১০ হাজার জামাইকে বরণ করলেন অপু বিশ্বাস

154

পহেলা বৈশাখ মানেই বাঙ্গালীদের মনে খুশীর ঝড় বয়ে যাওয়া । আর বাঙ্গালীদের ঐতিহ্যবাহী সার্বজনীন লোকজ উৎসব।এ দিনে সারাদেশে বাঙ্গালীরা করে থাকে নানান রকম উৎসব ।  প্রাণের উৎসব ও ঐতিহ্যকে লালনসহ আত্মীয়তার মেলবন্ধনে জড়িয়ে রাখার জন্য জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার মাত্রাইয়ে ১০ হাজার জামাইকে বরণের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠিত হলো জামাই মেলা ও গ্রামীণ বৈশাখী উৎসব।

 

এ বৈশাখী উৎসব উপলক্ষে গতকাল শনিবার (১৪ই এপ্রিল) সকালে মঙ্গল শোভাযাত্রার পর ১০ হাজারটি গামছা দিয়ে সমপরিমাণ জামাইদের বরণ করেন মাত্রাই ইউপি চেয়ারম্যান ও জামাইদের প্রতিকী শ্বশুর আ ন ম শওকত হাবিব তালুকদার লজিক।

দিনব্যাপী পুঁথি পাঠ, বাউল গান, সারি গান, মুর্শিদী গান, বেঁদে-বেদেনীর সাপ খেলা, বদন খেলা, বউচি খেলা, লাঠি খেলা, নাগরদোলাসহ গ্রামীণ নানা ঐতিহ্য প্রদর্শিত হয়।

এবং বিকেলে বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় চিত্র নায়িকা অপু বিশ্বাস আগত জামাইদের অভিবাদন জানান।

মাত্রাই ইউনিয়নের নিমন্ত্রিত ১০ হাজার মেয়ে ও জামাই বৈশাখের দাওয়াত পেয়ে বেশ নেচে গেয়ে প্রাণের উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। অনেকেই ব্যক্ত করলেন প্রাণের অনুভূতি। একই ইউনিয়নের গাড়ইল গ্রামের স্থানীয় জামাতা ফরিদ আহম্মেদ, পাশের আহম্মেদাবাদ ইউনিয়নের বোরাই গ্রামের বাসিন্দা ও মাত্রাই ইউনিয়নের শালগুন গ্রামের আব্দুল গনির জামাতা সুজাউল ইসলাম, গাইবান্ধার পলাশবাড়ি উপজেলার বাসিন্দা ও একই ইউনিয়নের শিশ সমুদ্দুর গ্রামের জামাতা আব্দুস সালাম, একই গ্রামের অপর জামাতা কালাই পৌরসভার পাঁচশিরা এলাকার বাসিন্দা ফারুখ হোসেনসহ অনেক জামাতা জানান, দেশের মধ্যে এমন আয়োজন রয়েছে বলে তাদের জানা নেই। প্রীতিভোজ ছাড়াও জামাইদের বিনোদন দিতে হালের অন্যতম শীর্ষ চলচ্চিত্র নায়িকা অপু বিশ্বাসের অভিবাদন দেয়ায় তাদের বেশ মুগ্ধ করেছে বলেও জানান নিমন্ত্রিত জামাইরা।

অাবার অনেক জামাই অভিযোগে জানান, বিয়ের পর অনেকেই শ্বশুরবাড়িতে তেমন আদর পাননি। আজ তাদের প্রতিকী শ্বশুর ইউপি চেয়ারম্যান যেভাবে তাদের আপ্যায়িত করছেন, তা স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

এই ইউপির অনেক মেয়ে যাদের দীর্ঘদিন বিয়ের পর আসা হয়নি বাপের বাড়িতে তাদের মধ্যে মাত্রাই গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের মেয়ে বিধবা আনোয়ারা পারভীন কান্নাজড়িত কন্ঠে জানান, আব্বা মারা যাওয়ার পর কেউ খোঁজ খবর নেয়নি। প্রতিকী বাবা এই ইউপি চেয়ারম্যান গত বছর থেকে এই উৎসবকে কেন্দ্র করে যে আদর-যত্ন করছেন, খোঁজ-খবর নিচ্ছেন- তা ভুলার মত নয়।

বগুড়া সদরের আবু জাফর, সৌদী প্রবাসী আব্দুল হাকিমসহ অনেক জামাই বলেন, নিজের শ্বশুর এভাবে দাওয়াত না দিতে পারলেও মাত্রায় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমাদের দাওয়াত কার্ড দিয়ে আমন্ত্রণ জানান। আমরা ১০ হাজার জামাই একত্রিত হতে পেরে আনন্দিত। মনে হচ্ছে আমরা অনেকগুলো ভায়রা ভাই একত্রিত হলাম।

মাত্রাই ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আ ন ম শওকত হাবিব তালুকদার লজিক বলেন, বাঙালি সংস্কৃতি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে মানুষ বড় স্বার্থপর হচ্ছে। তাই মানুষের মধ্যে মেলবন্ধন তৈরি আর শেকড়ের টানেই এই সামগ্রিক আয়োজন। এমন আয়োজনের মাধ্যমে একদিকে পারিবারিক সম্পর্ক উন্নয়ন হয়, অন্যদিকে সামাজিকভাবে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখাও সম্ভব বলেও জানান তিনি ।

দেশরিভিউ / আরিফুল ইসলাম

SHARE