হাত-পা বেঁধে ছাত্রী ধর্ষণ। শিবির নিয়ন্ত্রিত কোচিংয়ের মালিক পলাতক

4930

।।শোয়েব চৌধুরী জেলা প্রতিনিধি।।

ফেনীতে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ কর্তৃক ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি ধর্ষণচেষ্টা ও পরবর্তীতে হত্যার ঘটনায় সারাদেশে যখন প্রতিবাদ চলছে ঠিক তখনি চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নে নবম শ্রেনীর এক ছাত্রীকে হাত-পা বেঁধে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় ছাত্রশিবির পরিচালিত একটি কোচিং সেন্টারের মালিকের বিরুদ্ধে। সৃজনশীল নামের কোচিং সেন্টারের মালিক ও অভিযুক্ত এই শিক্ষকের নাম সাইফুল ইসলাম।

উপজেলার উত্তর আমিরাবাদ এলাকার আব্দুস সোবহানের ছেলে অভিযুক্ত সাইফুল ইসলাম উত্তর আমিরাবাদ এলাকায় কোচিং সেন্টারটি স্থানীয় ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীদের নিয়ে পরিচালনা করে আসছিলেন বলে নিশ্চিত করেছে লোহাগাড়া থানা পুলিশ। এলাকাবাসী বলছে, এর আগেরও কোচিংয়ের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে শ্লীতাহানির অভিযোগ থাকলেও তা স্থানীয় ভাবে মিমাংসা করা হয়।

৯ম শ্রেনীর সেই ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় গত ১৫ এপ্রিল লোহাগাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন স্কুল ছাত্রীর মা। মামলা সূত্রে জানা যায়, সাইফুল ইসলাম উত্তর আমিরাবাদ এলাকায় সৃজনশীল নামে একটি কোচিং সেন্টার খুলেন। ভিকটিমসহ একই পরিবারের ৪ সহোদর সেই কোচিং সেন্টারে পড়তেন। সে সুবাধে অভিযুক্ত সাইফুল ইসলামের সাথে ভিকটিমের পরিবারের সাথে যুগসূত্র তৈরি হয়। ওই ছাত্রীর মা ঘটনার বর্ননায় বলেন , ঘটনার আগের দিন আমি বড় মেয়ের শ্বশুরবাড়িতে যাই। পরদিন ১২ এপ্রিল সকাল ৮টার দিকে সাইফুল আমাকে ফোন করে আমি কোথায় আছি তা জানতে চান। আমি বড় মেয়ের শ্বশুরবাড়িতে আছি বলে জানাই। এরপর তিনি আমাদের ঘরে এসে আমার মেয়েকে একা পেয়ে হাত-পা বেঁধে ধর্ষণ করে গুরুতর আহত করেন। এ সময় মেয়ের চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে সাইফুল পালিয়ে যান। পরে মেয়েকে উদ্ধার করে লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করে। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে দীর্ঘ এক সপ্তাহ চিকিৎসার পর সুস্থ হয়ে উঠলে গত ১৮ এপ্রিল মেয়েকে নিয়ে বাড়ি আসি।

লোহাগাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুল বলেন, ঘটনার জানাজানি হওয়ার পর থেকেই কোচিং সেন্টার বন্ধ করে আসামি আত্মগোপনে চলে গেছে। এমনকি তার পরিবারে কোন পুরুষ মানুষকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা। তবে পুলিশ তাকে গ্রেফতারে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

SHARE