হিসাবে ৩০ লাখ ৬৪ হাজার ১৮৯ টাকা জব্দ করা হয়। এছাড়া মানিকগঞ্জ সদরের ৪৭৩ শতাংশ জমিও ক্রোক করা হয়েছে। দুদকের তদন্তে দেখা যায়,  তিনি প্রকৃত পক্ষে জাহালম কেলেঙ্কারির মূলহোতা।

৩৩ মামলার তদন্তকালে ঠাকুরগাঁওয়ের সালেকের বদলে টাঙ্গাইলের জাহালমকে আসামি করা হয়। আসামি হিসেবে তাকে আবু সালেক ওরফে জাহালম হিসেবে উল্লেখ করা হয়। ফলে সালেকের স্থলে তিন বছর কারাগারে কাটাতে হয়েছে টাঙ্গাইলের জাহালমকে। বিষয়টি মিডিয়ায় প্রকাশিত হওয়ার পর ৩৩ মামলায় ‘ভুল’ আসামি জেলে থাকার অভিযোগের বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে দুদক চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি ও মামলার বাদীসহ চারজনকে তলব করে হাইকোর্ট। সালেক বর্তমানে পলাতক। জাহালম অভিযোগ থেকে অব্যাহতির পর বর্তমানে জামিনে আছেন।

SHARE