হালদা নদীকে বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ ঘোষণার সিদ্ধান্ত

129

।।দেশরিভিউ, চট্টগ্রাম।।

দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদী। খাগড়াছড়ির রামগড়ের পাহাড় থেকে উৎপত্তি হওয়া হালদা নদীকে ‘বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ’ ঘোষণার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপন উপলক্ষে এ নদীকে ‘বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ’ ঘোষণার এ সিদ্ধান্তের অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রামগড় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মুহাম্মদ সরওয়ার উদ্দিন জানান, জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে ঐতিহ্যবাহী হালদা নদীকে বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ ঘোষণার সিদ্ধান্ত হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ ঘোষণা করার অনুমোদনও দিয়েছেন।

খাগড়াছড়ি জেলার রামগড় উপজেলার বেলছড়ি নামক দুর্গম এলাকার হাসুকপাড়া পাহাড় থেকে হালদা নদীর উৎপত্তি হয়ে মানিকছড়ি, ফটিকছড়ি, রাউজান ও হাটহাজারি উপজেলার মধ্যদিয়ে কর্ণফুলী নদীতে মিলিত হয়েছে। মৎস্য সম্পদে ভরপুর এ নদী জাতীয় অর্থনীতিতে ব্যাপক অবদান রাখছে। বাংলাদেশের একমাত্র রুই, কাতলা, মৃগেল, কালিগনি (রুই জাতীয়) মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্র হালদা। বিশ্বের সরাসরি রুই জাতীয় মাছের ডিম সংগ্রহ করার একমাত্র নদী হলো এই হালদা।

এদিকে বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ ঘোষণার সিদ্ধান্ত হওয়ায় হালদাকে নিয়ে নতুন কর্ম প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। নদীটির প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণসহ বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা তৈরি করতে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউটের পরিচালক (অর্থ ও প্রশাসন) ড. খলিলুর রহমানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল গত বুধবার উৎপত্তিস্থল থেকে বিভিন্ন এলাকায় নদীর বর্তমান অবস্থা সরেজমিনে দেখে গেছেন। নদীর দুই পাড়ের উপজেলাগুলোতে স্টেকহোল্ডার কনসালটেশন মিটিংও করেছেন তিনি।

এদিকে হালদা নদীকে বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ ঘোষণার সিদ্ধান্তকে সুখবর উল্লেখ করে হালদা নদী রক্ষা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মো. মনজুরুল কিবরীয়া বলেন, এ ঘোষণা নদী রক্ষা কমিটির বিগত ১৫ বছরের আন্দোলনের আরেকটি সফলতা। তিনি এ জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান। ‘বঙ্গবন্ধু মৎস্য হেরিটেজ’ ঘোষণার ফলে হালদা নদী নতুন প্রাণ ফিরে পাবে এবং মৎস্য সম্পদসহ জীব বৈচিত্র্য রক্ষা পাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

SHARE