হামলাকারীদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তার আশ্বাস দিয়েছিলেন তারেক রহমান

378



।।দেশরিভিউ নিউজরুম।।

গ্রেনেড হামলার পর হামলাকারীদের নিরাপত্তা ও নিরাপদে ঘটনাস্থল ত্যাগ করার ব্যবস্থা করা হবে বলে জঙ্গি নেতা মুফতি হান্নানকে সর্বোচ্চ আশ্বাস দিয়েছিলেন বিএনপি নেতা তারেক রহমান।

বহুল আলোচিত একুশে আগষ্ট গ্রেনেড হামলার মামলা চলাকালে ২০১২ সালের ২৭ মে আদালতে এমন সাক্ষ্য দিয়েছিলেন সিআইডির পরিদর্শক আবু হেনা মোহাম্মদ ইউসুফ। তদন্তকালে হুজি জঙ্গী নেতা মুফতি হান্নানের জবানবন্দির বরাত দিয়ে তিনি এ সাক্ষ্য দেন।

সেদিন আবু হেনা আদালতকে বলেন, তিনি রমনা বটমূলে বোমা হামলা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন। ২০০৮ সালের ২৯ নভেম্বর হরকাতুল জিহাদের (হুজি) নেতা মুফতি হান্নানসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে এ-সংক্রান্ত মামলা দুটির অভিযোগপত্র দেন। এর আগে ২০০৫ সালের অক্টোবরে মুফতি হান্নানকে র‌্যাব গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের পর তাঁকে বিভিন্ন মামলায় রিমান্ডে নেন সিআইডির তৎকালীন বিশেষ পুলিশ সুপার রুহুল আমিন। তখন ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মুন্সী আতিকুর রহমান এবং আবু হেনা নিজে মুফতি হান্নানকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদে মুফতি হান্নান জানান, তিনি হুজির একজন শীর্ষ নেতা। জবানবন্দির মাধ্যমে হান্নান ২০০০ সালে টুঙ্গিপাড়ায় বোমা পুঁতে রেখে শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা, সিলেটে ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরী, সিলেটের মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরান, সুনামগঞ্জে আওয়ামী লীগের নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের ওপর গ্রেনেড হামলার কথা জানান।

মুফতি হান্নানের জবানবন্দির বরাত দিয়ে সিআইডির এই কর্মকর্তা আদালতকে বলেন মুফতি হান্নান, মাওলানা তাজউদ্দিন ও মাওলানা আবু জান্দালদের নিয়ে তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর বাসায় গিয়ে শেখ হাসিনার সমাবেশস্থলে ২০০৪ সালের ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলার পরিকল্পনা করেন।

আদালতে সেদিন আবু হেনা বলেন, গ্রেনেড হামলার আগে মুফতি হান্নান হুজির অন্যান্য শীর্ষস্থানীয় নেতাকর্মীকে নিয়ে তারেক রহমানের অফিস হাওয়া ভবনে যান। তাঁদের তারেক রহমান আশ্বাস দেন, যারা গ্রেনেড হামলা করবে, তাদের নিরাপত্তা দেওয়া হবে। হামলার পর ঘটনাস্থল থেকে পালানোর ব্যবস্থা করে দেওয়ারও আশ্বাস দেন তিনি। এ বিষয়ে তারেক রহমান তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরকেও নির্দেশ দেন। এরপর উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুর ভাই তাজউদ্দীনের কাছ থেকে মুফতি হান্নান গ্রেনেড সংগ্রহ করেন। আবু হেনা বলেন, মুফতি হান্নানের এ বক্তব্য ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার তৎকালীন তদন্ত-তদারক কর্মকর্তা রুহুর আমিন ও তদন্ত কর্মকর্তা মুন্সী আতিকুর রহমান লিপিবদ্ধ করেন।

সিআইডির পরিদর্শক আবু হেনা বলেন, তিনি রমনা বটমূলের মামলায় ২০০৬ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর মুফতি হান্নানকে রিমান্ডে নেন। জিজ্ঞাসাবাদে তখন হান্নান এসব কথা স্বীকার করেন। তখন তিনি হান্নানের কথা একটি সাদা কাগজে লেখেন এবং সিআইডির কর্মকর্তা রুহুল আমিন, মুন্সী আতিক ও সিআইডি প্রধান (অতিরিক্ত আইজিপি) খোদা বখশ চৌধুরীকে দেখান। এতে আবু হেনার ওপর এ তিন কর্মকর্তা ক্ষুব্ধ হন এবং ২১ আগস্টের ঘটনা বাদ দিয়ে জবানবন্দি লিপিবদ্ধ করার নির্দেশ দেন।
সাক্ষ্যে আবু হেনা বলেন, ‘রুহুল আমিন ও মুন্সী আতিক আমাকে বলেন, “গ্রেনেড হামলা মামলা আমরা তদন্ত ও তদারক করছি।” এ বিষয়ে আমার দেখার প্রয়োজন নেই। এরপর আমি মুফতি হান্নানের জবানবন্দি নেওয়ার জন্য ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে প্রেরণ করি। পরে জানতে পারি, হান্নান স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।’

SHARE