হৃদয়ের রোগ সারাতে সবাই কেন ডা. দেবী শেঠির হাসপাতালে যায়?

7672

।।মনোয়ারা জাহান রিয়া।।দেশরিভিউ।।

চিকিৎসার জন্য অনেকেই বাংলাদেশ থেকে ভারতে যান। অনেকের এ সম্পর্কে তেমন কোনো ধারণা নেই, আবার অনেকেরই আছে। আবার হার্টের অসুখ নিয়ে যারা ভারতে চিকিৎসা করতে যান তারা সবাই ডা. দেবি প্রসাদ শেঠির রোগীদের হতে চান। আজ আমরা জানাবো ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের ব্যঙ্গালুরুর নারায়ণা হেলথ হাসপাতাল সম্পর্কে কিছু তথ্য। নারায়ণা হাসপাতাল একটি খ্যাতিসম্পন্ন জনপ্রিয় হাসপাতাল, যেখানে বিশ্বখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. দেবি প্রসাদ শেঠি নিজে রোগী দেখে থাকেন।

ডা. দেবী শেঠি: ড. দেবী প্রসাদ শেঠি একজন ভারতীয় কার্ডিয়াক সার্জন। পৃথিবীর ১০ জন খ্যাতিমান হৃদরোগ সার্জনের মধ্যে দেবি শেঠি অন্যতম। স্বল্প খরচে উন্নত চিকিৎসা প্রদানে তার পরিচিত বিশ্বব্যাপী। এ অবদানের জন্য তাকে পদ্মভুষণ পদকেও ভূষিত করা হয়েছে। দক্ষিণ ভারতে জন্ম নেওয়া দেবী শেঠি ১৯৮২ সালে কস্তুরবা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস সম্পন্ন করেন। পরে ইংল্যান্ড থেকে সার্জারী বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রী নেন তিনি।

১৯৮৯ সালে লন্ডনের উচ্চাভিলাষী চাকরীর লোভ ত্যাগ করে দেশে ফিরে আসেন দেবী শেঠি। ভারতে এসে ডা. রায়ের সাথে কলকাতায় গড়ে তোলেন ভারতের প্রথম হৃদরোগ চিকিৎসা হাসপাতাল বি এম বিড়লা হার্ট রিসার্চ সেন্টার। কিন্তু ভারতীয়দের হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা ইউরোপিয়ানদের তুলনায় তিনগুন বেশী হওয়ায় এই একটি হাসপাতাল যথেষ্ট ছিল না। এজন্য ডা. দেবী শেঠি এবং ডা. রায় মিলে আরও তিনটি হৃদরোগ চিকিৎসা কেন্দ্র গড়ে তোলেন। তিনি কলকাতায় মাদার তেরেসার ব্যক্তিগত চিকিত্‍সক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

১৯৯৭ সালের এপ্রিল মাস পর্যন্ত ডা. দেবী শেঠি ৪০০০ শিশুর হার্ট সার্জারী সম্পন্ন করেন, তাদের অধিকাংশই দরিদ্র পরিবার থেকে ওঠে আসা এবং এদের সবাইকেই তিনি বিনামূল্যে চিকিৎসা করেছেন। এখনো ডা. দেবী শেঠি এবং তার নারায়ণা হৃদয়ালয় একদিকে দরিদ্র রোগীদের বিনামূল্যে ওপেন হার্ট সার্জারীর মতো ব্যয়বহুল চিকিৎসা দেয়, অন্যদিকে এই হাসপাতালে এসে যেকোনো বয়সের হৃদরোগী যেন অর্থাভাবে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখা হয়।

দেবী শেঠির হাসপাতালে আসা হার্ট সার্জারীর রোগী বা তার এটেন্ডেন্টকে প্রথমেই জিজ্ঞেস করা হয়- ‘আপনার কী কী অসুবিধা আছে বলুন’। রোগী তাদের অবস্থান সম্পর্কে তথ্য দিলে দেবী শেঠি নিজেই পঁচিশ হাজার থেকে দেড় লাখ রুপি পর্যন্ত মূল্য ছাড় লিখে দেন। এছাড়াও এই হাসপাতালে দরিদ্র ও খেটে খাওয়া মানুষের জন্য অনেক আসন বিনামূল্যে সংরক্ষিত আছে। চট্টগ্রামের সাবেক প্রয়াত মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর সাথে ছিলো তার বিশেষ সখ্যতা। ভারতে চিকিৎসা নিতে যাওয়ার আগে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে মানুষ ছুটে আসতো সাবেক এই মেয়রের কাছে। তিনি কাগজে নিজের রেফারেন্সের কথা লিখে  দিলেই ডা. দেবি শেঠীর হাসপাতালে চিকিৎসা খরচ অর্ধেক মওকুপ করা হতো।    

নারায়না হেলথের বিশেষত্ব:

হার্ট বিশেষজ্ঞ ডা. দেবী শেঠি ২০০১ সালে ব্যাঙ্গালুরুতে ‘নারায়ণা হেলথ’ (এনএইচ) প্রতিষ্ঠা করেন। একটি ২২৫ শয্যার হাসপাতাল হিসেবে যাত্রা শুরু করা নারায়ণা হেলথ এখন ২৩টি হাসপাতাল, ৭টি হার্ট সেন্টার ও ১৯টি প্রাথমিক সেবা কেন্দ্রের এক বিশাল নেটওয়ার্ক। এ হাসপাতালগুলোতে রয়েছে ছয় হাজারেরও অধিক শয্যা।

নারায়ণা হাসপাতাল থেকে কখনো কাউকে আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে ফিরে যেতে হয় না। তারা অনেক দরিদ্র মানুষকেই স্বল্পমূল্যে সেবা প্রদান করে থাকেন। তবে এটি কোনো দান হিসেবে করেন না তারা। এ ব্যয় বহন করতে তারা ‘ভর্তুকি মডেল’ অনুসরণ করেন। ধনী ব্যক্তিরা দরিদ্রদের জন্য ভর্তুকি দেন, ধনীরা এ জন্যে হয়তো বিলাসবহুল কক্ষ কিংবা এ ধরনের অতিরিক্ত কিছু সুবিধা পান। কিন্তু মূল চিকিৎসার মান সকলের জন্যই বিশ্বমানের।

এ পর্যন্ত নারায়ণা হাসপাতালে লক্ষাধিক অস্ত্রোপচার হয়েছে, যার মধ্যে প্রায় অর্ধেক রোগীই ছিল দরিদ্র শ্রেণীর, যাদের কেউ স্বল্পমূল্যে, কেউ বিনামূল্যে চিকিৎসা পেয়েছেন। নারায়ণা হাসপাতাল দেড় লাখ থেকে খরচ তারা কমিয়ে এনেছেন নব্বই হাজার রুপিতে। ডলারের হিসেবে যা মাত্র ১৫০০ ডলার, যেখানে এ ব্যয় যুক্তরাষ্ট্রে ১,৪৪,০০০, মেক্সিকোতে ২৭,০০০ ও কলাম্বিয়ায় ১৪,৮০০ ডলার। বিশ্বের বৃহত্তম হৃদরোগ হাসপাতাল ‘নারায়ণা ইন্সটিটিউট অব কার্ডিয়াক সায়িন্সেস’ এ আছে ১০০০ শয্যা, ১০৭ জন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ, ৫টি ক্যাথ ল্যাব, ১৫টি অপারেশন থিয়েটার এবং প্রতিদিন কমপক্ষে ৩৫জন ছোট -বড় রোগীর ওপেন হার্ট সার্জারী হয়।

হাসপাতাল সম্পর্কিত তথ্য: আলাদা আলাদা রোগের জন্য ওখানে আলাদা আলাদা ইউনিট বা বিল্ডিং রয়েছে। কোন ডাক্তার দেখাবেন তা সম্পর্কে কোনো ধারণা থাকলে বাংলাদেশ কাউন্টার নামের ডেস্ক আছে সেখান থেকে সাহায্য নিতে পারেন। যেহেতু আপনি বিদেশি রোগী সেহেতু হাসপাতালে রেজিস্ট্রেশন ফর্ম পুরন করে পাসপোর্টের ফটোকপি দিতে হবে। তারপর ডাক্তারের এপোয়েন্টমেন্ট নিতে হবে। ডাক্তারের ফিস ৬০০ থেকে ৮০০ রুপির মধ্যেই। ভাষাগত জটিলতা থাকলে আপনি দোভাষীর সাহায্য নিতে পারেন কারণ তারা বাংলা ঠিকমতো বুঝেন না। আর দোভাষীর ফিস খুবই অল্প। কোন রকম পরীক্ষা নিরীক্ষার প্রয়োজন হলে হাসপাতাল কম্পাউন্ডের মধ্যেই আপনি সব ব্যবস্থা পেয়ে যাবেন। আর খরচ বাংলাদেশের তুলনায় খুবই কম।

এই হাসপাতালে দরিদ্র ও খেটে খাওয়া মানুষের জন্য অনেক আসন বিনামূল্যে সংরক্ষিত আছে। ছবি: সংগৃহীত

প্রয়োজনীয় তথ্য: এই হাসপাতাল বাংলাদেশিদের কাছে ডাক্তার দেবী শেঠির জন্যই পরিচিত। এখানে বাংলাদেশিরা আসেন হৃদরোগের চিকিৎসা জনিত কারণেই। কিন্তু সবাই ওইখানে যাওয়ার পর যে ভুলটা করেন- ডাক্তার দেবী শেঠির অ্যাপোয়েন্টমেন্টের জন্য তারা দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেন এবং তাকেই দেখান। দেখার পর যদি সার্জারি প্রবলেম হয়, উনি সার্জারির পরামর্শ দেন এবং রিলেটেড কোনো ডাক্তারকে রেফার করে দেন, অথবা ঔষধ দিয়ে কয়েক মাস পর আবার চেক আপ করতে বলেন। এতে অনেক দীর্ঘ সময় চলে যায়।

এই হাসপাতালে দেবী শেঠি ছাড়াও অনেক বিশেষজ্ঞ কার্ডিয়াক কনসালটেন্ট ও কার্ডিয়াক সার্জন আছেন। আর তাদেরকে দেবী শেঠি নিজেই অ্যাপয়েন্ট করেছেন ওই হাসপাতালে। অর্থাৎ, কনসালটেন্ট ডাক্তার যারা আছেন, তারা এইজন্যই আছেন যে, প্রাথমিক সবকিছুই সেসব ডাক্তার দেখবেন, এবং পরবর্তীতে প্রয়োজন হলে সেগুলোর জন্য আলাদা বিশেষজ্ঞ ডাক্তার বা দেবী শেঠির কাছে পাঠাবেন। আপনি যদি এখানে কোনো কার্ডিয়াক কনসালটেন্টকে দেখান, এরপর সব টেস্ট ও রিপোর্ট দেখার পর, প্রয়োজন হলে সেই ডাক্তারই আপনাকে পরামর্শ দিবে দেবী শেঠিকে দেখানোর জন্য।

এখানে সার্জারির সব কিছুই ডাক্তার দেবী শেঠির সিদ্ধান্তে হয়। এবং উনি যে ডাক্তারকে রেফার করবেন, শুধু তিনিই সার্জারি করবেন। তাই প্রথমে সবার উচিত, এসেই একজন কার্ডিয়াক কনসালটেন্টকে দেখানো। এতে আপনার চিকিৎসা প্রক্রিয়া সহজ হবে ও দীর্ঘ সময় ক্ষেপণ হবে না।

বেশিরভাগ বাংলাদেশী এখানে আসার ক্ষেত্রে ভাষাটাকে সমস্যা মনে করেন। মজার ব্যাপার হলো এখানে বেশিরভাগ ডাক্তারই বাংলা বোঝেন ও বলতে পারেন। আর যদি তবুও আপনার প্রয়োজন হয়, হসপিটাল থেকেই দোভাষী নিতে পারেন যারা এখানে কর্মরত আছেন। ডাক্তারের অ্যাসিসট্যান্ট আপনাকে জিজ্ঞেস করবে, আপনার দোভাষীর প্রয়োজন আছে কিনা। অথবা আপনি নিজে থেকে বললে, তারাই ডেকে নিয়ে আসবে। এজন্য কোনো অতিরিক্ত ফি দিতে হবে না। এরপর যদি সার্জারির জন্য অ্যাডমিশন নেন, সেখানে বাংলাভাষী নার্স আছেন। আর বাংলা ভাষায় সাহায্যের জন্য প্রতি ওয়ার্ডে প্রয়োজনীয় নাম্বার দেওয়া আছে।

যাত্রাপথ: প্লেন: ঢাকা/চট্টগ্রাম থেকে ব্যাঙ্গালোর সরাসরি কোন ফ্লাইট নেই। কম খরচে অনেক কানেক্টিং ফ্লাইট আছে, যেগুলো কলকাতাতে ট্রানজিট দিয়ে থাকে। আপনি আপনার সুবিধা মতো যে কোনোটি নিতে পারবেন। বাই এয়ারে আসলে আপনি ব্যাঙ্গালোর এয়ারপোর্টে নামবেন। সেখানে থেকে হাসপাতালের দূরত্ব প্রায় ৫৬ কি. মি.। তাই এয়ারপোর্ট থেকে হাসপাতাল পর্যন্ত আসার জন্য এয়ারপোর্ট ট্যাক্সি অথবা কম খরচে ওলা বা উবার রাইড সেবা নিতে পারেন।
উবার/ওলা: ৮০০-১২০০ রুপি।
এয়ারপোর্ট টেক্সি: ১৪০০-১৮০০ রুপি।

ট্রেন: কলকাতা- ব্যাঙ্গালোর
কলকাতা-ব্যাঙ্গালুরু এসি এক্সপ্রেস ছাড়ার সময়: সকাল ১০:৫৫ মিনিটে, পৌঁছাবে: বিকেল ৪ টায়, সময় লাগবে: ২৯ ঘণ্টা ৫ মিনিট
ভাড়ার তালিকা:
এসি ওয়ান-এ: ৪৮৯৫ রুপি
এসি টু-এ: ২৮৪০ রুপি
এসি থ্রি-এ : ১৯৪৫ রুপি
যদি জেনারেলে এ পাওয়া যায় তাহলে প্রতি টিকিটের এই মূল্য, কিন্তু না পাওয়া গেলে ট্যাটকালের মাধ্যমে কিনতে হবে, সেক্ষেত্রে টিকিটের ধরন অনুযায়ী কিছু মূল্য বেশি দিতে হবে। ব্যাঙ্গালোর ট্রেন স্টেশন থেকে হাসপাতালের দূরত্ব প্রায় ৩০ কি: মি:।

হোটেল বা লজ: হাসপাতালের আশেপাশেই থাকার জন্য অনেক হোটেল বা লজ আছে। রুমের ধরন, সুযোগ সুবিধা ও অবস্থান ভেদে খরচ একেক রকম। আপনি আপনার বাজেট অনুযায়ী ৫০০-১০,০০০ রুপির মধ্যেই রান্না সুবিধা সহ ননএসি এবং এসি রুম পাবেন।।

খাওয়া-দাওয়া: প্রায় প্রত্যেক হোটেল বা লজে রান্নার সুবিধা রয়েছে। তার মধ্যে সব ধরনের বাসন, ফ্রিজ এবং গ্যাসের চুলা থাকে।
বাজার করার জন্য হোটেলের আশেপাশে মুদি, শাক-সবজি, মাছ, মুরগি ইত্যাদি দোকান আছে। তাই সহজেই বাজার করে নিজেরাই রান্না করে খেতে পারবেন। এছাড়া বড় বাজারে যেতে চাইলে চন্দ্রপুরা বা হেব্বাগুডিতে যেতে পারেন। সেখানে কিছু বাঙালি খাবার হোটেল রয়েছে। তাদের পার্সেল সার্ভিসও রয়েছে৷ আপনি পার্সেল অর্ডার করলে হোটেলে এসে দিয়ে যাবে। কিন্তু খাবারে মান ও স্বাদের তুলনায় খরচ অনেক বেশি। এছাড়া কিছু হোটেল/লজ এর নিজস্ব খাবার সার্ভিস আছে, তবে সবদিক বিবেচনায় নিজেরাই রান্না করে খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

 

 

SHARE