সোমবার তিন সিটিতে ভোট,মাঠে নেমেছে বিজিবি

45

সিলেট, বরিশাল ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোটগ্রহণ হবে সোমবার। গতরাত ১২টায় শেষ হয়েছে প্রচার- প্রচারণা। আজ (রোববার) কেন্দ্রে কেন্দ্রে পাঠানো হবে ব্যালট পেপার ও ব্যালট বাক্স। কড়া নিরাপত্তার জন্য ৩১ জুলাই পর্যন্ত রাজশাহীতে ১৫, বরিশালে ১৫ এবং সিলেটে ১৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন থাকবে।

প্রার্থীরা এখন জনরায়ের জন্য অপেক্ষায়। রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোটগ্রহণের প্রস্তুতি প্রায় শেষ করে এনেছে নির্বাচন কমিশন। এখন বাকি শুধু নির্বাচনী সরঞ্জাম কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছানো। এরপর ভোটযুদ্ধ।

তিন সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে ১৮ জন ও কাউন্সিলর পদে মোট ৫শ ৩০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এর মধ্যে রাজশাহীতে প্রধান দুই মেয়র প্রার্থী– আওয়ামী লীগের এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এবং বিএনপির মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। দু’জনই রাজশাহীর সাবেক মেয়র।

রাজশাহীর মতো সিলেটেও প্রধান দুই প্রার্থী সাবেক নগরপিতা। তারা হচ্ছেন আওয়ামী লীগের বদরউদ্দিন আহমেদ কামরান এবং বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরী।

বরিশালে আওয়ামী লীগের সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ নতুন মুখ হলেও বিএনপির মজিবর রহমান সরোয়ার সাবেক মেয়র।

প্রধান দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ছাড়াও নির্বাচনে রয়েছে বিভিন্ন দলের একাধিক প্রার্থী। তবে বরিশালে বাসদের মেয়র প্রার্থী ডাক্তার মনীষা চক্রবর্তী ছাড়া অন্য কেউ তেমন একটা আলোচনায় আসতে পারেননি।

প্রচারযুদ্ধের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত প্রধান প্রার্থীরা একে অন্যের বিরুদ্ধে অভিযোগের লড়াই চালিয়ে গেছেন। তবে, সুষ্ঠু নির্বাচনী পরিবেশ নিশ্চিতে সবকিছু করার কথা জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। প্রস্তুত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাজার হাজার সদস্য।

জাতীয় নির্বাচনের আগে তিন সিটির নির্বাচনকে অনেকেই প্রাক জনমত যাচাই মনে করছেন। নির্বাচন কমিশনের জন্যও একে পরীক্ষা বলছেন অনেকে।

দেশরিভিউ/এস এস